PDA

View Full Version : DS report: A wakeup call


MohammedC
July 21, 2010, 01:33 PM
A wakeup call

By Architect Prof. Dr. Nizamuddin Ahmed

Disastrous is an understatement. Losing to one non-Test-playing country (Ireland by seven wickets) could perhaps be brushed aside as an accident, but losing to a second (Netherlands by six wickets) within a week is a polite form of consenting that the other nations have come of age with fresh performing faces and Bangladesh is stuck with the likes of Ashraful.
While it is of armchair convenience to blame our cricketers at the end of what has been the worst tour with defeats to any team suffixed 'land', despite the first-ever win against England because we have to take into account the subsequent drubbing, the big-margin and embarrassing defeats tell not only of the physical and mental state of the team, inclusive of the tour officials, they describe the harrowing condition of the Bangladesh Cricket Board. We are mighty glad that the match against another 'land' prefixed Scot was called off due to rain because it seems Bangladesh got the advantage.
In a team game, teams win because of teamwork attained by cohesion within the team, the boundaries of which most definitely extends beyond the eleven players who play on the field; it includes every volunteer elected member and salaried official of the board. Let me spell it out for you, a team also loses for lack of unity, consistency, solidity, organisation, structure, and pulling together, and yes! I am heavily indebted to my thesaurus. But at this moment in time, after its ascent since the 1999 World Cup, BCB fits well into the negative synonyms. Incidentally, that is conceivably the only bit of 'well' left in that ailing body.
Now somebody or everybody has to shoulder the responsibility (and not only the lame blame) and do the needful. It is the right time for the BCB president, the elected members, the selectors, the statutory committees, the coach, and the team management (in no specific order) to come to terms with the ground reality, and take a decision about their respective future. I am not ruling out resignation.
The two defeats have become incredibly big because of the impending 2011 ICC Cricket World Cup, which Bangladesh is co-hosting, and the BCB has taken up a massive infrastructure development scheme involving a large sum of the state exchequer. The condition of the team (players and officials) is sufficient evidence that the present management is not manned to face the challenges. A total reorganisation and rethought is in order. We cannot continue to shame the government and the nation.
The blame-game may begin with a statement that within BCB there are elements of the previous government conspiring to foil all the good intentions, but it has to end with disbanding the existing setup and forming a new team with tested managers, including some from the existing board, who can deliver selflessly. And please let not the self-seeking profess that the ICC hammer would come down if an elected body is re-organised; it will not be the first time. The entire elected board was dissolved in 2001 as a result of BNP government's wrath. The government must inquire and act now.

http://www.thedailystar.net/newDesign/news-details.php?nid=147739

MohammedC
July 21, 2010, 01:35 PM
This is one of the best article I have read. This guy is good. My blood is boiling.

bujhee kom
July 21, 2010, 01:50 PM
Yeah, this is the best article I ever read from a BD paper and by a BD journalist! I now have respect for this guy, I am saying this because I usually do not have any respect or faith in BD newspaper articles.

MohammedC
July 21, 2010, 01:53 PM
Yeah, this is the best article I ever read from a BD paper and by a BD journalist! I now have respect for this guy, I am saying this because I usually do not have any respect or faith in BD newspaper articles.

Zaved bhai,I dont think this guy is a journalist. He is an architecht professor. His English is very good.

bujhee kom
July 21, 2010, 02:04 PM
Ohh right right, I read that with his name...sorry Mo bhai! Thank you!

Dilscoop
July 21, 2010, 02:07 PM
People in Dhaka, Ban needs to get on the streets, and voice up. That's the subcontinent way. And that's the only way it works. If you guys care you will organize one misil (or w/e you call it?). And I need to go to my class. But I will be glad to see some kinda plan on this when I return :D

AsifTheManRahman
July 21, 2010, 02:39 PM
Ei Nizamuddin re ami dui chokkhe dekhte pari na. Naamer aagey etogula title marar ki ache?

Zeeshan
July 21, 2010, 03:12 PM
Dr. Zed's arch-nemesis The Architect strikes again. Du-du-duhng! *cue Beethoven 5th*

Ananna
July 21, 2010, 03:17 PM
Ei Nizamuddin re ami dui chokkhe dekhte pari na. Naamer aagey etogula title marar ki ache?

I agree.
Too many titles. Just Dr. Nizamuddin or Prof. Nizamudding would have been fine.

Ajfar
July 21, 2010, 03:29 PM
uni article lekhben bhalo kotha aie shob dhoroner title dekhe manush ki korbe?

Its a pretty good article talks about some serious issues. Im surprise that media hasnt made a big deal out of it
<br />Posted via BC Mobile Edition (iPhone)

MohammedC
July 21, 2010, 04:36 PM
Right sy bhai. I only posted it because I liked the article .May be the editor put his title when this news was published.
<br />Posted via BC Mobile Edition (iPhone)

bujhee kom
July 21, 2010, 04:43 PM
If he did his Hajj pilgrimage and if he was a holy man and if he was from Khijri Districts and if he founded a hospital, it would be called "Hazrat Alhaj Maulana Architect Professor Doctore Nizamuddin Ahmed Al Khijri Memorial Hospital" .....On the ambulances of that hospital will be written "emergency + HAMAPDNAKMH + emregency" "Side diin" "Agey jete diin" ...paa poo paa poo

Murad
July 21, 2010, 05:42 PM
From Prothom-Alo
[বাংলা]
‘অঘটন’ নয়


জেমি সিডন্স কি আর জানতেন তাঁর বলা কথাটা বুমেরাং হয়ে বিঁধবে তাঁকেই? ব্রিস্টলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জেতার পর বাংলাদেশ কোচ বলেছিলেন, ‘ক্রিকেটারদের মধ্যে এখন এই বিশ্বাস জন্মাবে যে তারা যেকোনো দলকে হারাতে পারে।’ কিন্তু পাঁচ দিনের ব্যবধানে আইসিসির দুটি সহযোগী সদস্যদেশের কাছে হারার পর বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে এখন এই বিশ্বাসও ছড়িয়ে পড়েছে যে বাংলাদেশ যেকোনো দলের কাছে হারতেও পারে!

তা খেলাধুলায় হারজিত আছেই। বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডকে হারাতে পারলে আয়ারল্যান্ড বা হল্যান্ড কেন হারাতে পারবে না বাংলাদেশকে? অবশ্যই পারবে। বাংলাদেশের কাছে ইংল্যান্ডের হারটা বরং অঘটন, ডাচ-আইরিশদের কাছে বাংলাদেশের হার কোনো অঘটন বা দুর্ঘটনা নয়। এই দলটা যে মাঝেমধ্যে বড় দলের বিপক্ষে জয় পেয়ে যায়, সেটাই বরং বোনাস। হ্যাঁ, হল্যান্ড আইসিসির সহযোগী সদস্য, এর আগে আর কোনো টেস্ট দলকে হারানোর অভিজ্ঞতা তাদের নেই, এই দলের ক্রিকেটাররা কেউ পেশাদার নন—সবকিছু জেনেই বলা হচ্ছে কথাটা। আসলে বাংলাদেশের ক্রিকেট এখন যেভাবে চলছে, তাতে এ রকম পরাজয়ই বেশি থাকা উচিত ‘প্রাপ্তির’ থলেয়। এ নিয়ে দুঃখিত হওয়ার কিছু নেই। তবে হ্যাঁ, লজ্জা পেতেই পারেন।

মাত্র পাঁচ দিনের মধ্যে আয়ারল্যান্ড ও হল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি পরাজয়ে মর্মাহত দেশের ক্রিকেট-প্রিয় মানুষ। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড কর্মকর্তারাও (বিসিবি) নিশ্চয়ই দুঃখের সাগরে ভাসছেন। ক্ষোভে ফুঁসছেন। আজ দল ঢাকা ফেরার পর দেশকে লজ্জায় ডোবানোর ব্যাখ্যা নিশ্চয়ই চাওয়া হবে খেলোয়াড়দের কাছে। দেশের ক্রিকেটের মানসম্মান ধুলোয় মেশানোর ‘অপরাধে’ বোর্ড কর্মকর্তারা তাদের কচুকাটা করবেন, তাতেও কোনো সন্দেহ নেই। এটাই হয়ে আসছে, আরও বহুদিন হয়তো হবে। দল এক-দুটি ম্যাচ জিতলে মিষ্টি খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। আর পরাজয়ে পারলে শূলে চড়ানো হয় ক্রিকেটারদের। সাফল্যে উৎসব-রেণু ছড়িয়ে দিতে হবে সবার মধ্যে, ব্যর্থতায় তীরবিদ্ধ হবেন শুধু খেলোয়াড়েরা—এটাই রীতি এখানে।

প্রশ্নটাও এখানেই—ব্যর্থতার দায় শুধু ক্রিকেটারদের কেন? মাঠের পারফরম্যান্সের জন্য তাদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে। কিন্তু আচরণবিধির কণ্টকজাল ডিঙিয়ে এই দলটারই কোনো খেলোয়াড় যদি ঘাড় বাঁকা করে বলে ওঠেন, ‘ব্যর্থ তো শুধু আমরা নই! এর দায় তোমাদেরও, যারা আমাদের চালাও’, কী জবাব দেবেন বিসিবি কর্তারা? এ দেশের ক্রিকেট, ক্রিকেট বোর্ড আর ক্রিকেট দল যেভাবে চলছে তাতে জোর গলায় সাফল্য চাওয়ার অধিকার কারওই নেই। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের বিসিবি কার্যালয় থেকে পরিচালিত দেশের সার্বিক ক্রিকেটেরই প্রতিচ্ছবি মাঠের অননুমেয় পারফরম্যান্স।

পাকিস্তানের ‘ক্রিকেট কমেডি’ নিয়ে মানুষ হাসাহাসি করে। বাংলাদেশ একটু পেছনের সারিতে বলে সবার চোখে হয়তো ব্যাপারগুলো ধরা পড়ে না, নইলে এ দেশের ক্রিকেটেও ‘কমেডি’ কম হয় না, ‘কমেডিয়ান’ও অনেক। দল নির্বাচন বা টিম ম্যানেজমেন্ট ঠিক করা থেকে শুরু করে বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ, একাডেমি পরিচালনা—কোন কাজটা ঠিকভাবে করতে পারছে আ হ ম মোস্তফা কামালের বোর্ড? নির্বাচকদের তৈরি করা দলে কাটাছেঁড়া আর পরিবর্তন এখন এতটাই নিয়মিত যে, বিসিবিতে কোনো নির্বাচক কমিটি না থাকলেও বোধ হয় চলে। বোর্ড সভাপতি আর দু-চারজন পরিচালক মিলেই তৈরি করে ফেলতে পারেন দল। তা ছাড়া দল নির্বাচন বাংলাদেশে এখন সহজ কাজগুলোর মধ্যে একটি। হাতে তো পর্যাপ্ত খেলোয়াড়ই নেই যে আপনি মাথা খাটিয়ে বাছাবাছি করবেন! বাজে ফর্মের কারণে বাদ পড়া মোহাম্মদ আশরাফুলকে তাই ইংল্যান্ডের বিমানে চাপতে কোথাও ভালো খেলতে হয়নি, একজনের ইনজুরিতেই ফেরার রাস্তা পরিষ্কার।

টিম ম্যানেজমেন্টের অবস্থাও একই। কোচকে না জানিয়েই বদলে যায় কোচিং স্টাফের চেহারা! গত ছয়-সাত মাসে দলে কতজন কোচিং স্টাফ এলেন-গেলেন সেটা সম্ভবত ঠিকভাবে মনে করতে পারবেন না অদল-বদলের কাজটা যাঁরা করেন তাঁরাও। ভাবলে বিস্মিত হতে হয়, নিজেদের মাটিতে বিশ্বকাপের মাত্র সাত মাস আগেও দলের সঙ্গে স্থায়ী কোনো বোলিং বা ফিল্ডিং কোচ নেই! বোর্ডের কর্মচারী-কর্মকর্তা নিয়োগ নিয়েও চলছে যথেচ্ছাচার। এক প্রধান নির্বাহী খুঁজে পেতেই লেগে গেছে আড়াই বছর। যোগ্যতা থাকুক আর না থাকুক, কারও ব্যক্তিগত ফটোগ্রাফার বা কারও বাবুর্চির ভাই হওয়ার সুবাদেও নাকি বিসিবিতে চাকরি পাচ্ছেন অনেকে! আর একাডেমি তো এখনো সুরম্য দালান। তাতে ক্রিকেটের পদধূলি সেভাবে না পড়লেও ঢাকার বাইরের অনেক বোর্ড পরিচালকের মনে ইচ্ছা জাগে বিসিবির সভায় যোগ দিতে এসে রাতটা বিলাসী ভবনেই কাটিয়ে যাওয়ার! আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থা এখনো প্রতিশ্রুতিতেই সীমাবদ্ধ, ঘরোয়া ক্রিকেট চলছে প্রস্তর যুগের কাঠামোতে। বর্তমান বোর্ড সভাপতি বিসিবির দায়িত্ব নেওয়ার পর দেশের ক্রিকেটকে সাফল্যের ভেলায় ভাসানোর স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। বাস্তবতা হলো, তাঁর সময়ে সাফল্যের আনন্দে হাসার চেয়ে বিদ্রূপের হাসিই মানুষ হেসেছে বেশি। ক্রিকেটকে তিনি ভাসাতে পেরেছেন কিনা কে জানে, ডোবার লক্ষণটা পরিষ্কার। আয়ারল্যান্ড আর হল্যান্ডের কাছে দুটি হারই দিচ্ছে সেই ইঙ্গিত।

বহির্বিশ্বের ক্রিকেটের কাছে বাংলাদেশের ক্রিকেটের ভেতরের চিত্রগুলো তুলে ধরেই দেখুন, কেমন হাসিতে লুটোপুটি খায় মানুষ। ‘কমেডি’ বলে কথা! সমস্যা হলো, বাইরের মানুষের কাছে যেটা ‘কমেডি’, বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য সেটাই হয়ে দাঁড়াচ্ছে ‘ট্র্যাজেডি’। ‘কমেডি’র নায়ক হয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে ‘ট্র্যাজেডি’তে পরিণত করার দায় বোর্ড সভাপতিকেই নিতে হবে। পার্শ্বচরিত্র হিসেবে পরিচালনা পর্ষদ সদস্যরা তো থাকছেনই।[/বাংলা]

http://www.prothom-alo.com/detail/date/2010-07-22/news/80711

mafizraju
July 21, 2010, 07:04 PM
I know we like to call for heads and specailly the taklu heads now a days. But at least he has the right to know the coaching staffs being added and replaced on a constant basis from before hand at least to know what capabilities are they going to serve!! Kaler kantha and Prothom alo both brought this issue up.

mafizraju
July 21, 2010, 07:07 PM
Btw we are calling for the taklu heads but what about Shujon. he was our bowling coach for the english tour.... we clearly lost to Ireland and Netherland due to bad bowling. where is the head for this performance???

Murad
July 21, 2010, 08:23 PM
Btw we are calling for the taklu heads but what about Shujon. he was our bowling coach for the english tour.... we clearly lost to Ireland and Netherland due to bad bowling. where is the head for this performance???

Bowling coach for English tour was Joseph Scuderi (http://www.banglacricket.com/alochona/showthread.php?t=33775) from South Australia where Siddons came from. I think he will be with the team till the WC.

Fielding coach is also a foreigner. Forgot his name.

al-Sagar
July 21, 2010, 09:45 PM
From Prothom-Alo
[বাংলা]
‘অঘটন’ নয়


জেমি সিডন্স কি আর জানতেন তাঁর বলা কথাটা বুমেরাং হয়ে বিঁধবে তাঁকেই? ব্রিস্টলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জেতার পর বাংলাদেশ কোচ বলেছিলেন, ‘ক্রিকেটারদের মধ্যে এখন এই বিশ্বাস জন্মাবে যে তারা যেকোনো দলকে হারাতে পারে।’ কিন্তু পাঁচ দিনের ব্যবধানে আইসিসির দুটি সহযোগী সদস্যদেশের কাছে হারার পর বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে এখন এই বিশ্বাসও ছড়িয়ে পড়েছে যে বাংলাদেশ যেকোনো দলের কাছে হারতেও পারে!

তা খেলাধুলায় হারজিত আছেই। বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডকে হারাতে পারলে আয়ারল্যান্ড বা হল্যান্ড কেন হারাতে পারবে না বাংলাদেশকে? অবশ্যই পারবে। বাংলাদেশের কাছে ইংল্যান্ডের হারটা বরং অঘটন, ডাচ-আইরিশদের কাছে বাংলাদেশের হার কোনো অঘটন বা দুর্ঘটনা নয়। এই দলটা যে মাঝেমধ্যে বড় দলের বিপক্ষে জয় পেয়ে যায়, সেটাই বরং বোনাস। হ্যাঁ, হল্যান্ড আইসিসির সহযোগী সদস্য, এর আগে আর কোনো টেস্ট দলকে হারানোর অভিজ্ঞতা তাদের নেই, এই দলের ক্রিকেটাররা কেউ পেশাদার নন—সবকিছু জেনেই বলা হচ্ছে কথাটা। আসলে বাংলাদেশের ক্রিকেট এখন যেভাবে চলছে, তাতে এ রকম পরাজয়ই বেশি থাকা উচিত ‘প্রাপ্তির’ থলেয়। এ নিয়ে দুঃখিত হওয়ার কিছু নেই। তবে হ্যাঁ, লজ্জা পেতেই পারেন।

মাত্র পাঁচ দিনের মধ্যে আয়ারল্যান্ড ও হল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি পরাজয়ে মর্মাহত দেশের ক্রিকেট-প্রিয় মানুষ। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড কর্মকর্তারাও (বিসিবি) নিশ্চয়ই দুঃখের সাগরে ভাসছেন। ক্ষোভে ফুঁসছেন। আজ দল ঢাকা ফেরার পর দেশকে লজ্জায় ডোবানোর ব্যাখ্যা নিশ্চয়ই চাওয়া হবে খেলোয়াড়দের কাছে। দেশের ক্রিকেটের মানসম্মান ধুলোয় মেশানোর ‘অপরাধে’ বোর্ড কর্মকর্তারা তাদের কচুকাটা করবেন, তাতেও কোনো সন্দেহ নেই। এটাই হয়ে আসছে, আরও বহুদিন হয়তো হবে। দল এক-দুটি ম্যাচ জিতলে মিষ্টি খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। আর পরাজয়ে পারলে শূলে চড়ানো হয় ক্রিকেটারদের। সাফল্যে উৎসব-রেণু ছড়িয়ে দিতে হবে সবার মধ্যে, ব্যর্থতায় তীরবিদ্ধ হবেন শুধু খেলোয়াড়েরা—এটাই রীতি এখানে।

প্রশ্নটাও এখানেই—ব্যর্থতার দায় শুধু ক্রিকেটারদের কেন? মাঠের পারফরম্যান্সের জন্য তাদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে। কিন্তু আচরণবিধির কণ্টকজাল ডিঙিয়ে এই দলটারই কোনো খেলোয়াড় যদি ঘাড় বাঁকা করে বলে ওঠেন, ‘ব্যর্থ তো শুধু আমরা নই! এর দায় তোমাদেরও, যারা আমাদের চালাও’, কী জবাব দেবেন বিসিবি কর্তারা? এ দেশের ক্রিকেট, ক্রিকেট বোর্ড আর ক্রিকেট দল যেভাবে চলছে তাতে জোর গলায় সাফল্য চাওয়ার অধিকার কারওই নেই। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের বিসিবি কার্যালয় থেকে পরিচালিত দেশের সার্বিক ক্রিকেটেরই প্রতিচ্ছবি মাঠের অননুমেয় পারফরম্যান্স।

পাকিস্তানের ‘ক্রিকেট কমেডি’ নিয়ে মানুষ হাসাহাসি করে। বাংলাদেশ একটু পেছনের সারিতে বলে সবার চোখে হয়তো ব্যাপারগুলো ধরা পড়ে না, নইলে এ দেশের ক্রিকেটেও ‘কমেডি’ কম হয় না, ‘কমেডিয়ান’ও অনেক। দল নির্বাচন বা টিম ম্যানেজমেন্ট ঠিক করা থেকে শুরু করে বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ, একাডেমি পরিচালনা—কোন কাজটা ঠিকভাবে করতে পারছে আ হ ম মোস্তফা কামালের বোর্ড? নির্বাচকদের তৈরি করা দলে কাটাছেঁড়া আর পরিবর্তন এখন এতটাই নিয়মিত যে, বিসিবিতে কোনো নির্বাচক কমিটি না থাকলেও বোধ হয় চলে। বোর্ড সভাপতি আর দু-চারজন পরিচালক মিলেই তৈরি করে ফেলতে পারেন দল। তা ছাড়া দল নির্বাচন বাংলাদেশে এখন সহজ কাজগুলোর মধ্যে একটি। হাতে তো পর্যাপ্ত খেলোয়াড়ই নেই যে আপনি মাথা খাটিয়ে বাছাবাছি করবেন! বাজে ফর্মের কারণে বাদ পড়া মোহাম্মদ আশরাফুলকে তাই ইংল্যান্ডের বিমানে চাপতে কোথাও ভালো খেলতে হয়নি, একজনের ইনজুরিতেই ফেরার রাস্তা পরিষ্কার।

টিম ম্যানেজমেন্টের অবস্থাও একই। কোচকে না জানিয়েই বদলে যায় কোচিং স্টাফের চেহারা! গত ছয়-সাত মাসে দলে কতজন কোচিং স্টাফ এলেন-গেলেন সেটা সম্ভবত ঠিকভাবে মনে করতে পারবেন না অদল-বদলের কাজটা যাঁরা করেন তাঁরাও। ভাবলে বিস্মিত হতে হয়, নিজেদের মাটিতে বিশ্বকাপের মাত্র সাত মাস আগেও দলের সঙ্গে স্থায়ী কোনো বোলিং বা ফিল্ডিং কোচ নেই! বোর্ডের কর্মচারী-কর্মকর্তা নিয়োগ নিয়েও চলছে যথেচ্ছাচার। এক প্রধান নির্বাহী খুঁজে পেতেই লেগে গেছে আড়াই বছর। যোগ্যতা থাকুক আর না থাকুক, কারও ব্যক্তিগত ফটোগ্রাফার বা কারও বাবুর্চির ভাই হওয়ার সুবাদেও নাকি বিসিবিতে চাকরি পাচ্ছেন অনেকে! আর একাডেমি তো এখনো সুরম্য দালান। তাতে ক্রিকেটের পদধূলি সেভাবে না পড়লেও ঢাকার বাইরের অনেক বোর্ড পরিচালকের মনে ইচ্ছা জাগে বিসিবির সভায় যোগ দিতে এসে রাতটা বিলাসী ভবনেই কাটিয়ে যাওয়ার! আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থা এখনো প্রতিশ্রুতিতেই সীমাবদ্ধ, ঘরোয়া ক্রিকেট চলছে প্রস্তর যুগের কাঠামোতে। বর্তমান বোর্ড সভাপতি বিসিবির দায়িত্ব নেওয়ার পর দেশের ক্রিকেটকে সাফল্যের ভেলায় ভাসানোর স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। বাস্তবতা হলো, তাঁর সময়ে সাফল্যের আনন্দে হাসার চেয়ে বিদ্রূপের হাসিই মানুষ হেসেছে বেশি। ক্রিকেটকে তিনি ভাসাতে পেরেছেন কিনা কে জানে, ডোবার লক্ষণটা পরিষ্কার। আয়ারল্যান্ড আর হল্যান্ডের কাছে দুটি হারই দিচ্ছে সেই ইঙ্গিত।

বহির্বিশ্বের ক্রিকেটের কাছে বাংলাদেশের ক্রিকেটের ভেতরের চিত্রগুলো তুলে ধরেই দেখুন, কেমন হাসিতে লুটোপুটি খায় মানুষ। ‘কমেডি’ বলে কথা! সমস্যা হলো, বাইরের মানুষের কাছে যেটা ‘কমেডি’, বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য সেটাই হয়ে দাঁড়াচ্ছে ‘ট্র্যাজেডি’। ‘কমেডি’র নায়ক হয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে ‘ট্র্যাজেডি’তে পরিণত করার দায় বোর্ড সভাপতিকেই নিতে হবে। পার্শ্বচরিত্র হিসেবে পরিচালনা পর্ষদ সদস্যরা তো থাকছেনই।[/বাংলা]

http://www.prothom-alo.com/detail/date/2010-07-22/news/80711

that is a true picture of whats going under the scenes ....

that shows every single person involved in every step of BD cricket has to share the blame of our current situation.

havent we seen players retiring in pak cricket due to clash with board, we already seen one in BD. i sense we may see some more in future from BD players the way the BCB is shaping up.

we always laugh at PCB and their players when they retire. but soon our BCB will catchup and our players too.

BanArafath
July 21, 2010, 10:00 PM
‘কমেডি’র নায়ক হয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে ‘ট্র্যাজেডি’তে পরিণত করার দায় বোর্ড সভাপতিকেই নিতে হবে। পার্শ্বচরিত্র হিসেবে পরিচালনা পর্ষদ সদস্যরা তো থাকছেনই।

Lotas Kamal is useless and he is destroying Bangladesh cricket.

One World
July 21, 2010, 10:18 PM
From Prothom-Alo
[
http://www.prothom-alo.com/detail/date/2010-07-22/news/80711

Garbage, no direct reporting or straight cut statement of the corruption incidences, based on counter questioning the validity but unable to verify. A stunt write up which may sound like a wake up call but really useless, lacks any direction or lead.

Sohel
July 21, 2010, 10:42 PM
Ei Nizamuddin re ami dui chokkhe dekhte pari na. Naamer aagey etogula title marar ki ache?

Complex + Unmitigated Khyatami. I wonder if he owns a red car to go with all that "wit".

MatinSux
July 21, 2010, 10:59 PM
Title mare beshi. BD still stuck in the 70's. Architect kono ekta title hoilo? Aar Prof. maneito Dr.

view360
July 22, 2010, 12:08 AM
There are countless wake up call in Bangladesh for nearly everything under the sun. Wake up call for this and wake up call for that. People just get annoyed by too many wake up calls and continue their sleep.

view360
July 22, 2010, 12:11 AM
i agree.
Too many titles. Just dr. Nizamuddin or prof. Nizamudding would have been fine.

এইসব টাইটেল না থাকলে ঊনি বিয়া করতেন কেমনে ?

Shayaan
July 22, 2010, 02:52 AM
The other day the BCB president was hosting a press meet at Hotel Sonargaon after he was elected ACC president. In the question and answer session, a senior journalist asked him about the bowling coach. Everybody was stunned when he said if any of the journalists can take the job. He was not joking at all. Such a comedian is now the custodian of Bangladesh cricket. Immediately after saying it, he singled out Shamim Chowdhury of Daily Inqilab (the only journalist he perhaps knows by name) for the job. His favourite journalist once was surprised to see the turn in the pace bowling of Nazmul Hossain (read Inqilab Nov 4, 2009). It can sum up the cricket sense of Kamal and the people surrounded him.

mafizraju
July 22, 2010, 06:24 AM
Bowling coach for English tour was Joseph Scuderi (http://www.banglacricket.com/alochona/showthread.php?t=33775) from South Australia where Siddons came from. I think he will be with the team till the WC.

Fielding coach is also a foreigner. Forgot his name.

Joseph was appointed as a consultant not a fulltime bowling coach and that was only for the English tour. Sujon acted as the bowling coach.

The prothom alo and kaler kantha both mention that Bangladesh team doesnot have a permanent bowling coach yet or a fielding coach. I thought salahuddin went with the team as a fielding coach, now I see that he was not appointed for ODIs. BCB quitely kicked him out after he was sacked and then put back in as ad hoc basis.

Now thats a Shame!

BANFAN
July 22, 2010, 07:55 AM
Ei Nizamuddin re ami dui chokkhe dekhte pari na. Naamer aagey etogula title marar ki ache?

Ami bhodro lokke chini. He is a nice gentleman and a man of good taste. I think this has been done by the newspaper make his article look better/authentic/credible. But you are right it was so crude and unsmart. I don't believe this man would do it himself. Bangladeshe a news mediar beshir bhag loke e kheyt. Only a couple of lead personalities in a news paper runs the show. I guess the chief editor was too busy in something else. ;)

Ananna
July 22, 2010, 08:19 AM
Title mare beshi. BD still stuck in the 70's. Architect kono ekta title hoilo? Aar Prof. maneito Dr.

In Bangadesh, not necessarily true.
In developed nations, you must have a phd to be a professor. But in BD, thats not the case. I know a few who are professors, but they dont have phd.

Ananna
July 22, 2010, 08:25 AM
Ami bhodro lokke chini. He is a nice gentleman and a man of good taste. I think this has been done by the newspaper make his article look better/authentic/credible. But you are right it was so crude and unsmart. I don't believe this man would do it himself. Bangladeshe a news mediar beshir bhag loke e kheyt. Only a couple of lead personalities in a news paper runs the show. I guess the chief editor was too busy in something else. ;)

I also know this gentleman. He is very enthusiastic about cricket. Infact, 15/20 years ago he used to play for Architechture department in BUET inter department cricket (he was an asst prof or may be prof then).
I'm not sure who added this may titles with his name, the author or the editior?

shuziburo
July 22, 2010, 01:10 PM
Ei Nizamuddin re ami dui chokkhe dekhte pari na. Naamer aagey etogula title marar ki ache?

Unfortunately, that is the Bangladesh way, as I have found out personally. If you are a professor and have a ph.d., they will write your name starting with Prof. Dr. Nizamuddin may or may not have anything to do with it.

shuziburo
July 22, 2010, 01:22 PM
I think that we need to write some "open letters" to the PM. Although I don't have a lot of confidence on our politicians, but I think even she would be upset by two losses in three matches against minnows.

The letters should go directly to the PM office, so that "Mr." Kamal cannot filter the views or add his own commentary. They should be personal letters, personal emails, official letters, may be even letters from BC. In addition, this article can be sent. We should also sent this one: http://www.cricketeurope4.net/DATABASE/ARTICLES3/articles/000041/004186.shtml. I have a feeling that the PM will lose all respect for the BCB and Kamal "Saheb," even if he is from her party.

Let the campaign begin so that the PM can ask for mass resignation of BCB and the coaches. The letter writing campaign should not stop until that happens.