PDA

View Full Version : How Cruel humans are !


Naimul_Hd
May 5, 2011, 06:57 AM
Gang profits from maimed child beggars (http://thecnnfreedomproject.blogs.cnn.com/2011/05/04/gang-profits-from-maimed-child-beggars/)

Dhaka, Bangladesh (CNN) – Deep scars crisscross the frail body of a seven-year-old boy at the center of a criminal case that investigators say exposes “pure evil.” His father pulled the boy’s pants down, wanting to show the injuries that fill him with rage and anguish. His son’s penis had nearly been cut off .

“They beat me. They said they would make me beg. They would kill me,” the boy said. “I threatened to tell my father and police on them. They cut my throat, they cut my belly, they cut my penis.”

They also bashed his skull with a brick. Investigators say members of a criminal gang were trying to force the boy to become a beggar on the streets of Dhaka, Bangladesh’s capital. The boy was slashed many times, his healed wounds now forming a large cross in scar tissue across a section of his chest and from his throat to his pelvis. Investigators with Bangladesh’s elite police force, the Rapid Action Battalion, say the gang members were trying to kill him because he refused to beg and would be able to identify them to the police.

But he survived, and he and his family have been placed in a witness protection program. The boy is now the star witness in a case that has exposed a criminal gang that, according to investigators, has snatched children off the streets, maimed them and sent them out to beg for money. It is a case depicted in the Oscar-winning movie “Slumdog Millionaire,” in which a child is kidnapped and blinded in order to increase sympathy from the public and bring money to gangs. Pity pays.

The boy’s father says it all began with an argument he had with a neighborhood tea seller over an unpaid bill. Investigators say the tea seller turned out to be a member of a neighborhood gang who then retaliated against the family. One of their children went missing. “I was crying loudly and calling his name. Suddenly I heard him calling ‘mama,’” his mother recalled. “His hands and feet were tied. I could hardly recognize him because he was so stained with blood.” His father fainted when he saw the boy’s injuries. But when the man went to file a complaint at the neighborhood police department, police refused to file charges, saying it was a neighborhood dispute.

Incensed, the father eventually found a human rights advocate and attorney, Alena Khan, who went to the hospital to see the boy and helped the family file a legal case.“We have heard that some people involved are politicians. Even some journalists are involved. So we think it is a very dangerous situation. Even I myself have gotten threats twice," Khan said. "They are terrorists because this is not a small group.”

The petition led the court to order a full investigation by the elite police force and Rapid Action Battalion. Within weeks of the boy’s identification of the five men who allegedly tortured him, they were arrested, and two suspects confessed in front of TV cameras at a police news conference. “Sometimes they kidnap the children and hold them captive for many days. After that they cut different body parts to prepare them for begging,” explained Mohammad Sohail, head of the media wing of the Rapid Action Battalion. The children are fed very little food and water, are hidden in large vessels for months and suffer from nutrition deficiency, he added.

The gang has also killed children and thrown their bodies into the river, Sohail said.“This type of crime really touched the hearts of the people, including the law enforcement agencies. So our stand is very, very hard against this mafia group,” Sohail told CNN. Human rights activist Khan says the 2010 case may well be the first case of its kind to expose a criminal gang for forcing children to beg. The Bangladeshi government says the boy’s case is not a “general phenomenon” and that it is seriously looking into the case and others. The government said offenders will be punished.

It has since passed a law that would impose a jail sentence of up to three years on anyone caught forcing another person to beg. The government has also banned begging in Bangladesh, but human rights advocates complain that enforcement is lax.
Beggars can be seen on the streets, including crippled children roaming the intersections and walking between cars asking for money.

As for the boy who refused the gang’s orders and paid a terrible price, he is scared for his life but when asked how his tormentors should pay for their crimes, he speaks like a hardened police officer. “I want them hanged, I want them hanged, I demand they be hanged.”

Video:
http://cnn.com/video/?/video/world/2011/05/02/cfp.sidner.begging.boy.cnn

Source (http://thecnnfreedomproject.blogs.cnn.com/2011/05/04/gang-profits-from-maimed-child-beggars/?hpt=C1)

If possible read people's comments too.

Sovik
May 5, 2011, 09:09 AM
Hope those ******************************************* get what they deserve, in this life and the next

roman
May 5, 2011, 10:30 AM
Aaaah...Your title is wrong Naimul vai..They are not humans. They are ...

bujhee kom
May 5, 2011, 03:18 PM
We have got to get to the bottom of this...find all involved with child mutalation and forced begging Mafia industry and execute them all immediate.! If the law enforcement of Bangladesh cannot protect it's youngest of the citizen, if a government cannot do sh!t for the youngest of littlemost of the society, paint some white chun on your face, step down!!

The people of Bangladesh have to be vigilante, the time has come, it is time to stand up to these heart-less, soul-less thugs and deduct them, take them out of the society.

lamisa
May 7, 2011, 10:19 AM
i teach at this place which aims to keep children off the streets. it's like a boarding school. some of the stories that i get to hear are just so sad. girls who are not even 10 years old get sexually harassed by old, married men.

munnabhai
May 8, 2011, 06:06 AM
Bangladesh is not a safe place.

Naimul_Hd
May 8, 2011, 07:52 AM
This world is not a safe place anymore !

Nadim
May 8, 2011, 08:00 AM
Aaaah...Your title is wrong Naimul vai..They are not humans. They are ...

... janowar
<br />Posted via BC Mobile Edition (Android)

Haru-party
May 8, 2011, 02:22 PM
nothing new. we all just create a storm in the net and then forget it in the 2nd minute. have u ever spent a fakin $ for those unfortunate children. ekta valo chakri ekta shundori bou besh tarpor barir baranday boshe cha khabo ar politiciander choddoghusti uddhar korbo. beta eto gaye lagle nije kisu kor desher jonno. ederke janowar biolar age nijeke ekbar prosno kori ami kototuku dayi. ami je tax faki dissi shorkarke faki diye shetaro provab ase er pichone. leagal way-te taka na pathaye hundir maddhome taka pathai shetaro provab ase er pichone. shorkari bank-a taka na raikhe private bank-a rakhbo. deshi jinish na kine indian jinish kinbo. ghore boshe nijer kajer meyere saradin khatai tarpor ektu tv dekhte chaile gale chor mari abar onnoke boli janowar. ekta simple file er jonno ghush khawar shomoy nitikotha mone thake na, rogir golakatar shomoy nitikotha mone thake na, poth ghat banaite 2 no. jinish meshanor shomoy nitikotha mone thakena, khabare vejal mishanor shomoy mache formalin mishanor shomoy nitikotha mone thake na, alu mojud kore dam baraye manusher pocket katar shomoy nitikotha mone thake na, joutuker jonno boure pitay maire felar shomoy nitikotha mone thakena, kothay kothay bura make dhomkanor shomoy nitkotha mone thakena, vai hoye vaire thokanor shomoy nitkotha mone thake na, khali khoborer kagoje kisu porle bangalir noitikotha togbogaye fute uthe........thuh.

p.s my post was not directed to someone and um not sayin i'ma saint

bujhee kom
May 8, 2011, 03:42 PM
nothing new. we all just create a storm in the net and then forget it in the 2nd minute. have u ever spent a fakin $ for those unfortunate children. ekta valo chakri ekta shundori bou besh tarpor barir baranday boshe cha khabo ar politiciander choddoghusti uddhar korbo. beta eto gaye lagle nije kisu kor desher jonno. ederke janowar biolar age nijeke ekbar prosno kori ami kototuku dayi. ami je tax faki dissi shorkarke faki diye shetaro provab ase er pichone. leagal way-te taka na pathaye hundir maddhome taka pathai shetaro provab ase er pichone. shorkari bank-a taka na raikhe private bank-a rakhbo. deshi jinish na kine indian jinish kinbo. ghore boshe nijer kajer meyere saradin khatai tarpor ektu tv dekhte chaile gale chor mari abar onnoke boli janowar. ekta simple file er jonno ghush khawar shomoy nitikotha mone thake na, rogir golakatar shomoy nitikotha mone thake na, poth ghat banaite 2 no. jinish meshanor shomoy nitikotha mone thakena, khabare vejal mishanor shomoy mache formalin mishanor shomoy nitikotha mone thake na, alu mojud kore dam baraye manusher pocket katar shomoy nitikotha mone thake na, joutuker jonno boure pitay maire felar shomoy nitikotha mone thakena, kothay kothay bura make dhomkanor shomoy nitkotha mone thakena, vai hoye vaire thokanor shomoy nitkotha mone thake na, khali khoborer kagoje kisu porle bangalir noitikotha togbogaye fute uthe........thuh .

p.s my post was not directed to someone and um not sayin i'ma saint

Haru bhai, apni pura amar mukhosh unmukto korey charlen aaj....! Naah thik bolechen haru bhai amra shobai dai er jonno! Top post dear Haru bhai!

Naimul_Hd
August 8, 2011, 12:54 AM
Did not want to open a new thread. I am tired of reading these kind of news. Seems like its a new trend to kill suspects in day light in front of Police. Adim juger borborota keo har manacchi amra !!! :(

[বাংলা]এ কোন পুলিশ, এ কেমন পৈশাচিকতা! (http://www.prothom-alo.com/detail/date/2011-08-08/news/176504)

নোয়াখালী অফিস | তারিখ: ০৮-০৮-২০১১

‘মারি হালা। মারি হালা। পুলিশ কইছে মারি হালাইবার লাই। তোরা মারছ্ না কা? (মেরে ফেল। মেরে ফেল। পুলিশ বলেছে মেরে ফেলার জন্য। মারিস না কেন?)’

লোকজনের জটলা থেকে কেউ একজন এভাবে বলছেন, আর কিছু লোক কিশোর মিলনকে রাস্তার ওপর ফেলে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি ও লাথি মারছে। একজন লাঠি দিয়ে এলোপাথাড়ি পেটাচ্ছে। একপর্যায়ে এক যুবক ইট দিয়ে তার মাথায় আঘাত করে। মিলনের মৃত্যু নিশ্চিত হলে পুলিশ তার লাশ গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়।

গত ২৭ জুলাই সকালে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ঘটে এই অকল্পনীয় ঘটনা। ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, ১৬ বছরের কিশোরটিকে পুলিশের গাড়ি থেকে একজন নামিয়ে জনতার হাতে ছেড়ে দিচ্ছে। তারপর শুরু হয় কথিত গণপিটুনি। অবিশ্বাস্য এই হত্যাকাণ্ড ঘটে পুলিশের উপস্থিতিতে।

কোম্পানীগঞ্জে ওই দিন ডাকাত সন্দেহে পৃথক স্থানে ছয়জনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয় বলে পুলিশ দাবি করেছিল। এর মধ্যে টেকেরবাজার মোড়ে মারা হয় তিনজনকে। তাঁদেরই একজন এই কিশোর শামছুদ্দিন মিলন। মিলনকে মারা হয় সকাল সাড়ে ১০টার দিকে। আর বাকি দুজনকে মারা হয়েছিল ভোরবেলায়।

মিলনকে হত্যার অভিযোগ এনে তার মা বাদী হয়ে আদালতে মামলা করেছেন। এ ঘটনায় ‘দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে’ গত শনিবার রাতে কোম্পানীগঞ্জ থানার তিনজন পুলিশ সদস্যকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। তাঁরা হলেন: উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আকরাম শেখ, কনস্টেবল আবদুর রহিম ও হেমারঞ্জন চাকমা।
মিলন কোম্পানীগঞ্জের চরফকিরা গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে। সে দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করেছে, তবে এসএসসি দেয়নি। সে চট্টগ্রামে একটি কোম্পানিতে কাজ করে। কয়েক দিন আগে সে বাড়ি এসেছিল। চার ভাইয়ের মধ্যে মিলন সবার বড়। তার বাবা বিদেশে থাকেন।

মিলনকে পুলিশের গাড়ি থেকে নামানো, পিটিয়ে হত্যা এবং লাশ পুলিশের গাড়িতে তুলে নিয়ে যাওয়া পর্যন্ত পুরো ঘটনার ভিডিও চিত্র এখন কোম্পানীগঞ্জের বিভিন্নজনের মুঠোফোনে পাওয়া যায়। বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সময় গতকাল এর ভিডিও চিত্রের উল্লেখযোগ্য অংশ সম্পচারও করেছে।

ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, মারধরের একপর্যায়ে মিলন উঠে দৌড়ে পাশের একটি দোকানে আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু উপস্থিত কেউ তাকে বাঁচাতে ন্যূনতম চেষ্টাও করেনি। এ পর্যায়ে সাদা শার্ট ও কালো প্যান্ট পরা একজন ইট নিয়ে সজোরে আঘাত করেন মিলনের মাথায়। সঙ্গে সঙ্গে রাস্তায় লুটিয়ে পড়ে মিলন। একই লোক ইট দিয়ে এর পরও মিলনের মাথায় একাধিকবার আঘাত করেন। সঙ্গে আরও কয়েকজন এলোপাতাড়ি লাথি মারতে থাকে। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর মিলনের লাশ পুলিশ গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। পুরো ঘটনার সময় পুলিশের সদস্যরা গাড়ি নিয়ে উপস্থিত ছিলেন।

মিলনের মা কোহিনুর বেগম তাঁর ছেলেকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ এনে গত বুধবার আদালতে মামলা করেছেন। মামলার আরজিতে মিলনকে আটক করে মারধর এবং পুলিশের হাতে সোপর্দ করা পর্যন্ত স্থানীয় বাসিন্দা মিজানুর রহমান ওরফে মানিক ও চরকাঁকড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য জামাল উদ্দিন সম্পৃক্ত ছিলেন বলে অভিযোগ করা হয়।

কোহিনুর বেগম উল্লেখ করেন, গত ২৭ জুলাই সকালে মিলন জমি নিবন্ধনের কাজের জন্য বাড়ি থেকে ১৪ হাজার টাকা নিয়ে উপজেলা সদরের দিকে যায়। পথে সে চরকাঁকড়া বেপারী উচ্চবিদ্যালয়ে পড়ুয়া দূর-সম্পর্কের এক খালাতো বোনের সঙ্গে কথা বলতে বিদ্যালয়ের মসজিদের পুকুরঘাটে বসে অপেক্ষা করছিল। এ সময় মানিক নামের স্থানীয় একজন মিলনকে সেখানে বসে থাকার কারণ জানতে চান।

একপর্যায়ে সেখানে আসেন স্থানীয় ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিন। তিনিও মিলনকে সেখানে বসে থাকার কারণ জানতে চান। কারণ জানালে জামাল উদ্দিন ওই মেয়েটিকে বিদ্যালয় থেকে ডেকে এনে মিলনের পরিচয় নিশ্চিত হন। কিন্তু এরপর মানিক ও জামালসহ উপস্থিত লোকজন মিলনকে চড়-থাপড় দিয়ে তার সঙ্গে থাকা নগদ টাকা ও মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয় এবং মিলনকে পুলিশে সোপর্দ করে।

কোহিনুর বেগমের অভিযোগ, পুলিশ আহতাবস্থায় মিলনকে হাসপাতাল বা থানায় না নিয়ে টেকেরবাজার এলাকার তিন রাস্তার মোড়ে নিয়ে যায়। সেখানে স্থানীয় লোকজন মিলনকে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে পুলিশ সেখান থেকে মিলনের লাশ থানায় নিয়ে যায়।

যোগাযোগ করা হলে ইউপি সদস্য জামাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘লোকজন ডাকাত সন্দেহে ছেলেটিকে মারধর শুরু করে। আমি তাকে উদ্ধার করে সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি। ওই ছেলে নিজেই হেঁটে পুলিশের গাড়িতে উঠেছে। এরপর শুনেছি, তিন রাস্তার মোড়ে লোকজন পুলিশের কাছ থেকে ছেলেটিকে নিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে জামাল বলেন, ‘আমরা তার কাছে যা কিছু পেয়েছি, তা দারোগা আকরামকে দিয়েছি। আমরা তো তাকে (মিলন) মেরে ফেলার জন্য পুলিশের হাতে তুলে দেইনি। পুলিশের কাজ তো কাউকে মেরে ফেলা না। কিন্তু তারা যদি কাউকে মৃত্যুর মুখে ফেলে দেয়, তাহলে কার কী করার আছে।’

পারিবারিক সূত্র জানায়, ওই সময় মিলন কিছু লোক তাকে আটক করেছে বলে মোবাইল ফোনে মাকে জানায়। তার মা মিলনের এক চাচাকে নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে জানতে পারেন তাকে পুলিশে দেওয়া হয়েছে। কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিক উল্লাহ গতকাল সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে জানান, মিলনকে ডাকাত সন্দেহেই লোকজন পিটিয়ে মেরেছে। তিনি বলেন, আদালতে করা তার মায়ের মামলার কপি এখনো থানায় আসেনি।
নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) হারুন-উর-রশিদ হাযারী গতকাল রোববার দুপুরে জানান, এ ঘটনায় দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে তিন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব রশীদকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামীকাল মঙ্গলবারের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এসপি হারুন-উর-রশিদ হাযারী গতকাল মিলনকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। চরফকিরায় মিলনের বাড়িতে গিয়ে তার পরিবারের সদস্য এবং ওই স্কুলছাত্রীর সঙ্গেও কথা বলেন। পরে এসপি হারুন প্রথম আলোকে বলেন, ‘মিলন অপরাধী কি না, তা এই মুহূর্তে বলা যাবে না। আমরা সব বিষয় খতিয়ে দেখছি।’
স্থানীয় লোকজন জানান, গতকাল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনের সময় স্থানীয়ভাবে অপরিচিত কয়েকজন ব্যক্তি মিলনকে নানাভাবে ডাকাত হিসেবে চিহ্নিত করতে তৎপর ছিল।
[/বাংলা]

nakedzero
August 8, 2011, 01:01 AM
It deserves a new thread, seriously.

bujhee kom
August 8, 2011, 01:04 AM
I am disgusted at the loss of all humanity!

ahnaf
August 8, 2011, 01:26 AM
Aki dhoroner news shunte shunte tired hoye gechi..:( kisher bichar? Aishobguloke sorasori firing squad diye mara ucit..
<br />Posted via BC Mobile Edition (Opera Mobile)

nakedzero
August 8, 2011, 01:41 AM
Suspend chhara er beshi kichu kora hoyna eder. So kisher tension? Chaliye jao......

Night_wolf
August 8, 2011, 01:58 AM
amader adalotote eder bichar jibone hobena...hasorer moydane allah bichar korben

Naimul_Hd
August 11, 2011, 02:05 AM
[বাংলা]মৃত শিশু আটকে রেখে অর্থ আদায়

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টা। ধানমন্ডির ইবনে সিনা হাসপাতালের চিকিৎসক এস এ আবেদীনের কক্ষে ৫-৬ জন মানুষের উত্তেজিত কণ্ঠস্বর। একজন বলছেন, ছি ডাক্তার আপনি আমার বাচ্চাটিকে এভাবে মেরে ফেললেন! বাচ্চা মারা গেছে দু’দিন আগে- তারপরও আমাদের জানালেন না। মরা বাচ্চাকে শুইয়ে রেখে আপনারা টাকা আদায় করছিলেন। [/বাংলা]

http://mzamin.com/images/stories/f110811b.jpg

Details (http://mzamin.com/index.php?option=com_content&view=article&id=16531%3A2011-08-10-16-33-16&catid=48%3A2010-08-31-09-43-22&Itemid=82)

Cant we do something against these butchers ? disgusting.

nakedzero
August 11, 2011, 02:25 AM
Ishh ALLAH maaaf koro ki jahannamer bhitor asi !!

idrinkh2O
November 11, 2011, 03:41 PM
11 Nov 2011 10:57:43 PM Friday BdST


এসআই-পত্নীর নির্মম নির্যাতনের শিকার শিশু রোমেলা (http://www.banglanews24.com/news.php?nssl=68042)

http://www.banglanews24.com/images/imgAll/2011November/Pabna-Shishu-bg20111111225837.jpg

পাবনা: পুলিশের এক এসআই ও তার স্ত্রীর নির্মম নির্যাতনে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে অসহনীয় যন্ত্রণায় ছটফট করছে গৃহকর্মী কন্যাশিশু রোমেলা খাতুন (৮)।

শিশু রোমেলাকে নির্যাতনের বিষয়ে অভিযোগ গ্রহণ না করায় পাবনার সাঁথিয়া থানার এএসআই আইয়ুব আলীকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

নির্যাতিত শিশুটির পরিবার সূত্র জানায়, পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার কাশিনাথপুর ইউনিয়নের গোটেংরা গ্রামের ইয়াজ উদ্দিনের শিশুকন্যা রোমেলা খাতুনকে ৯ মাস আগে গৃহকর্মী হিসেবে নিয়ে যায় পার্শ্ববর্তী নান্দিয়ারা গ্রামের ছেলে এবং চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহেদ আলী।

সেখানে নিয়ে যাওয়ার পর থেকেই মাত্রারিক্ত দৈনন্দিন কাজের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয় ৮ বছরের ওই শিশু গৃহকর্মীর ওপর। কাজের ক্ষেত্রে সামান্য ভুল হলেই তার ওপর চালানো হয় অসহনীয় নির্যাতন। এরই ধারাবাহিকতায় ঈদের দু’দিন আগে সামান্য একটি কাচের প্লে¬ট ভাঙার অপরাধে শিশুটিকে বেদম নির্যাতন করে এসআই শাহেদের স্ত্রী সুইটি বেগম।

কোরবানির ঈদে এসআই শাহেদ আলী পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার বেড়াকোলা গ্রামে তার শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে এসেছেন জানতে পেরে গত ৯ নভেম্বর রোমেলার পিতা ইয়াজ উদ্দিন সেখানে গিয়ে মেয়েকে আহত অবস্থায় দেখতে পান। অসুস্থ মেয়েকে নিয়ে যেতে চাইলে এসআই শাহেদ প্রথমে বাধা দেন। একপর্যায়ে আত্মীয়দের চাপে এসআই শাহেদ আলী রোমেলাকে তার বাবার হাতে তুলে দিতে বাধ্য হন।

পরে ইয়াজ উদ্দিন তার শিশুকন্যাকে বাড়িতে আনার পর গত বৃহস্পতিবার রাতে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।

শুক্রবার বিকেলে হাসপাতালে আলাপকালে রোমেলার বাবা ইয়াজ উদ্দিন বাংলানিউজকে জানান, আট মাস আগে মেয়েকে ওই দারোগার বাসায় পাঠানোর পর থেকে মেয়ের কোনো খবর তারা পাননি। এ আট মাসে মেয়ের সঙ্গে মোবাইলে তাদের মাত্র একবার কথা হয়েছে। মোবাইল ফোনে মেয়ের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে বলা হতো ‘আপনার মেয়ে ভালো আছে, এখন কথা বলা যাবে না।’

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোমেলা জানায়, নিয়ে যাওয়ার পর প্রথম কিছুদিন কোনো কিছু না বললেও কিছুদিন পর থেকেই তার ওপর নির্যাতন শুরু করা হয়।

সে বলে, ‘দারোগার বউ কথায় কথায় আমাকে খুব মারতো।’

রোমেলা আরও জানায়, প্রায় ১৫ দিন আগে তার হাত থেকে কাচের একটি প্লেট পড়ে ভেঙে গেলে দারোগা শাহেদের স্ত্রী তাকে বেদম মারধর করে। তার সারা শরীরে গরম খুন্তির ছেঁকা দেওয়া হয়। তার সারা শরীর পুড়ে ঘা হয়ে যায়।

পাবনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাইরোজা বেগম বাংলানিউজকে জানান, দীর্ঘদিন ধরে শিশুটির ওপর শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। তার শরীরের ক্ষতচিহ্নগুলোও খুব গভীর। শিশুটি সুস্থ হয়ে গেলেও তার ক্ষত চিহ্ন থেকেই যাবে।

রোমেলার চাচা আজিজল খাঁন অভিযোগ করে বলেন, ‘এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার বিকেলে সাঁথিয়া থানায় অভিযোগ দিতে গেলে কর্তব্যরত এএসআই আইয়ুব আলী অভিযোগ নেননি। যে থানায় ঘটনা সেই থানায় গিয়ে মামলা করার কথা বলে তিনি আমাদের ফিরিয়ে দেন।’

সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জানতে সীতাকুন্ডু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহেদ আলীর সঙ্গে সেলফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রায় ২০ দিন আগে রিকশায় বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে সিএনজির ধাক্কায় রিকশা থেকে পড়ে রোমেলা আহত হয়। এর পাঁচদিন পরে বাসায় কাজ করার সময় শরীরে গরম পানি পড়ে সে আহত হয়।’ রোমেলাকে কোনো আঘাত করার কথা তিনি অস্বীকার করেন।

এদিকে শিশু রোমেলাকে নির্যাতনের ঘটনায় অভিযোগ গ্রহণ না করায় সাঁথিয়া থানার এএসআই আইয়ুব আলীকে পাবনার পুলিশ সুপার শুক্রবার সন্ধ্যায় ক্লোজড করেছেন।

পাবনার পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর হোসেন মাতুব্বর বাংলানিউজকে বলেন, ‘অভিযোগ গ্রহণ না করার দায়ে ওই সময়ের ডিউটি অফিসার এএসআই আইয়ুব আলীকে ক্লোজড করে পাবনা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।’

এ বিষয়ে এএসআই আইয়ুব আলী বাংলানিউজকে বলেন, ‘কোন থানার ঘটনা ও এসআই’র নাম কি অভিযোগকারীরা সেটা বলতে পারেননি। তাদের বলেছিলাম সব জেনে তারপর অভিযোগ নিয়ে আসতে। কিন্তু তারা আসেনি। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে জানতে পারলাম আমাকে ক্লোজড করা হয়েছে।’

সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলুর রশিদ বাংলানিউজকে জানান, শিশু রোমেলাকে নির্যাতনের বিষয়ে অভিযোগ গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে। অভিযোগটি গ্রহণ করে সেটি চট্রগ্রামের সীতাকুন্ডু থানায় পাঠানো হবে এবং ওই থানাতেই মামলা হিসেবে নথিভূক্ত হবে।


বাংলাদেশ সময়: ২২৪৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ১১, ২০১১

simon
November 11, 2011, 04:26 PM
amader deshe ei shoytan manush gulai shob khomota ba boro boro post dokhol kore rakhse. :facepalm:
:mad:

Naimul_Hd
November 12, 2011, 09:16 AM
kichu kichu khetre 'eye for an eye' rules thaka uchit !! ei shob shishu nirjatonkari der ekei rokom nirjaton kore shasti deyar bidhan thaka dorkar. ei shob 3-4 months jail diye plus jorimana diye labh hobe na (jodio keo arrest e hobe na, jana kotha)

Sovik
November 12, 2011, 09:35 AM
Hope those b@$%#¥¢$ get what they deserve, in this life and the next
<br />Posted via BC Mobile Edition (Android)

Sovik
November 12, 2011, 09:36 AM
<br />Posted via BC Mobile Edition (Android)

F6_Turbo
November 12, 2011, 09:40 AM
Ahh abuse of domestic workers, especially those barely into their teens :(

Almost always at the hands of our so called 'sushil shomaj'.

We judge the worth of people by power and influence in this country, the more you have, the more you are respected.

So who is lower on that scale than the helpless and hapless domestic help?

lamisa
November 12, 2011, 11:23 AM
amader bashay upor talay erokom ek dojjal mohila thake. nijer chokhe marte dekhi nai kitu ei fridayte i heard the girl who works at their place wailing away for hours, non stop. ei mohilake ami er por lift e ba sheereete peye ni....itor kothakar!

simon
November 12, 2011, 12:26 PM
amader bashay upor talay erokom ek dojjal mohila thake. nijer chokhe marte dekhi nai kitu ei fridayte i heard the girl who works at their place wailing away for hours, non stop. ei mohilake ami er por lift e ba sheereete peye ni....itor kothakar!

ain nijer haate tule nawa thik hobena,
but as neighbours yr parents could hv a hard talk with the dojjal lady,if continues then police ke complain kora jete pare.
But Shamajik bhabey rukhey darano ta beshi important.

NoName
November 12, 2011, 09:02 PM
I like what Iran does to people that use acid as weapons..