PDA

View Full Version : আইসিসি ট্রফি নিয়ে ধূম্রজাল


Naimul_Hd
March 20, 2013, 03:05 AM
http://paimages.prothom-alo.com/resize/maxDim/340x1000/img/uploads/media/2013/03/19/2013-03-19-19-19-40-5148ba4c3b54c-untitled-3.jpg

[বাংলা]কোথাও নেই ট্রফিটা। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের ছোট হয়ে আসা বিসিবির কার্যালয়ের শো-কেসে নেই। নেই মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের মূল কার্যালয়ের প্রবেশপথে সাজিয়ে রাখা ট্রফিগুলোর সঙ্গেও। স্টোর রুমে ধুলোয় মলিন যে দু-তিনটা ট্রফি পড়ে আছে, সেখানেও খুঁজে পাওয়া যায়নি এই ট্রফি। বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে মূল্যবান স্মারক ১৯৯৭-এর আইসিসি ট্রফি তাহলে কোথায়? কেউ বলছেন, হারিয়ে গেছে, কেউ বলছেন, বাংলাদেশে নাকি এই ট্রফি আসেইনি!

১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফি জয় বাংলাদেশের ক্রিকেটের অগ্রযাত্রায় বড় এক মাইলফলক। সেমিফাইনালে স্কটল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত করেছিল বাংলাদেশ দল। এরপর কুয়ালালামপুরের কিলাত কেলাব মাঠের ফাইনালে কেনিয়াকে হারিয়ে অধিনায়ক আকরাম খান উঁচিয়ে ধরেন আইসিসি ট্রফি। আইসিসি জয়ী দলের খেলোয়াড় এবং সাবেক-বর্তমান বোর্ড কর্মকর্তারা এখন কেবল ট্রফি উঁচিয়ে ধরার ওই ছবিটাই মনে করতে পারেন। পরবর্তীকালে ট্রফিটা কোথায় গেল, সেই স্মৃতি মুছে গেছে সবারই।

২০১১ বিশ্বকাপের আগে বোর্ড কার্যালয়ের শোভাবর্ধনের জন্য অন্যান্য ট্রফির সঙ্গে আইসিসি ট্রফিও প্রদর্শনীতে রাখার পরিকল্পনা হয়। তখনই ধরা পড়ে, ট্রফিটা বিসিবির কোথাও নেই। এরপর গত বছরের ৯ জুলাই ’৯৭-এর আইসিসি-জয়ী দলকে দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আগে আরেকবার খোঁজ পড়ে ট্রফির। পাওয়া যায়নি তখনো। বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের উজ্জ্বলতম তারকাদের উপস্থিতিতে আলো-ঝলমলে ওই অনুষ্ঠানে একমাত্র খুঁত ছিল ট্রফির অনুপস্থিতি।

‘নিখোঁজ’ আইসিসি ট্রফির সন্ধানে নেমে গত কয়েক দিনে কয়েক রকম বক্তব্য পাওয়া গেছে। বিস্ময় সেখানেও। ট্রফি কোথায়, সে প্রশ্ন তো পরে; আইসিসি জয়ের পর বাংলাদেশে আসল ট্রফি এসেছিল, নাকি রেপ্লিকা, নাকি আসেনি কোনো ট্রফিই—এর কোনোটারই স্পষ্ট উত্তর দিতে পারছেন না বিসিবির কেউ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ’৯৭-র বোর্ড এবং বর্তমান বোর্ডেও থাকা এক কর্মকর্তা বললেন, ‘ট্রফিটা দলের সঙ্গে এসেছিল কি না মনে নেই। এসব টুর্নামেন্টে তো আসল ট্রফি পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের পর রেখে দেওয়া হয়। জয়ী দলকে পরে রেপ্লিকা দেওয়া হয়।’ আইসিসি রেপ্লিকা দিলে সেটাও থাকা উচিত ছিল বিসিবির কাছে। অথচ মূল ট্রফি বা রেপ্লিকা, কোনোটাই নেই কোথাও। তবে আইসিসি জয়ের একটা স্মারক ট্রফি যে বাংলাদেশে এসেছিল, সেটা নিশ্চিত করে বলেছেন অনেকেই। পরবর্তী সময়ে বিসিবির কার্যালয়ে সাজিয়ে রাখা ওই ট্রফি দেখা দর্শকের সংখ্যাও কম নয়।

আইসিসি ট্রফিজয়ী দলের ম্যানেজার গাজী আশরাফ হোসেন বর্তমানে বিসিবির অস্থায়ী কমিটির সদস্য। বাংলাদেশ দলের সঙ্গে শ্রীলঙ্কা সফরে আছেন তিনি। সেখান থেকেই পরশু টেলিফোনে জানালেন, ‘যত দূর মনে পড়ে, মালয়েশিয়া থেকে দেশে ফেরার সময় আমাদের সঙ্গে ট্রফি ছিল না। তবে পরবর্তী সময়ে একটা ট্রফি এসেছিল...সম্ভবত রেপ্লিকা। ট্রফিটা আমি বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে দেখেছি।’ অস্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য মাহবুবুল আনামও বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে অফিস থাকার সময় ট্রফি দেখেছেন বলে জানিয়েছেন। সাবেক বোর্ড সদস্য রিয়াজ উদ্দিন আল মামুনের স্মৃতি আরেকটু তাজা। টেলিফোনে জানালেন, ২০০১ সালে বিসিবির মূল কার্যালয় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম থেকে গুলশানের নাভানা টাওয়ারে স্থানান্তরিত হওয়ার পরও ট্রফিটা তাঁর চোখে পড়েছে, ‘নাভানা টাওয়ারে অফিস থাকার সময় ট্রফিটা বিসিবিতে ছিল। প্রথমে এটা ছিল বোর্ড সভাপতির রুমে। পরে বোর্ডরুমে নেওয়া হয়।’

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম ও নাভানা টাওয়ারে অনেকে আইসিসি ট্রফি দেখলেও বিসিবির কার্যালয় মিরপুরে আসার পর সেটা দেখেনি কেউ। কারও কারও দাবি, ঘটনাটা ২০১১ সালে নাড়া পড়লেও ২০০৭ সালে গুলশান থেকে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বিসিবির কার্যালয় স্থানান্তরের সময়ই খোয়া গেছে সেটা। ওই সময় জিনিসপত্র আনা-নেওয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিলেন, বিসিবির এমন এক কর্মচারীর ভাষ্য, ‘নাভানা টাওয়ারে আমি নিজে আইসিসি ট্রফি দেখেছি, কিছুদিন আগে ট্রফি খোঁজাখুঁজির সময় বসদেরও বলতে শুনেছি, তাঁরা আগের অফিসে এটা দেখেছেন। এর পরও কীভাবে কী হয়ে গেল, জানি না।’ শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ভেন্যু প্রশাসক আবুল কালাম মোহাম্মদ জাকির নিশ্চিত করেছেন, মিরপুরে আইসিসি ট্রফি দেখেননি তিনিও, ‘২০০৮ সালে আমি দায়িত্ব নেওয়ার সময় আইসিসি ট্রফি ছিল না। অন্য ট্রফিগুলো আমাকে বুঝিয়ে দেওয়া হলেও এটা দেওয়া হয়নি।’

আইসিসি ট্রফির ব্যাপারে জানতে চাইলে বিসিবির ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজামউদ্দিন চৌধুরী দুই রকম কথা বলেছেন। পরশু বললেন, ‘আইসিসি ট্রফি এখন বিসিবিতে নেই। কোথায় আছে, তা-ও বলতে পারছি না। বলব না যে, এটা চুরি হয়ে গেছে। কোথাও নিশ্চয়ই আছে। আমরা ট্রফিটা খুঁজছি।’ কাল বললেন অন্য কথা, ‘শুনেছি, আইসিসি জয়ের পর কোনো ট্রফি বাংলাদেশে আসেনি।’

আইসিসি ট্রফি আদৌ বাংলাদেশে এসেছে কি না, আসলে সেটা কোথায়—এসব প্রশ্নের সন্তোষজনক উত্তর নেই বিসিবির কারও কাছেই। অনেকের মনে সংশয়, ইতিহাসের সাক্ষী এই ট্রফি হয়তো ঢুকে গেছে কারও ‘ব্যক্তিগত সংগ্রহে’র তালিকায়। যেখানেই থাকুক, আইসিসি ট্রফি নিয়ে ধূম্রজাল আবারও চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল, ইতিহাস সংরক্ষণে কতটা উদাসীন বিসিবি। ট্রফি সংরক্ষণের কোনো উদ্যোগ এখনো নেই। আশঙ্কা জাগে, এলোমেলোভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা অন্য ট্রফিগুলোর রাশিচক্রেও হয়তো ‘গুম’ হয়ে যাওয়ার পরিণতিই লেখা আছে।[/বাংলা]

Source: PA (http://www.prothom-alo.com/detail/date/2013-03-20/news/338015)

Naimul_Hd
March 20, 2013, 03:07 AM
I wonder they don't have any video footage of our historic victories too ! Those people are too much concerned about their own business operation and how they can put hands on BCB's earnings. Where's their time for those trophies, huh !

Naimul_Hd
March 20, 2013, 05:45 PM
[বাংলা]Update

আইসিসি ট্রফি

বিসিবির ব্যাখ্যা ও প্রথম আলোর বক্তব্য (http://www.prothom-alo.com/detail/date/2013-03-21/news/338359)

১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফির ব্যাপারে ব্যাখ্যা দিয়েছে বিসিবি। কাল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা দাবি করেছে, ট্রফি নিয়ে কয়েকটি জাতীয় সংবাদমাধ্যমে আসা প্রতিবেদনের কিছু তথ্য ভুল ও ধারণানির্ভর। আসল আইসিসি ট্রফিটি এখন দুবাইয়ে আইসিসির কার্যালয়ে আছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বিসিবির ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, ১৬ বছর আগের টুর্নামেন্ট হওয়ায় বিষয়টা নিয়ে আইসিসিতে তাঁরা খোঁজখবর করে জেনেছেন, ওই সময় ছবি তোলা এবং প্রচারণামূলক কার্যক্রমের জন্য চ্যাম্পিয়ন দলকে কয়েক মাসের জন্য ট্রফিটা দেওয়া হলেও আসল ট্রফি বা রেপ্লিকা একেবারেই দিয়ে দেওয়ার কোনো নিয়ম ছিল না। ১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফিজয়ী দলের খেলোয়াড়-কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে নাকি বোর্ড নিশ্চিত হয়েছে, আসল ট্রফি বা রেপ্লিকা বাংলাদেশে আসেইনি।

প্রতিবেদকের বক্তব্য: বিসিবির ব্যাখ্যায় কোনো সংবাদমাধ্যমের নাম উল্লেখ করা হয়নি। তবে গতকাল প্রথম আলোর খেলার পাতায়ও ‘আইসিসি ট্রফি নিয়ে ধূম্রজাল’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। প্রতিবেদনের কোথায় ‘ভুল’ এবং ‘ধারণানির্ভর’ তথ্য দেওয়া হয়েছে ব্যাখ্যায় সেটি বলা হয়নি।

প্রথম আলোর প্রতিবেদনটি আইসিসি ট্রফিজয়ী দলের খেলোয়াড়-কর্মকর্তা, তৎকালীন ও বর্তমান বোর্ড কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের বক্তব্য নিয়ে করা হয়েছে। তাঁরাই দাবি করেছেন, ’৯৭ সালে বাংলাদেশ দলের জেতা আইসিসি ট্রফি তাঁরা বিভিন্ন সময় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম ও গুলশানের নাভানা টাওয়ারের বিসিবি কার্যালয়ে দেখেছেন। এখন সেটি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

২০১১ বিশ্বকাপ এবং গত বছর আইসিসিজয়ী দলকে দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সময় বিসিবি ট্রফিটি খুঁজেছিল। ট্রফি যদি বাংলাদেশে না-ই আসবে, তবে কেন সেটা খোঁজা হবে? তার মানে বিসিবি জানতই না ট্রফিটি কোথায়। এখানে বিসিবির উদাসীনতাই সবার চোখে প্রকট হয়ে ওঠে। নিজেদের জেতা ট্রফির অবস্থান জানতে শেষ পর্যন্ত আইসিসির দ্বারস্থ হয়ে বিসিবি সেটা প্রমাণও করেছে। দুবার খোঁজ করে ট্রফি না পাওয়ার পরও বিসিবি ট্রফি খোঁজার কোনো উদ্যোগ নেয়নি। টনক নড়েছে সংবাদমাধ্যমে এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর।

[/বাংলা]

Ajfar
March 20, 2013, 06:50 PM
Someone tell them to check Loitta's office in Dubai.

AsifTheManRahman
March 20, 2013, 07:18 PM
ICC Trophy diye ki hobe? World Cup jito bachadhonera, tarpor hobe kotha.
<br />Posted via BC Mobile Edition (Blackberry)

cricket_pagol
March 20, 2013, 09:42 PM
Someone tell them to check Loitta's office in Dubai.

Most likely he is using it as paper weight!

Saifulsohel
March 20, 2013, 10:12 PM
Trophy isn't stolen. http://www.thedailystar.net/beta2/news/icc-trophy-was-never-in-bangladesh-bcb/

Rifat
March 20, 2013, 11:35 PM
ICC Trophy diye ki hobe? World Cup jito bachadhonera, tarpor hobe kotha.
<br />Posted via BC Mobile Edition (Blackberry)

isn't there a T shirt that reads, "2015, ready thaikken bhai"

;)

shuziburo
March 21, 2013, 11:12 AM
Wc 2015?

Tigers_eye
March 22, 2013, 02:54 AM
Jak daily laughter'ta pailam.

Sohel
March 22, 2013, 04:11 AM
Classic example of kutnami and okarone pichhone laga from supposed sports journos still incapable of writing a properly descriptive match report that can help us put the match statistics in context. One needs to investigate the FACTS properly and then report them fairly. Neither thinly veiled backbiting nor unsubstantiated rumor or suspicion mongering contributes to the real credibility of a report.

I think our so called reporters AND everyone else, including us civilians, would do well to revisit some of the Qur'anic verses at the heart of Adab.

"O you who believe, if a wicked person brings any news to you, you shall first investigate, lest you commit injustice towards some people, out of ignorance, then become sorry and remorseful for what you have done." (49:6)

"O you who believe, you shall avoid any suspicion, for even a little bit of suspicion is sinful. You shall not spy on one another, nor shall you backbite one another; this is as abominable as eating the flesh of your dead brother. You certainly abhor this. You shall observe GOD. GOD is Redeemer, Most Merciful." (49:12)

"O you who believe, no people shall ridicule other people, for they may be better than they. Nor shall any women ridicule other women, for they may be better than they. Nor shall you mock one another, or call each other names. Evil indeed is the reversion to wickedness after attaining faith. Anyone who does not repent after this, these are the transgressors." (49:11)

"And the example of the bad word is that of a bad tree chopped at the soil level; it has no roots to keep it firm." (14:26)

"You shall not treat the people with arrogance, nor shall you roam the earth carefree. GOD does not like the arrogant showoffs." (31:18)