View Single Post
  #91  
Old January 9, 2013, 08:56 PM
Eshen's Avatar
Eshen Eshen is offline
Cricket Guru
 
Join Date: August 27, 2007
Posts: 11,257



‘দুটি ডাবল সেঞ্চুরি ভাবতেও পারিনি’

জাতীয় লিগে করেছিলেন ডাবল সেঞ্চুরি। কাল বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে বগুড়ায় দিন শেষে অপরাজিত ২৫১ রানে। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে পঞ্চম উইকেটে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রানের জুটির রেকর্ড গড়ার পর এখন হাতছানি বিশ্ব রেকর্ডের। এই ম্যাচ, দারুণ কাটানো এই মৌসুম ও ভবিষ্যৎ ভাবনা নিয়ে কাল মুঠোফোনে কথা বললেন মার্শাল আইয়ুব
 রেকর্ডের কথা জানেন?
মার্শাল আইয়ুব: বাংলাদেশের রেকর্ডের কথা আগেই জানতাম। আমিই তো ছিলাম ওই রেকর্ডে, আশরাফুল ভাইয়ের সঙ্গে (৪২০)। বিশ্ব রেকর্ডের এত কাছে চলেছি এসেছি জানতাম না। মেহরাব ভাইয়ের কাছ থেকেই শুনলাম।
 মানে, মাঠেই জানতেন রেকর্ড গড়েছেন?
মার্শাল: রেকর্ডটা আমার ছিল, এ জন্যই হয়তো আমার মাথায় আসলে সেভাবে ছিল না। মেহরাব ভাই মনে করিয়ে দিলেন। এর আগে ওনার সঙ্গে আমার একটা জুটি ছিল ৩৭০ রানের মতো। ওটা পার হয়ে যাওয়ার পরই মেহরাব ভাই এসে বলল রেকর্ডটা ভাঙার কথা। এরপর আমরা চেষ্টা করেছি আর কোনো ঝুঁকি না নিতে। এক-এক করে খেলে রেকর্ডটা ভেঙেছি।
 বিশ্ব রেকর্ড, নিজের ট্রিপল সেঞ্চুরি, অনেক কিছুর হাতছানি। চাপ না রোমাঞ্চ, কোনটা বেশি?
মার্শাল: বাংলাদেশের একমাত্র ট্রিপল সেঞ্চুরিয়ান (রকিবুল হাসান) আমাদের দলেই আছে, দলের বাকি সবাইও বলছেন, ‘তিন শ হয়ে যাবে।’ যত যা-ই বলি, চাপ তো কিছু থাকবেই। রোমাঞ্চও আছে। তবে আমি ওসব নিয়ে খুব ভাবছি না। কালকে (আজ) যতক্ষণ পারা যায় ব্যাটিং করার চেষ্টা করব। উইকেট খুবই ভালো, শুধু সকালে ৫-৬ ওভার টিকে থাকতে পারলে সমস্যা হওয়ার কথা নয়। দলের দিক থেকেও কোনো তাড়া নেই।
 মেহরাবের সঙ্গে অনেক বড় বড় জুটি গড়েছেন। এটার রহস্য কী?
মার্শাল: আমাদের দুজনের মধ্যে আসলে অনেক প্রতিদ্বন্দ্বিতা দুজনে পাল্লা দিয়ে রান করি। দুজনেই চাই আরেকজনের চেয়ে বেশি রান করতে। উনিও এবার খুব ভালো ফর্মে আছেন। আমি চারে ব্যাট করি, উনি পাঁচে। এ জন্যই এত জুটি হয়েছে। ব্যাটিং করতে করতেই বোঝাপড়া ভালো হয়ে গেছে।
 ২৫০ করে ফেলেছেন, নিজের কাছে অবিশ্বাস্য লাগছে না?
মার্শাল: ঠিক অবিশ্বাস্য নয়...প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিটার সময় অনেক বেশি রোমাঞ্চিত ছিলাম। দুই শ করার স্বপ্ন ছিল অনেক দিনের। এবারও ভালো লেগেছে, তিন শ করতে পারলে হয়তো আরও বেশি ভালো লাগবে।
 ২০০ করার স্বপ্ন ছিল, এবার এক মৌসুমেই দুটি ডাবল সেঞ্চুরি হয়ে গেল!
মার্শাল: দুটো ডাবল সেঞ্চুরি আসলে ভাবতেও পারিনি। এই মৌসুমটাই খুব ভালো যাচ্ছে। জাতীয় লিগে রান পেয়েছি, এই টুর্নামেন্টটাও ভালো যাচ্ছে।
 গত কয়েক মৌসুমের পারফরম্যান্স বিবেচনা করলে এই মৌসুমে আপনার পারফরম্যান্স তো অবিশ্বাস্য। এভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর রহস্য কী?
মার্শাল: রহস্য কিছু নেই। আগে খুব বেশি শট খেলতাম। এখন শুরুতে গিয়েই শট না খেলে সেট হওয়ার চেষ্টা করি। শট খেলা কমিয়ে দেওয়া শুধু শুরুতেই নয়, পরেও। আগে যত শট পারি, সব খেলার চেষ্টা করতাম। কিন্তু এখন ম্যাচিউরড হয়েছি। বুঝি যে চাইলেও সব শট খেলা যায় না, খেলা ঠিকও নয়।
 ব্যাটিং নিয়ে আলাদা কোনো কাজ করেছেন?
মার্শাল: সেভাবে কিছু নয়। ‘এ’ দলের ক্যাম্পে তিন মাস বাড়তি খেটেছি। অনেকগুলো ড্রিল শিখেছি সে সময়, যেগুলো এখন নিজে নিজেই করি। আমার মনে হয়, ব্যাটিংয়ে আমার মনোযোগটা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। এখন অনেক বেশি ফোকাসড।
 অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ে আপনার সমসাময়িক খেলোয়াড়েরা আজ জাতীয় দলে দাপটে খেলছেন, খেলেছেন। আপনি এখনো সুযোগই পেলেন না....
মার্শাল: খারাপ তো লাগেই, মাঝেমধ্যে খুব কষ্ট লাগে। আমি কখনোই খুব ধারাবাহিক হতে পারিনি। একটা-দুটো বড় ইনিংস হয়তো মাঝেমধ্যে খেলেছি, কিন্তু ধারাবাহিকভাবে বড় ইনিংস ছিল না। এ জন্যই এবার লক্ষ্য ছিল জাতীয় লিগে সর্বোচ্চ রান করা। সেটা হয়েছে। এখানেও ভালো করছি। আশা করছি, সামনে সুযোগ আসবে। দুটি ডাবল সেঞ্চুরি করেছি, নির্বাচকেরা নিশ্চয়ই দেখবেন এটা।
 শেষ প্রশ্ন, আপনার নাম নিয়ে সবারই অনেক কৌতূহল। এমন নামের উৎস কী?
মার্শাল: নামটা রেখেছিলেন আমার দাদু। আমার খুব ছোটবেলাতেই দাদু মারা যান। পরে বাবা-মার কাছে জিজ্ঞেস করেও নির্দিষ্ট কিছু পাইনি। দাদুর ভালো লেগেছে, তাই এই নাম!
Reply With Quote