View Single Post
  #11  
Old August 1, 2011, 12:37 AM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo <---> Dhaka
Posts: 14,846


প্রতিবাদে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে সমাবেশ

লামায় তিনজনকে হত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা

বান্দরবান প্রতিনিধি | তারিখ: ০১-০৮-২০১১

« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»
বান্দরবানের লামায় শিশুসহ একই পরিবারের তিনজনকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছেন আবু মুসা (২৬)। তিনি হত্যাকাণ্ডের বীভৎ স বর্ণনা দেন। তবে কী কারণে তিনি তাঁদের হত্যা করেছেন তা স্বীকার করেননি।
ওই তিনজনের লাশের ময়নাতদন্ত গতকাল বান্দরবান সদর হাসপাতালের মর্গে সম্পন্ন হয়েছে। পরে লাশগুলো সিলেরতুয়াপাড়ার শ্মশানে নিয়ে আসা হলে সেখানে এক হূদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। সেখানে শত শত আদিবাসী-বাঙালি নিহতদের পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান।
ওই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে গতকাল ঢাকা, রাঙামাটি ও বান্দরবানে জনসংহতি সমিতি (জেএসএস), ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ), পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ পৃথক মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে।
গত শনিবার লামা উপজেলা সদর থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে সিলেরতুয়া নাইক্ষ্যংঝিড়ির আগায় জুমঘরে অংসাউ (৭০), তাঁর পুত্রবধূ হ্লামেচিং (৩৬) ও নাতি মংনুচিংকে (৫) দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন আবু মুসা।
পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন, লাশ উদ্ধার করার পর আবু মুসা প্রথমে হত্যার কথা অস্বীকার করেন। পরে ধর্ষণচেষ্টার শিকার কিশোরীকে হাজির করা হয়। কিশোরী আবু মুসাকে শনাক্ত করে। এ সময় জেরা করার একপর্যায়ে আবু মুসা তিনজনকে হত্যার কথা স্বীকার করেন।
পুলিশ সুপার (এসপি) কামরুল আহসান বলেন, আবু মুসা তিনজনকে হত্যার কথা স্বেচ্ছায় স্বীকার করে হত্যাকাণ্ডের বিবরণ দিয়েছেন। মুসা বলেছেন, তিনি কিশোরীকে ধর্ষণ করতে যাননি। মেয়েটিকে হাতে ধরার আগেই তিনি শিশুসহ তিনজনকে হত্যা করেন। পরে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়ার কথা বলে মেয়েটি পালিয়ে যায়।
আবু মুসা আরও স্বীকার করেন, তিনি একটি গাছ কাটার কথা বলে দা খুঁজে নেন। একটি পাথরে দায়ে ধার দিয়ে প্রথমে কিশোরীর ৭০ বছর বয়সী দাদা অংসাউ মারমার গলায় কোপ দেন। এতে তাঁর মাথা শরীর থেকে আলাদা হয়ে যায়। এ সময় কিশোরীর মা ও পাঁচ বছরের ছোট ভাই জুমঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। অংসাউকে হত্যার পর দৌড়ে জুমঘরে গিয়ে কিশোরীর ঘুমন্ত মা হ্লামেচিং মারমার গলায় কোপ দেন। এতে ফিনকি দিয়ে রক্ত বের হয়। গলাকাটা মায়ের নড়াচড়ায় শিশু মংনুচিং জেগে ওঠে। আতঙ্কিত মংনুচিং মায়ের বুক থেকে সরে যাচ্ছিল। এ সময় তার পিঠে দা দিয়ে কোপ দেন আবু মুসা। তাকে দুটি কোপ দিলে শিশুটি লুটিয়ে পড়ে মারা যায়।
এসপি কামরুল আহসান বলেন, কিশোরীকে আলাদাভাবে জিজ্ঞেস করলে সেও তার চোখের সামনে ঘটে যাওয়া হত্যাকাণ্ডের প্রায় একই রকম বর্ণনা দেয়। কিশোরী ও তার পরিবারের সঙ্গে আবু মুসার কোনো পরিচয় ছিল না বলেও এসপি জানান।
তবে গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত পুলিশ আবু মুসার কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডের কারণ উদ্ঘাটন করতে পারেনি। এসপি কামরুল আহসান বলেন, আবু মুসার মানসিক কোনো সমস্যা রয়েছে বলে মনে হয়নি। তিনজন নির্দোষ মানুষকে হত্যার পর কোনো অনুশোচনা আছে কি না জানতে চাইলে তিনি (মুসা) বলেন, ‘আমাকে এখন কেউ, এমনকি স্ত্রীও ভালোভাবে নেবে না। তাই আমার শাস্তি হওয়া উচিত।’
রূপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নাইক্ষ্যংঝিড়ি এলাকার সদস্য রমজান আলী বলেন, হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটন করা যাচ্ছে না। কিশোরীর দাদা-দাদির ৫০-৬০ একর ভোগদখলীয় পাহাড়ি জমি রয়েছে। ওই জমির পাশে আবু মুসার বড় চাচার খামারবাড়ি রয়েছে। তবে তাদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধের কথা শোনা যায়নি। ওই জমি দখলের উদ্দেশ্যে প্রভাবশালী কোনো মহল আবু মুসাকে কাজে লাগিয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখা যেতে পারে।
লামা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হোসাইন ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক ইব্রাহিম খলিল বলেন, আবু মুসাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। আজ সোমবার তাঁকে বিচারিক হাকিমের আদালতে হাজির করা হবে।
নিজস্ব প্রতিবেদক, রাঙামাটি জানান, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জনসংহতি সমিতি সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, হিল উইমেন্স ফেডারেশন ও মহিলা সমিতির নেতা-কর্মীরা রাঙামাটি শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে জেলা প্রশাসন কার্যালয় চত্বরে প্রতিবাদ-সমাবেশ করা হয়। পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের রাঙামাটি জেলা শাখার সভাপতি রিপেশ চাকমার সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন ছাত্র পরিষদের সাবেক সভাপতি উদয়ন বড়ুয়া, পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সুপ্রভা চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক নিশি দেওয়ান প্রমুখ।
গতকাল পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ইউপিডিএফভুক্ত বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের নেতা-কর্মীরা রাজধানীর দোয়েল চত্বর থেকে মিছিল শুরু করেন। মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র এলাকায় গিয়ে সমাবেশ করে। পিসিপির ঢাকা শাখার সদস্য বিনয়ন চাকমার পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন পিসিপি ঢাকা শাখার সহসভাপতি প্রুসিং থোয়াই মারমা ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সহসভাপতি নিরুপা চাকমা।


Prothom Alo
Reply With Quote