facebook Twitter RSS Feed YouTube StumbleUpon

Home | Forum | Chat | Tours | Articles | Pictures | News | Tools | History | Tourism | Search

 
 


Go Back   BanglaCricket Forum > Miscellaneous > Forget Cricket

Forget Cricket Talk about anything [within Board Rules, of course :) ]

Reply
 
Thread Tools Display Modes
  #26  
Old May 31, 2011, 08:58 PM
Zeeshan's Avatar
Zeeshan Zeeshan is offline
BC Staff
BC Editorial Team
 
Join Date: March 9, 2008
Posts: 25,818

Keep them coming. Pity they are all in Bangla and it's hard to read the small fonts. Or else every one of them is noteworthy.

Last edited by Zeeshan; May 31, 2011 at 09:28 PM..
Reply With Quote
  #27  
Old May 31, 2011, 09:26 PM
Naimul_Hd's Avatar
Naimul_Hd Naimul_Hd is offline
Cricket Guru
 
Join Date: October 18, 2008
Location: Global City of Australia
Favorite Player: Shakib, Mashrafe
Posts: 13,383

some of the stories are really inspiring. Sometimes i wonder myself, what have i done in my life ?!
Reply With Quote
  #28  
Old June 4, 2011, 02:23 AM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

প্রতিবন্ধীদের অধিকার রক্ষার্থে ‘দাঁড়িয়েছেন‘ দুলা খুড়া...



মেহেরপুর: দু’পায়ে দাঁড়ানোর সামর্থ তার নেই- তারপরও লোকজন বলছে তিনি দাঁড়িয়েছেন। হ্যাঁ, তিনি এবার ‘ভোটে দাঁড়িয়েছেন’।

মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার বাগোয়ান ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা প্রতিবন্ধী শহিদুলাহ ওরফে দুলা খুড়াকে নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে তাই বেশ আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি তার ইউনিয়ন পরিষদের আসন্ন নির্বাচনে সদস্য পদে দাঁড়িয়েছেন।

এলাকার বেশ কিছু যুবক তাকে উৎসাহ দিয়ে ভোটে দাঁড় করিয়েছেন বলে বাংলানিউজকে জানালেন। নির্বাচনে তার পদে মোট ৪ জন প্রার্থীর মধ্যে তিনিই জয়ী হবেন বলে আশাবাদী দুলা।

স্থানীয়রা জানান, এলাকার মৃত দাউদ কারিগরের ছেলে শহিদুলাহ এক বছর বয়সে অসুস্থ (পেলিও) হলে তার পা দু’টি অচল হয়ে যায়। সোজা হয়ে হাঁটার ক্ষমতা হারান তখন থেকেই। দু’হাতে ভর দিয়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলাফেরা করেন তিনি।

নিজের জায়গা-জমি বলতে কিছু নেই। চা বিক্রি করে পেট পালতে হয়। ব্যক্তিজীবনে একটি দুঃখ তাকে তাড়িয়ে বেড়ায় খুব। তা হলো- যুবক বয়সে বিয়ে করেছিলেন। কিন্তু স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে যান।

নিজের ভরণ পোষণ নিজেকেই করতে হয়। প্রতিবন্ধী হলেও সরকারি-বেসরকারি কোনও মহল থেকে কোনও ধরনের ভাতা পান না।

মনের এসব দুঃখকে সঙ্গী করে এবং প্রতিবন্ধীদের অধিকার রক্ষার্থে এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বলে হাসিমুখে জানালেন শহীদুল্লাহ ওরফে দুলা খুড়া।
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #29  
Old June 13, 2011, 07:40 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

Bangladesh teenagers drive outsourcing growth!



Bangladeshi computer programmer Abdullah Al Zahid works on his computer at his house in Dhaka

Bangladeshi programmers work in a software firm in Dhaka

DHAKA — Like many teenagers, Abdullah Al Zahid spends most of his time holed up in his bedroom in his family's modest Dhaka apartment glued to his computer.

But Zahid, 16, is not checking Facebook or chatting to friends -- he's working as a freelance web developer, part of a new wave of young, tech-savvy Bangladeshis who are transforming their country's nascent outsourcing sector.

"There is so much demand for outsourcing, I am struggling to cope. I have to turn down many, many job offers," said Zahid, who earns around $1,000 a month from several outsourcing contracts and is his family's main breadwinner.

"Many of my friends are interested in this work. I hope to set up my own office one day and hire other people like me to do more outsourcing," said Zahid, who is still at school and wants to go on to university.

The Bangladesh Association of Software and Information Services (BASIS) estimates there are some 15,000 freelancers like Zahid in Bangladesh doing outsourced work for technology companies from across the globe.

The country also has some 500 registered IT outsourcing companies which collectively employ an additional 20,000 workers.

Compared to neighbouring India, which accounts for around 55 percent of the $3.4 trillion global market and employs 2.54 million people directly in the sector, Bangladesh is an outsourcing minnow.

But as outsourcing costs rise in other countries like India, China and the Philippines, impoverished Bangladesh, currently better known for cheap garment exports for top Western brands, may be able to cash in.

"New companies are approaching with new orders now and that's what we need to boost the industry as global IT spending is expected to rise over the next few years," BASIS president Mahboob Zaman told AFP.

"We are just getting entry into the global industry but we have real potential," he said, adding that Bangladesh's low cost labour pool was a key competitive advantage.

The average wage of an outsourced IT sector employee is around $8 per hour in Bangladesh compared to $20 per hour in India and $10 to $15 an hour in the Philippines.

Moreover, Bangladesh has one of the largest and youngest populations in Asia, with 150 million people of whom some 65 percent are under 25, Zaman said.

Last December, leading technology research company Gartner ranked Bangladesh for the first time in its annual list as one of its top 30 countries for IT services outsourcing in 2010 thanks to its low costs and huge labour pool.

Bangladesh began developing an outsourcing sector in 2004 and it is now worth around $120 million. The country exported some $36 million worth of IT services last year, according to BASIS figures.

The government has declared developing the IT outsourcing industry to be a key priority, which fits with their ongoing campaign to create a "Digital Bangladesh" by 2020.

But there are major challenges which must be addressed before the industry can flourish: Gartner gave Bangladesh a "poor" rating in three vital areas -- infrastructure, language skills and data, and intellectual property security.

Poor infrastructure, including frequent power crises and slow and unreliable Internet connections are the most immediate problems for Ahmadul Hoq, president of the Bangladesh Association of Call Centre and Outsourcing (BACCO).

"We have told the government that we need an uninterrupted power supply and a second connection with high bandwidth," Hoq told AFP, adding that progress on these issues was slow.

Bangladesh's businesses have long suffered from an acute power crisis, as plants generate only around 5,000 megawatts of electricity a day, but demand is over 6,000 megawatts and growing at a rate of 500 megawatts a year.

The country has only one submarine Internet cable and desperately needs a second line to prevent frequent disruptions, Hoq said.

"We are connected to submarine cable network SEA-ME-WE-4, which provides an Internet bandwidth of 24 gigabytes, but more speed needed and an alternative connection is essential to woo overseas clients," Hoq said.

The government should also set up IT software parks in the capital Dhaka and at universities across the country to attract more graduates to the sector and ensure the right skills training is available, Hoq said.

For BASIS president Zaman, Bangladesh should aim for its outsourcing service industry to export $500 million worth of services by 2014, a goal he said was within reach.

"Two decades ago, many people could not imagine Bangladesh's garment industry would become the country's highest export earner -- but it did. I believe the outsourcing industry has the same potential," Zaman said.

Bangladesh's garment industry accounts for 80 percent of the country's $16-billion-plus of export earnings and employs over three million workers, mostly women.

The country's biggest advantage in terms of outsourcing, Zaman said, is its people -- particularly the younger tech-savvy generation who are already helping the sector to take off without any government support.

"Young men like Zahid (the freelance web developer) adapt to new technologies quickly and it is going to be them who will drive the outsourcing industry forward," he said.
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #30  
Old June 13, 2011, 07:42 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

I read the Holy Quran everyday: Tony Blair


Former British Premier, Blair reads the quran everday to stay "faith literate".

LONDON: In a startling revelation during an interview to The Observer magazine, the former British Prime Minister Tony Blair confessed to reading the Holy Quran, the holy scripture for the 1.5 billion global Muslim population, as reported by the Daily Mail.

Blair, who was famously reluctant to discuss his faith during his time in office, converted to Catholicism months after leaving 10 Downing Street in 2007, and set up the ‘Tony Blair Faith Foundation’, to promote respect and understanding between the major religions.

In the interview, he said “I read the Bible every day. I read the Quran every day, partly to understand some of the things happening in the world, but mainly just because it is immensely instructive.”

Reading Islam’s holy book ensured he remained ‘faith-literate’ said Blair, adding that he believes being faith-literate is crucial in today’s globalised world.

Blair believes that knowledge of Islam informs his current role as Middle East envoy for the Quartet of the United Nations, United States, European Union and Russia.

This isn’t the first time that the former British Premier had spoken so highly of the religion. In 2006 he said the Quran was a ‘reforming book, it is inclusive. It extols science and knowledge and abhors superstition. It is practical and way ahead of its time in attitudes to marriage, women and governance’.

He praised the Muslim faith as being ‘beautiful’ and that the Prophet Mohammed (PBUH) as being ‘an enormously civilizing force’.

Last October, Blair’s sister-in-law Lauren Booth raised eyebrows after announcing that she had converted to Islam after what she described as a ‘holy experience’ during a visit to a shrine in Iran.
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #31  
Old June 13, 2011, 07:44 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

[B]নিয়মিত কোরআন পড়ছেন ব্লেয়ার...[/B]

লন্ডন: সাবেক বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার ধর্মের গুরুত্ব সম্পর্কে আরো বেশি খোলামেলাভাবে কথা বলতে শুরু করেছেন। এমনকি ধর্ম বিষয়ে জ্ঞান লাভ করতে তিনি নিয়মিত কোরআন পড়ছেন।

ধর্মের ব্যাপারে কোনো আগ্রহ নেই এ কথা বলে বেড়ালেও ২০০৭ সালে নির্বাচনে হেরে ক্ষমতা ছাড়ার পরই তিনি ধর্মের ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। ১০নং ডাউনিং স্ট্রিটে বাড়ি ছাড়ার পরই তিনি প্রথম যে কাজটি করেন তা হলো ক্যাথোলিক মতবাদে দীক্ষা নেওয়া।

লেবার পার্টির সাবেক এই নেতা ধর্ম বিষয়ে জ্ঞান লাভ করতে নিয়মিত কোরআন পড়ছেন। তিনি বলছেন, ইসলামের এই পবিত্র গ্রন্থটি পড়ে তিনি নিশ্চিত হতে পারছেন যে তিনি ধর্ম শিক্ষায় শিক্ষিত ব্যক্তি।

বিশ্বায়নের এই যুগে ধর্মের জ্ঞান থাকা সবার জন্যই জরুরি বলে তার বিশ্বাস। তিনি বলেন, ‘আমি প্রতিদিন কোরআন পড়ি। এর কিছু অংশ পৃথিবীতে ঘটমান বিষয় বোঝার জন্য। তবে বেশিরভাগই শিক্ষামূলক।’

এছাড়া, জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং রাশিয়া এই চতুষ্টয়ের হয়ে মধ্যপ্রাচ্যের বিশেষ দূত হিসেবে কাজ করতে ইসলাম ও অন্যান্য ধর্মের জ্ঞান তার জন্য খুবই দরকারি বলে বর্ণনা করেন ব্লেয়ার।

ব্লেয়ার মুসলিমদের ধর্মকে ‘চমৎকার’ আখ্যায়িত করে প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, মানুষকে সৎপথে পরিচালনার ক্ষেত্রে ইসলামের নবী মহম্মদের অসাধারণ ক্ষমতা ছিল।

সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোরআন একটি ‘সংস্কারক গ্রন্থ’ এবং এটি সর্বব্যাপী। এটি জ্ঞান ও বিজ্ঞানের প্রশংসা করে আর অন্ধ বিশ্বাসকে ঘৃনা করে। এটি বাস্তবভিত্তিক এবং বিবাহ প্রথা , নারী ও রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে এটি ছিলো এর সময়ের চেয়েও অগ্রসর।
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #32  
Old June 14, 2011, 12:10 AM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

Driving from Bangladesh to England in a classic Rolls Royce



Rupert Grey and his wife Jan are preparing to make an epic road trip this September. The kind of road trip that we all dream about during which we leave our normal, mundane, lives behind in favor of the open road and untold adventures. In this case, our two intrepid travelers will begin their journey in Bangladesh and eventually end up back in their native England, covering thousands of miles in between. But Rupert and Jan aren't content with just making that journey in just any old vehicle, which is why they'll be driving their classic 1936 Rolls Royce along the way.

While the start of their adventure is still a few months off, the couple are making preparations for what will likely be a fantastic journey. They will be shipping their car to Chittagong, Bangladesh, where they will set out to drive through Bhutan, Nepal, and India before arriving at the Arabian Sea. From there, they'll board a ship bound for Iran, where they'll once again hit the open road, crossing into Turkey and eventually Europe, before returning back to the U.K.

Intrigued by this unique road trip, an independent film company hopes to make a documentary of Rupert and Jan's journey. Rover Films is currently seeking funding for the project, and have already tentatively named their film A Sense of Adventure. You can check out the teaser trailer for it below.

Reading about this story left me to wondering. If you could take any road trip in any vehicle, where would you go and what would you drive? For me personally, I'd love to go from Cairo, Egypt to Cape Town, South Africa, in a classic Land Rover Defender. Say circa 1985 or so.

How about you?
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #33  
Old June 14, 2011, 12:14 AM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

উভচর গাড়ি

ঢাকা: হাঁসের মতো স্থলেও চরবে আবার জলেও ভাসবে আগামী দিনের উভচর কার ভলক্সওয়াগন অ্যাকুয়া।

শুধু তাই নয় ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার পর্যন্ত গতিসীমার এ কার একই গতিতে অনায়াসে চলাচল করবে সড়কে, জলে, বরফে ও বালিতে।

চীনা বংশোদ্ভূত ২১ বছর বয়সী ইউহান জেং সম্প্রতি একটি জার্মান গাড়ি উৎপাদনকারী কোম্পানির পৃষ্ঠপোষকতায় এক প্রতিযোগিতায় উপস্থাপন করেন এ উভচর কারের নকশা।

সাধারণ মসৃন রাস্তা ছাড়াই চলাচল করতে পারবে এমন যানের নকশার তৈরির প্রতিযোগিতার আয়োজন করলে জেং এ উভচর গাড়ির নকশাটি প্রদর্শন করেন।

নকশা অনুযায়ী গড়িটি দেখতে অনেকটা স্পোর্টস কারের মতো। পানিতে চলার জন্য এতে ব্যবহার করা হবে চারটি শক্তিশালী ফ্যান। এছাড়াও এর দুই পাশে দুইটি বায়ুথলি থাকবে যা গাড়িটিকে প্রয়োজনে উপরে উঠতে সহায়তা করবে।

এর জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হবে হাইড্রোজেন গ্যাস যা সম্পূর্ণ পরিবেশ বান্ধব।

গাড়িটিতে রয়েছে দুইটি মটর যার একটি নিয়ন্ত্রণ করবে এর গতিবেগ এবং অপরটি কাজ করবে জল, স্থল, বরফ ও বালিতে চলার কাজে ব্যবহৃত ভিন্ন ভিন্ন যন্ত্রাংশ।

প্রদর্শনীর সময় এর নকশা প্রণেতা ইউহান জেং অতি শিগগিরি এ সুপার কারটি সাধারণ মানুষের নাগালে নিয়ে আসার আশা প্রকাশ করেন।

---------------------------------------------------------------------------------------------------
Now, a car that moves on water

In what has come as China’s reply to Japan’s levitating locomotive, the ‘Volkswagen Aqua’ born to the thoughts of 21-year-old designer Yuhan Zhang, can drive on roads, sand, ice - and even water. The all-terrain vehicle, which has a top speed of 62mph and works like a hovercraft, can move seamlessl y over different surfaces.

Created for a competition sponsored by the German car manufacturer, the vehicle's sleek sportscar-like design incorporates four high-powered fans and integrated airbags that inflate to lift it from the ground.

A large windscreen stretches above the front seats to give a panoramic view of the landscape ahead.

Based on technology that is currently available, the Aqua uses a hydrogen fuel cell to power two motors - with zero carbon emissions.

One motor inflates the skirt around the vehicle to make it hover, while the second drives it forwards and controls its direction.

“There is no better form of transport than an air cushion vehicle because it travels equally well over land, ice, and water,” the Daily Mail quoted Yuhan as saying.

“I hope Aqua will become an affordable supercar that is available to the general public one day,” he added.

The competition asked designers to come up with a 'Chinese off-road vehicle'.
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #34  
Old June 29, 2011, 09:05 PM
Naimul_Hd's Avatar
Naimul_Hd Naimul_Hd is offline
Cricket Guru
 
Join Date: October 18, 2008
Location: Global City of Australia
Favorite Player: Shakib, Mashrafe
Posts: 13,383

Attitude overcomes more obstacles than you think




Reply With Quote
  #35  
Old June 30, 2011, 01:35 AM
Naimul_Hd's Avatar
Naimul_Hd Naimul_Hd is offline
Cricket Guru
 
Join Date: October 18, 2008
Location: Global City of Australia
Favorite Player: Shakib, Mashrafe
Posts: 13,383

Here is the Aljajera news on Abdullah who is a young guy earning money as freelance IT.

Reply With Quote
  #36  
Old June 30, 2011, 02:07 AM
Rabz's Avatar
Rabz Rabz is offline
BanglaCricket Staff
BC - Bangladesh Representative
 
Join Date: February 28, 2005
Location: Here
Favorite Player: Father of BD Cricket
Posts: 20,480

^^ Thanks for sharing.
Positive news about Bangladesh is always good to see.
__________________
Verily, in the remembrance of Allah do hearts find rest [Al-Qur'an,13:28]
Reply With Quote
  #37  
Old August 18, 2011, 11:45 AM
roman's Avatar
roman roman is offline
Cricket Guru
 
Join Date: July 18, 2004
Location: New York
Favorite Player: Shakib, Tamim, Mash
Posts: 10,937

শরীফের আশ্চর্য আবিষ্কার!



শরিফুল ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্ট ফোর.কম


সারা জীবন বই পড়ে জেনে এসেছি তেল, গ্যাস, পানি, কয়লা আর বাতাস ও সৌরশক্তিই বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রধান উপাদান। কিন্তু এগুলো ছাড়াও বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়! অসম্ভব। হ্যাঁ আমিও আপনার মতো প্রথমেই এই শব্দটি উচ্চারণ করেছিলাম। কিন্তু বিদেশ-বিভুঁইয়ে নয়, খোদ বাংলাদেশের এক তরুণ উদ্ভাবক এই অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন। একাগ্র সাধনা আর দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টা দিয়ে এই অসম্ভবকে জয় করার দাবি করেছেন টাঙ্গাইলের শরীফুল ইসলাম।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের চান্দুলিয়া গ্রামের ছোরত আলী ও ফুলখাতুন বেগমের সন্তান শরীফুল ইসলাম। ছয় ভাই আর তিন বোনের মধ্যে তিনি অষ্টম। স্কুলজীবন থেকে বিজ্ঞানের প্রতি ভালোবাসা থেকে বিকল্প জ্বালানি নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু। ২০০৭ সালে দশম শ্রেণীতে পড়ার সময়ে প্রাথমিক ধারণা এবং ২০০৯ সালের জানুয়ারি মাসে বিকল্প জ্বালানি উদ্ভাবনের জন্য একটা যন্ত্রের মডেল উদ্ভাবন। নিজের নাম অনুসারে তিনি যন্ত্রটির নাম দিয়েছেন ‘শরীফুয়েল্লেস এনার্জি’।

নিজের উদ্ভাবিত যন্ত্রের প্রচার ও সবাইকে বিষয়টি অবহিত করতে দুরুদুরু বুকে ৯ জুলাই ২০১১ জাতীয় প্রেসক্লাবে হাজির হন শরীফ। সঙ্গে বন্ধু ও খালাত ভাই। হাতেগোনা কয়েকজন সাংবাদিকের অব্যাহত প্রশ্নে শুরুতেই অসহায় আত্মসমর্পণ সদ্য গ্রাম থেকে উঠে আসা শরীফের। তারপরও জোরালো কণ্ঠে তার দাবি, আমি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বলতে পারি আমার যন্ত্র সম্পূর্ণ সঠিক।

অনুষ্ঠান শেষে কথা হচ্ছিল শরীফুলের সাথে তার আবিষ্কৃত যন্ত্রটি নিয়ে। বাংলানিউজকে তিনি বলেন, ‘পরীক্ষামূলকভাবে আমি তেল, গ্যাস, পানি, কয়লা, বাতাস বা সৌরশক্তি ছাড়াই বিদ্যুৎ উৎপাদনের কার্যক্রম চালাই এবং আমার উদ্ভাবিত যন্ত্র দিয়ে ৩.৫ কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম হই। আমি আরো গবেষণা চলিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে, আমার উদ্ভাবিত ইঞ্জিনের জ্বালানি উৎপাদন ক্ষমতা হবে অফুরন্ত ও শক্তিশালী।’

তিনি আরো বলেন, ‘শুরুতে আমার উদ্ভাবিত যন্ত্রের উৎপাদনক্ষমতা কম ছিল। প্রতিদিন আমি এ যন্ত্রের শক্তি বৃদ্ধির চেষ্টা চালাচ্ছি। এখন আমার উদ্ভাবিত যন্ত্রের শক্তি সম্পর্কে সংশয় ছাড়াই বলতে পারি যে, এর শক্তি অফুরন্ত। শুধু তাই নয়, আমি বিজ্ঞানী ও বিশেষজ্ঞদের প্রতি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বলতে পারি আমার এ যন্ত্রের শক্তি সম্পর্কে কেউ দ্বিমত পোষণ করতে পারবেন না।’

যন্ত্রের শক্তি সম্পর্কে উদাহরণ দিতে গিয়ে তিনি বলেন, আমার উদ্ভাবিত এ যন্ত্র দিয়ে আমার পরিবারের বিদ্যুতের চাহিদা মিটিয়ে আমি পাশের বাসায় সরবরাহ করেছি। এই যন্ত্রে এখন যে পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে তা দিয়ে ২০টি ফ্যান ও ১০০টি ১০০ ওয়াটের লাইট জ্বালানো সম্ভব।

তবে যন্ত্রটি তিনি কী কী উপাদান দিয়ে তৈরি করেছেন এবং এটি কীভাবে কাজ করে এ সম্পর্কে কোনো কিছুই বলতে নারাজ শরীফ। তার শঙ্কা, এতে করে তার অনেক দিনের সাধনার অর্জন চুরি হয়ে যেতে পারে।

সরকারের কাছে সহায়তা প্রত্যাশা করে তিনি বলেন, সরকার যদি আমাকে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা দেয় তবে আমি যন্ত্রটিকে আধুনিক করে এমন পর্যায়ে নিয়ে যাব যে স্থানীয় পর্যায়ে বিদ্যুতের চাহিদা মিটিয়ে আরো উদ্বৃত্ত থাকবে। সারা দেশে এরকম শত শত যন্ত্র ছড়িয়ে দিতে পারলে আমদানি নয়, বরং সরকার বিদ্যুৎ রপ্তানি করতে পারবে।

তিনি আরো বলেন, ‘শুধু বিদ্যুৎ আবিষ্কার নয়, আমি এ যন্ত্রটিকে এমনভাবে তৈরি করেছি যে, কোনো ধরনের জ্বালানি ছাড়া গাড়িতেও এটি ব্যবহার করা যাবে। আমার দরকার পর্যাপ্ত সহায়তা।’

এই যন্ত্র আবিষ্কারে কার বেশি অনুপ্রেরণা ও সহায়তা ছিল এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, যন্ত্র আবিষ্কারের পেছনে আমার আড়াই লাখ টাকা খরচ হয়েছে। টাকা সংগ্রহ করতে গিয়ে আমাদের ধানি জমি বন্ধক রাখতে হয়েছে। তারপরও কেউ সহায়তা করেননি। তবে স্থানীয় পত্রিকায় যন্ত্র আবিষ্কারের প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর টাঙ্গাইল ৭ আসনের সাংসদ একাব্বর হোসেন ১ টন চাল পুরস্কার দিয়েছিলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের তৎকালীন ইউএনও জান্নাত রেহানা তার প্রকৌশলী ভাইকে নিয়ে এসেছিলেন আমার যন্ত্রটি কীভাবে কাজ করে জানতে। আমি তাদের বলিনি।’

বিশেষজ্ঞদের মতামত ছাড়া আবিষ্কারের স্বীকৃতি আসবে না বলে জানালে শরীফ বলেন, ‘আমি গরিব মানুষ। আমার পেছনে কোনো সহায়তা নেই। যে কেউ এসে এই ফর্মুলাটা জেনে নিয়ে নিজের আবিষ্কার বলে জাহির করবেন। তাই আমি চাই সরকারই এগিয়ে আসুক এবং আমার নামেই যন্ত্রটির প্রসার হোক। সরকার এগিয়ে এলে আমি নিজেই সবার সামনে এই যন্ত্রের ফর্মুলা প্রকাশ করবো।’


__________________
The mind is like a parachute, it only works when open.....Thomas Dewey

Last edited by roman; August 18, 2011 at 11:46 AM.. Reason: source
Reply With Quote
  #38  
Old August 18, 2011, 02:26 PM
akabir77's Avatar
akabir77 akabir77 is offline
Cricket Guru
 
Join Date: February 23, 2004
Location: Overland Park, Kansas
Favorite Player: Nantu Ghotok
Posts: 10,769

another one of these inventors what happen to last one who invented never ending energy or something?
__________________
1. Shahadat Hossain: Mufambisi c Mashud; Chigumbura lbw; Utseya c Mashud
2.
Abdur Razzak: P Utseya caught; RW Price lbw; CB Mpofu lbw
3. Rubel Hossain: Corey J A bowled; BB McCullum caught; JDS Neesham caught
Reply With Quote
  #39  
Old August 18, 2011, 03:17 PM
mac's Avatar
mac mac is offline
Cricket Legend
 
Join Date: May 30, 2006
Location: dhaka
Favorite Player: All the Tigers
Posts: 2,631

A real KDPP thing!

Posted via BC Mobile Edition (Android)
Reply With Quote
  #40  
Old August 18, 2011, 04:56 PM
banfan2 banfan2 is offline
Banned
 
Join Date: January 24, 2010
Location: london
Favorite Player: shakib,shourav
Posts: 416

etaki shotti!!!
Reply With Quote
  #41  
Old September 13, 2011, 09:39 PM
Zeeshan's Avatar
Zeeshan Zeeshan is offline
BC Staff
BC Editorial Team
 
Join Date: March 9, 2008
Posts: 25,818



Backstory:

http://improveverywhere.com/2011/08/...omething-nice/
Reply With Quote
  #42  
Old September 13, 2011, 09:44 PM
nycpro96's Avatar
nycpro96 nycpro96 is offline
Cricket Legend
 
Join Date: December 17, 2007
Location: Albany
Favorite Player: Tamim Iqbal
Posts: 6,057

This was great!
__________________
Reporter: You could hit the first ball for 4 couldn't you?
Tamim: Ha, I could hit the first ball for 6, that's not a problem.
Reply With Quote
  #43  
Old September 15, 2011, 02:18 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

http://www.banglanews24.com/detailsn...57316&toppos=1
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #44  
Old September 16, 2011, 01:20 PM
HereWeGo HereWeGo is offline
Cricket Legend
 
Join Date: March 7, 2006
Posts: 2,339

Quote:
You cannot produce something out of nothing!! only God can do that!! What I really wanna know is how the battery is getting charged continuously? There must be some kind of power source!! :S
Reply With Quote
  #45  
Old September 16, 2011, 01:40 PM
Nasif's Avatar
Nasif Nasif is offline
Administrator
BanglaCricket Development
 
Join Date: October 4, 2002
Location: USA
Favorite Player: Mashrafe Mortaza
Posts: 8,678

Quote:
Not again! Violates too many laws.... never forget Mr. Ohms' R



Unless ofcourse these two invented super-conductor in their village!
__________________
They said, "After we turn into bones and fragments, we get resurrected anew?!" Say, "Even if you turn into rocks or iron.[17:49-50] |Wiki: Cold Fusion occurring via quatum tunnelling in ~101500 years makes everything into iron.
Reply With Quote
  #46  
Old November 4, 2011, 02:37 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

নো ফ্রি লাঞ্চ
হুমায়ূন আহমেদ, নিউইয়র্ক থেকে | তারিখ: ০২-১১-২০১১



‘নো ফ্রি লাঞ্চ’—একটি আমেরিকান বাক্য। এই বাক্যটা বলে তারা এক ধরনের শ্লাঘা অনুভব করে। তারা সবাইকে জানাতে পছন্দ করে যে তারা কাজের বিনিময়ে খাদ্যে বিশ্বাসী।

এই ধরনের বাক্য বাংলা ভাষাতেও আছে—‘ফেলো কড়ি মাখো তেল’। গায়ে তেল মাখতে হলে কড়ি ফেলতে হবে। আরামের বিনিময়মূল্য লাগবে। যা-ই হোক, ফ্রি লাঞ্চে ফিরে যাই। নো ফ্রি লাঞ্চের দেশে চিকিৎসা করতে ব্যাগ ভর্তি ডলার নিয়ে যেতে হবে, এই তথ্য আমি জানি। তবে বিকল্প ব্যবস্থাও আছে। বুকে প্রচণ্ড ব্যথা বলে যেকোনো হাসপাতালের ইমার্জেন্সিতে নিয়ে যেতে হবে। বুকে ব্যথা মানে হার্ট অ্যাটাক। হাসপাতাল হেলথ ইনস্যুরেন্স আছে কি নেই তা না দেখেই রোগী ভর্তি করবে। চিকিৎসা শুরু হবে। চিকিৎসার একপর্যায়ে ধরা পড়বে রোগীর হয়েছে ক্যানসার। হাসপাতাল তখন ক্যানসারের চিকিৎসা শুরু করবে। রোগীকে ধাক্কা দিয়ে হাসপাতালের ফুটপাতে ফেলে দেবে না। চিকিৎসা শেষ হওয়ার পর বলতে হবে, আমি কপর্দকশূন্য। এক মিলিয়ন ডলার বিল আমি দেব, তবে একসঙ্গে দিতে পারব না। ভেঙে ভেঙে দেব। প্রতি মাসে পাঁচ ডলার করে। এই প্রস্তাবে রাজি হওয়া ছাড়া হাসপাতালের তখন আর করার কিছু থাকে না। বাংলাদেশিদের কাছে এই বিকল্প চিকিৎসাব্যবস্থা সংগত কারণেই বেশ জনপ্রিয়।

বাঙালি ব্যবস্থায় আমি চিকিৎসা শুরু করব, এই প্রশ্নই ওঠে না। সমস্যা হচ্ছে, বিপুল অঙ্কের অর্থও তো আমার নেই।

আমার দুটো গাড়ি। দুটোই বিক্রির জন্য পাঠানো হলো। একটা বিক্রি হলো। দখিন হাওয়ার যে ফ্ল্যাটে থাকি, সেটা বিক্রির চেষ্টা করলাম। পারলাম না, ফ্ল্যাটবাড়ি নিয়ে কিছু আইনগত জটিলতা আছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে উত্তরায় পাঁচ কাঠার একটা জমি পেয়েছিলাম। সেই জমি বিক্রির জন্য বিজ্ঞাপন দিলাম। লাভ হলো না। বাকি থাকল নুহাশ পল্লী। অর্থ সংগ্রহের ছোটাছুটির একপর্যায়ে অন্যপ্রকাশের মাজহার বলল, আপনি কেন অস্থির হচ্ছেন? আমি তো আপনার সঙ্গে যাচ্ছি। আপনার চিকিৎসার অর্থ কীভাবে আসবে, কোত্থেকে আসবে তা দেখার দায়িত্ব আমার। আপনার না।
আমি বললাম, টাকা কীভাবে জোগাড় করবে? ভিক্ষাবৃত্তি? চাঁদা তুলবে?
মাজহার বলল, না। আমি আপনাকে কথা দিচ্ছি, কারও কাছ থেকে এক ডলার সাহায্য নেব না। এই মুহূর্তে আমার হাতে ৫০ হাজার আমেরিকান ডলার আছে।
আমি বললাম, দেখাও।
মাজহার বলল, দেখাতে পারব না। ৫০ হাজার ডলার নিউইয়র্কে আপনার জন্য আলাদা করা। চ্যানেল আইয়ের সাগর ভাই আপনার জন্য আলাদা করে রেখেছেন। সাহায্য না, ঋণ। পরে শোধ দেবেন।
আমি খানিকটা ভরসা পেলাম। চ্যানেল আইয়ের সাগরের অনেক বদভ্যাসের (!) একটি হলো শিল্প-সাহিত্যের কেউ বিপদে পড়লে তাকে উদ্ধারের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়া। এই কাজ অতীতেও সে অনেকবার করেছে। এখনো করছে। ভবিষ্যতেও করবে কি না জানি না। ইতিমধ্যে তার উচিত শিক্ষা হয়ে যাওয়ার কথা।

আমেরিকায় অর্থ ব্যয়ের একটি নমুনা দেওয়া যেতে পারে। হিসাবটা বাংলাদেশি টাকায় দিই।
স্লোয়ান কেটারিং মেমোরিয়ালের ডাক্তাররা আমার কাগজপত্র দেখবেন। রোগ নিয়ে কথাবার্তা বলবেন। শুধু এই জন্য তিন লাখ টাকা জমা দিতে হলো।

ডাক্তার শরীরে মেডিপোর্ট বসানোর জন্য Radio ল্যাবে পাঠালেন। (মেডিপোর্টের মাধ্যমে কেমোথেরাপি শুরু হবে) মেডিপোর্ট বসানোর খরচ হিসেবে জমা দিতে হলো আট লাখ টাকা।
মেডিপোর্ট বসানোর পরদিন কেমো শুরু হবে। আটটি কেমোর পুরো খরচ একসঙ্গে দিতে হবে। টাকার পরিমাণ এক কোটি টাকা। ভাগে ভাগে দেওয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই।

শাওন ও মাজহার দুজনেরই দেখি মুখ শুকনো। নিশ্চয়ই কোনো একটা সমস্যা হয়েছে। যেহেতু তারা আমাকে বলেছে, টাকা-পয়সার বিষয় নিয়ে আমি যেন চিন্তা না করি, আমি তাই চিন্তা করছি না।
কেমোথেরাপি দিতে এসেছি। কেমোথেরাপির ডাক পড়বে, ভেতরে যাব। ডাক পড়ছে না। একা বসে আছি। শাওন আমার সঙ্গে নেই। সে মাজহারের সঙ্গে ছোটাছুটি করছে। শাওন চোখ লাল করে কিছুক্ষণ পরপর আসছে, আবার চলে যাচ্ছে।

একটা পর্যায়ে শাওন ও মাজহার দুজনকে ডেকে বললাম, ‘মার্ফিস ল’ বলে একটি অদ্ভুত আইন আছে। মার্ফিস ল বলে—If any thing can go wrong, it will go wrong. আমি পরিষ্কার বুঝতে পারছি, কোনো একটা সমস্যা হয়েছে। সমস্যাটা বলো। টাকা কম পড়েছে?
মাজহার বলল, হ্যাঁ। চ্যানেল আইয়ের টাকাটা এই মুহূর্তে পাওয়া যাচ্ছে না। হাসপাতালে আমরা অর্ধেক, অর্থাৎ ৫০ লাখ টাকা দিতে চাই, ওরা নেবে না। হাসপাতাল বলছে, পুরো টাকা নিয়ে আসো, তারপর চিকিৎসা শুরু হবে। আমি বললাম, চলো, ফিরে যাই। টাকা জোগাড় করে চিকিৎসার জন্য আসব।
শাওন বলল, তোমার চিকিৎসা আজই শুরু হবে। কীভাবে হবে আমি জানি না, কিন্তু আজই হবে।
শাওন বাচ্চাদের মতো কাঁদতে শুরু করল। আমি বললাম, তুমি সবার সামনে কাঁদছ। বাথরুমে যাও। বাথরুমে দরজা বন্ধ করে কাঁদো।

সে আমার সামনে থেকে উঠে বাথরুমে ঢুকে গেল। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই আমার ডাক পড়ল, কেমোথেরাপি শুরু হবে। টাকা বাকি থাকতেই শুরু হবে।

সমস্যার সমাধান করলেন পূরবী দত্ত। তিনি হাসপাতালকে বোঝাতে সমর্থ হলেন যে হুমায়ূন আহমেদ নামের মানুষটি চিকিৎসা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার মানুষ না। তিনি অবশ্যই প্রতিটি পাই-পয়সা শোধ করবেন।

হাসপাতাল চিকিৎসার পুরো টাকা শুরুতেই কেন নিয়ে নেয় তা ব্যাখ্যা করি। অনেক রোগী একটি কেমোর টাকা জোগাড় করে কেমো নিয়ে হাসপাতালের বিরুদ্ধে মামলা করে দেয়। সে বলে, আমার আর টাকা নেই বলে কেমো নিতে পারছি না। আমার চিকিৎসা অসম্পূর্ণ। আমেরিকান হাসপাতাল চিকিৎসা অসম্পূর্ণ রাখতে পারে না।

পাদটীকা

সর্বাধুনিক, বিশ্বমানের একটি ক্যানসার হাসপাতাল ও গবেষণাকেন্দ্র কি বাংলাদেশে হওয়া সম্ভব না? অতি বিত্তবান মানুষের অভাব তো বাংলাদেশে নেই। তাঁদের মধ্যে কেউ কেন স্লোয়ান বা কেটারিং হবেন না? বিত্তবানদের মনে রাখা উচিত, কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা ব্যাংকে জমা রেখে তাঁদের একদিন শূন্য হাতেই চলে যেতে হবে। বাংলাদেশের কেউ তাঁদের নামও উচ্চারণ করবে না। অন্যদিকে আমেরিকার দুই ইঞ্জিনিয়ার স্লোয়ান ও কেটারিংয়ের নাম তাঁদের মৃত্যুর অনেক পরেও আদর-ভালোবাসা ও শ্রদ্ধার সঙ্গে সমস্ত পৃথিবীতে স্মরণ করা হয়।

আমি কেন জানি আমেরিকায় আসার পর থেকেই স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছি, হতদরিদ্র বাংলাদেশ হবে এশিয়ায় ক্যানসার চিকিৎসার পীঠস্থান।

যদি বেঁচে দেশে ফিরি, আমি এই চেষ্টা শুরু করব। আমি হাত পাতব সাধারণ মানুষের কাছে।


----------------------------------------------------------------------------------------------

04 Nov 2011 11:40:26 AM Friday BdST
আমি রাজী, আপনারা?
আবিদ রহমান, কন্ট্রিবিউটিং এডিটর



সৎ ও আন্তরিক যেকোনও উচ্চারণ হৃদয়গ্রাহী হয়। পাঠকের চিত্তাকর্ষণ করে। ইদানিং সম্ভবতঃ একারণেই সুখপাঠ্য লেখক হুমায়ূন আহমদের লেখাগুলোর ’প্রেমে’ পড়ে যাচ্ছি। নিউইয়র্কে চিকিৎসাধীন হুমায়ূনের লেখাগুলো একার্থে মাইন্ড ব্লোয়িং।ভেতরটা ভাসিয়ে দিয়ে যায় বেদনার অদ্ভুত প্লাবনে! নিজেকে কেন জানি না অজানা কারণেই গিল্টি বোধ করি। মৃত্যুকে মালুম হয় ‘ফাজিল’ এক উপদ্রব বলে। আগে মৃত্যুভীতিতে কাতর হতাম। এখন সেই ভীতিটা দিব্যি উধাও। মৃত্যুর আলিঙ্গন-অপেক্ষাকে মনে হয় অতি পরিচিত কোনো প্রতীক্ষা!

নিজ মৃত্যুকে নিয়ে ব্যঙ্গ করার জন্যে চাই জোর মানসিক শক্তি। অবিশ্বাস্য সততা। হুমায়ূনের রসবোধ সর্বজনস্বীকৃত। অসুস্হ অবস্হায় এই রসবোধ আরো বেড়েছে জীবনের নির্মম সত্যের মুখোমূখি হবার কারণে। হাজারো ব্যঙ্গবিদ্রুপের মাঝে হুমায়ূন আক্ষেপ জানিয়েছেন, জন্মভূমি বাংলাদেশে কেন আন্তর্জাতিক মানের ক্যান্সার হাসপাতাল নেই? অত্যন্ত যুক্তিযুক্ত এই আক্ষেপ ও জিজ্ঞাসা। বাংলাদেশের ভেজাল খাবার, বসবাস-অযোগ্য পরিবেশ আর আত্মঘাতী লাইফস্টাইল ক্যান্সারের বিস্তারে রাখছে প্রলয়ংকরী অবদান। ফি বছর ক্যান্সার চিকিৎসার জন্যে সামর্থ্যবান মানুষেরা মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা খর্চা করে ছোটেন বিদেশে। সামর্থ্যহীনেরা বন্ধু-বান্ধব ও স্বজনদের কাছে পাতেন হাত। ঋণ নিয়ে কাছাকাছির কলকাতাও হলেও সান্ত্বনার অন্তিমযাত্রায় ছোটেন।

টাকার অংকে আরোগ্যলাভের ক্ষীণ সম্ভাবনার মরণঘাতী এই চিকিৎসার হুন্ডি ব্যয় বছরে হাজার কোটি টাকারও বেশী। সঙ্গে আছে যাতায়ত ও সহায়তাকারীদের আনুষঙ্গিক খর্চা। সেই অংকটাও হেলার নয়। সব মিলিয়ে মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রার জমজমাট হুন্ডি বাণিজ্যে ক্যান্সার চিকিৎসা প্রদানকারী দেশগুলো দিব্যি আরাম আয়েশে থাকে। দু’হাজার এক সালে ব্যাংককে বাঙালি পর্যটকেরা ছিলেন ব্যয়ের তালিকার দ্বিতীয়। শীর্ষ স্হানের জাপানীরা ব্যাংককে আসতেন নিছক পর্যটনের মানসিকতায় আর বাঙালিরা টুরিস্ট ভিসায় যেতেন চিকিৎসায়।

হালে দেশে অনেক নামীদামী হাসপাতাল গড়ে উঠেছে। তবে সেগুলোর খায়-খর্চা ব্যাংকক-চেন্নাই-দিল্লীর বিলের দ্বিগুণ ছাড়ানো আর্থিক যাতনা। কিন্তু বিপরীতে চিকিৎসা ও সেবার মান প্রশ্নাতীত হয়নি। হুমায়ূন আহমেদ দেশে একটা আন্তর্জাতিক মানের ক্যান্সার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়েছেন। হুমায়ূনতো রাজনীতিবিদ কিংবা দেশের নীতি নির্ধারক নন। যারা রাজনীবিদ তাদের ট্যাঁকের জোর অনেক। সামান্য সর্দি-কাশিতে ওনারা উড়াল দেন বিদেশে। ক্যান্সারের মতো প্রাণঘাতী ব্যাধিতে নীতি নির্ধারকেরা অবলীলায় বিদেশে বাড়ি-ঘর কিনে থিতু হয়ে চিকিৎসা সারবেন। সেকারণেই দেশে একটা ক্যান্সার হাসপাতাল তাদের ’পঞ্চবার্ষিকীতে’ নেই। যদি থাকতোও তাহলে আলোর মুখ দেখতে লেগে যেতো দীর্ঘ সময়। এক সরকার নিজের দলের প্রধান বা নেতার নামে গড়তেন হাসপাতাল। অন্য দল ক্ষমতায় এসে সেই নামকরণের ’অপরাধে’ সেই হাসপাতালকে করতেন বেমালুম অবজ্ঞা।

বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নের বর্তমান পর্যায় কিছু ব্যক্তি-গোষ্ঠি ও প্রতিষ্ঠানের একক ও সম্মিলিত উদ্যোগের অবদান। আন্তর্জাতিক মানের ক্যান্সার হাসপাতালও হতে পারে সেই ধরণের কোনো ব্যক্তি উদ্যোগে। ’শুঁটকির’ শেয়ারবাজারে `বিড়ালের’ পাহারাদারির কারণে শেয়ার বাজারের মাধ্যমে টাকা তোলার দাবি জানাই না; টাকা তোলার ভিন্ন পন্হার প্রস্তাব পেশ করতে চাই।

কৃষিভিত্তিক বাংলাদেশে এখন পাওয়ার টিলারের রাজত্ব। গৃহস্হদের আংগিনা এখন গবাদিশুন্য। শিশুখাদ্য দুধ এখন ব্যয়বহুল এক বিলাসী পণ্য। এর মাঝে মুসলমানরা ফি বছর লাখ কুড়ি গরু-ছাগল ছুরির নীচে ফেলেন পবিত্র কোরবানির নামে। প্রায় এক কোটি মানুষ কোরবানি দেন। সংকট সমাধানে মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসে ’সুন্নতি’ উট। ’হিন্দু-বিদ্বেষীরা’ প্রতিবেশী ভারত থেকে চোরাই পথে রাতের আঁধারে আনেন ’বিধর্মী’ গরু। আর অধিকাংশ ক্রেতাই ঘুষ-লুটপাট-চোরা কারবারীর টাকায় ধর্মীয় ’কমিনটমেন্ট’ মেটান। পুরো প্রক্রিয়াটই এখন ধর্মীয় দায়-দায়িত্বের সীমানা পেরিয়ে সামাজিক স্ট্যাটাসে পরিণত হয়েছে। পাল্লা দিয়ে চলে আকাশচুম্বী দামের গরু-ছাগলের জবাই। এটিকে কোরবানি ভাবতে দিলে সায় দেয় না। কোরবানির টাকাটা সৎ উপার্জনের হতে হয়।

গেল কোরবানীর ঈদে আমি পশুর বদলে লোভ-লালসা ও অন্যায়কে কোরবান দেবার আহ্বান জানিয়েছিলাম। সেই আহ্বান-অনুরোধ অরণ্যে রোদন হয়েছে। এবার আমি থাকছি হুমায়ূনের আহ্বানের সাথে। আমার পরিবারে তিন নামের কোরবানি হয়। সব মিলিয়ে গেলো বছর লেগেছিলো প্রায় তিরিশ হাজার। এবার আরেকটু বেশী লাগবে নির্ঘাৎ। আমার স্ত্রী-পুত্রের কোরবানী দেওয়া না দেওয়ার সিদ্ধান্ত আমি নিতে অক্ষম। এই অধিকারটুকু আমার নেই। তবে নিজের কোরবানির ব্যাপারে আমার সিদ্ধান্ত নেবার পূর্ণ অধিকার আছে। ঠিক করেছি এবছর আমি কোরবানি দেবো না। আমার কোরবানির পনেরো হাজার টাকা আমি রেখে দিলাম হুমায়ূনের প্রস্তাবিত ক্যান্সার হাসপাতালের জন্যে। যতদিন বাঁচি ততোদিন আর কোরবানি না দিয়ে সেই টাকা দান করবো হুমায়ূনের স্বপ্ন দেখা ক্যান্সার হাসপাতালের জন্যে।

প্রত্যাশা করি মাত্র একলাখ মানুষ যদি চলতি বছর কোরবানির মাংস খাওয়ার লোভ কিংবা সামাজিক লজ্জ্বার ধিক্কার সামাল দিতে পারেন তাহলে অনায়াসে দেড়শ’ থেকে দুই শত কোটি টাকা যোগাড় হয়ে যায়। দিব্যি কাজ শুরু করা যেতে পারে এই টাকায়। ন্যূনতম পাঁচ বছর লাগবে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হতে। এর মাঝে নিঃসন্দেহে যোগাড় হয়ে যাবে হাজার কোটি টাকা। হুমায়ূন আপনার ফেরার চাতকী অপেক্ষায় থাকলাম। প্রত্যাশা করি স্বপ্ন পূরণের বাদবাকী দায়িত্বটুকুও আপনি স্কন্ধে নেবেন স্বেচ্ছায়।

মহৎ একটা উদ্যোগের জন্যে যদি কোরবানি না-দেবার ধর্মীয় ’গুনাহ’র ভাগীদার হতে হয়, আমি রাজী। আপনারা ?

ইমেলঃ abid.rahman@ymail.com
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #47  
Old November 4, 2011, 02:40 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

সাফল্য কথায় ‘আমার দেশ আমার গ্রাম’
শেরিফ আল সায়ার





গল্পের শুরু ২০০৬ সালে লন্ডনে। আতাউর রহমান ও সাদিকা হাসান সেজুতি সহ আরও কয়েকজন বন্ধু মিলে লন্ডনে শুরু করে ই-কর্মাস নির্ভর একটি প্রতিষ্ঠান। নাম দেওয়া হয় ‘ফিউচার সলিউশন ফর বিজনেস’। সেখানে সফলতার সাথে ব্যবসাকে দাঁড় করিয়ে ফেলেন। ইন্টারনেট ব্যবহার করে তারা পণ্য বেচা-কেনার কাজ শুরু করেন। খুব কম সময়ে সাফল্য পান।

কিন্তু হঠাৎ দেশের জন্য কিছু করার আগ্রহ দেখা দেয়। বিদেশে বসে বসে টাকা উপার্জনের চেয়ে দেশের জন্য কিছু করার আকাঙ্খাই মুখ্য হয়ে ওঠে। যেমন কথা, তেমন কাজ। দেশে ফিরে আসলেন। তারপরের গল্পটি ‘এলেন দেখলেন জয় করলেন’ এর মতোই। আতাউর-সাদিকার নেওয়া ই-কমার্সভিত্তিক ‘আমার দেশ আমার গ্রাম’ প্রকল্প কেবল সাফল্য পেয়েই ক্ষান্ত হয়নি। পেয়েছে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও। জাতিসংঘের যুব পুরস্কার পেয়েছে এই ‘আমার দেশ আমার গ্রাম’ প্রকল্প।

সেখানেও প্রতিযোগিতা কম ছিলো না। বিশ্বের ৯৯টি দেশের ৭০০ টি প্রকল্প জমা পড়েছিল। সেখান থেকে ১৯টি প্রকল্পের মধ্যে গত ২৯ সেপ্টেম্বর এ ‘আমার দেশ আমার গ্রাম’ কে রানারআপ ঘোষণা করা হয় ‘পাওয়ার টু ওমেন’ বিভাগের আওতায়।

৭টি উপজেলায় সফলভাবে এ প্রকল্পটি বাংলাদেশে ই-কমার্সের মাধ্যমে যে কোন পণ্য ন্যায্য মূল্যে বেচা-কেনা করে সফলতার মুখ দেখেছে বলেই এ অর্জন সম্ভব হয়েছে। আতাউর-সাদিকার জানালেন তাদের সাফল্যের পথে হেটে চলার কথা।

বললেন, ‘বাংলাদেশে এসে দেখি সবকিছুই শহর নির্ভর। তাই শহরের বাইরে কিছু করার তাগিদ অনুভব করলাম। কি করবো? চিন্তা করতেই সেই পুরানো প্রকল্পটিই এদেশে চালু করার সিদ্ধান্ত নেই। কিন্তু ই-কর্মাস শুরু করার জন্য শুধু শহরে বসে থাকলে হবে না। গোটা দেশে চালাতে হবে অভিযান। লন্ডনের প্রতিষ্ঠানটির নাম দিয়েই দেশে ২০০৯ সালে শুরু করলাম ই-কর্মাস প্রকল্প।’

শুরু করেন চারজন মিলে। এরা হচ্ছেন- নরুল রহমান খান, সাদিকা হাসান সেজুতি, আতাউর রহমান এবং শরীফুন হাসান। তথ্য-প্রযুক্তি নির্ভর যে কোনো কাজ শুরু করার আগে প্রয়োজন সুবিধামত জায়গা এবং কম্পিউটার। নিজের পয়সা দিয়েই মংলায় পরীক্ষামূলকভাবে ই-সেন্টার শুরু করেন। ওয়েব সাইটের নাম দেন ( www.amardesheshop.com )। জানান সেজুতি।

তবে এক্ষেত্রে প্রয়োজন স্থানীয় মানুষের সহযোগিতা ও অংশগ্রহণ। সেটা নিশ্চিত করতে সবাই একসঙ্গে কাজও শুরু করেন। কাজগুলোকে ভাগ করে নেন। পাশাপাশি স্থানীয় কিছু তরুণদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। যাতে করে তারাই ইন্টারনেটের মাধ্যমে বেচা-কেনা করতে পারে।

প্রকল্পটির অন্যতম সাদিকা হাসান সেজুতি বলেন, ‘শুরুতে একটু ভয় ছিল। কিন্তু স্থানীয় মানুষগুলো আগ্রহ নিয়েই আমাদের পাশে এসে দাঁড়ায়; তাই খুব একটা বেগ পেতে হয়নি।’ তিনি আরও জানান, ‘আমরা খেয়াল করলাম- মংলার অধিকাংশ নারীরাই নকশীকাঁথা সেলাই করে। আমরা তখন নকশীকাঁথার ছবি তুলে একটা দাম নির্ধারণ করে ওয়েবসাইটে তুলে দেই। দামের ক্ষেত্রে বেশকিছু বিষয় যোগ হয়; যেমন, গ্রাহকের সুন্দরবন সার্ভিসের মাধ্যমে পাঠালে সেটার দাম ধরা হয় এবং মূল দামের ১৫% অর্থ বেশি নেওয়া হয়। কারণ, সেখানে বসে যেসব ছেলে-মেয়েরা কাজগুলো করবে তাদের জন্য সম্মানি থাকে। এতে করে কিন্তু স্থানীয় পর্যায়ে কর্মসংস্থানও তৈরি হচ্ছে।’

পরীক্ষামূলক প্রকল্পটির সফলতা পেতে খুব বেশি দেরি হয়নি। মংলা উপজেলার মানুষজন উৎসাহিত হয়েই অংশ নেয়। তারা দেখতে পায় পণ্যের অর্থ তাদের কাছে সঠিকভাবেই পৌঁছাচ্ছে। যা আগে ছিল কল্পনারও বাইরে। এগুলো জানায় সেজুতি।

এভাবেই প্রকল্পটি বেড়ে ওঠে। নরসিংদী উপজেলায় কৃষকের সবজি কেনা-বেচার কাজটি পরীক্ষামূলকভাবে দেখেন। সেটাও সফল হয়। এভাবেই বর্তমানে বাংলাদেশের ৭টি উপজেলায় ‘আমার দেশ আমার গ্রাম’ প্রকল্পটির ই-শপ চালু হয়েছে। এসব ই-শপগুলো চলছে স্থানীয়দের সহায়তায়। এমনকি ই-শপের জন্য যে জায়গা প্রয়োজন হয়; সেটাও স্থানীয়রা দিয়েছেন।

ওয়ার্ল্ড সামিট ইয়ুথ এ্যাওয়ার্ড :

পৃথিবীতে যারা ই-কনটেন্ট নিয়ে কাজ করে; তারাই মূলত এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারে। বিশেষ করে ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নিজের দেশকে বদলে দেওয়ার চেষ্টা যারা করে; তাদের দিকেই নজর থাকে ওয়ার্ল্ড সামিট কমিউনিটির বিচারকদের।

জাতিসংঘ সদস্যদেশগুলোর কাছ থেকে বিভিন্ন বিভাগে প্রকল্প চাওয়া হয়। যেমন, দরিদ্র মানুষের সহযোগিতা করতে পারে এমন প্রকল্প, শিক্ষা ক্ষাতে, লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণ, শিশুদের সহযোগিতা ইত্যাদি।

নিজের দেশের উন্নতিতে অবদান রাখছে এমনসব প্রকল্পগুলোর মধ্য থেকেই গত ২৯ সেপ্টেম্বর ঘোষণা করা হয় ‘আমার দেশ আমার গ্রাম’ প্রকল্পটি রানারআপ হয়েছে।

প্রকল্পটির উদ্যোক্তাদের অন্যতম সাদিকা হাসান সেজুতি জানায়, ‘এ পুরস্কার আমাদের কাজটাকে স্বীকৃতি দিলো। আমরা ভবিষ্যতে বাংলাদেশের ৪৮০টি উপজেলায় প্রকল্পটি কার্যকর করার স্বপ্ন দেখছি। এতে করে, পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে থাকবে। সেই সাথে কৃষকরাও তাদের ন্যায্য মূল্য পাবে। তারাও দেখতে পাবে বাজারে তাদের পণ্য কত দামে বিক্রি হচ্ছে। মোট কথা ‘স্বচ্ছতা’ থাকবে।’

তিনি আরও জানান, বাংলাদেশের সব জায়গায় পৌঁছাতে হলে প্রয়োজন স্থানীয়দের সরাসরি অংশগ্রহণ। সরকারের সহযোগিতা ছাড়া তো সম্ভব না। তাই স্থানীয় এমপি , চেয়ারম্যানেরও সহযোগিতা প্রয়োজন। কেউ যদি আমাদের সাথে একসঙ্গে কাজ করতে চায়; তাহলে আমাদের এ উদ্যোগটি আরও বেগবান হবে। খুব তাড়াতাড়ি আমরা বাংলাদেশে ইন্টারনেটের একটা বাজার তৈরি করে ফেলতে পারবো।

আগমী ১০-১৩ নভেম্বর অস্ট্রিয়াতে এ পুরস্কার তাদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #48  
Old November 4, 2011, 02:49 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

সাদাসিধে কথা
ঘুরে দাঁড়ানোর সময়
মুহম্মদ জাফর ইকবাল | তারিখ: ২৬-০৮-২০১১

সাধারণত এসব দুর্ঘটনায় সাধারণ খেটে খাওয়া হতদরিদ্র মানুষ মারা যায়

আমি সিলেটে থাকি, মাঝে মাঝেই ঢাকায় যেতে হয়। পুরোনো একটা লক্কড়ঝক্কড় মাইক্রোবাসে আমি ঢাকায় যাই। আমার ড্রাইভার, যে এখন আমার পরিবারের একজন সদস্য হয়ে গেছে, খুব সাবধানে গাড়ি চালায়, কখনো কোনো ঝুঁকি নেয় না। তার পরও আমি সবিস্ময়ে আবিষ্কার করি, বিশাল দৈত্যের মতো বাস-ট্রাক প্রতিমুহূর্তে অন্য গাড়িকে ওভারটেক করার জন্য আমাদের লেনে চলে আসছে, আর মুখোমুখি সংঘর্ষ এড়ানোর জন্য আমাদের নিজের লেন ছেড়ে রাস্তার পাশে নেমে যেতে হচ্ছে। একবার-দুবার নয়, অসংখ্যবার। ঢাকা পৌঁছানোর পর কিংবা ঢাকা থেকে সিলেটে পৌঁছানোর পর আমি আমার মাকে ফোন করে বলি, নিরাপদে পৌঁছেছি। আমার মা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে ঘুমাতে যান।
অনেক দিন ভেবেছি, ব্যাপারটা নিয়ে কিছু একটা লিখি। তারপরই মনে হয়েছে, লিখে কী হবে। আমার মতো মানুষেরা, যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করি, তাদের নিয়ে দেশের বড় বড় হর্তাকর্তার কতটুকু মাথাব্যথা আছে? দেশের মন্ত্রী আগে-পিছে পুলিশের গাড়ি নিয়ে সাইরেন বাজাতে বাজাতে যখন এই পথ দিয়ে যান, তাঁরা কি কখনো কল্পনা করতে পারেন দেশের এই রাস্তা কত বিপজ্জনক? একটিবার, শুধু একটিবার যদি আমি কোনো একজন মন্ত্রীকে আমার লক্কড়ঝক্কড় মাইক্রোবাসে বসিয়ে ঢাকা থেকে সিলেট কিংবা সিলেট থেকে ঢাকায় আনতে পারতাম, তাহলেই সবকিছু অন্য রকম হতে পারে!

গত বছরের ডিসেম্বর মাসে গণিত অলিম্পিয়াডে সিলেট থেকে কুমিল্লায় যাচ্ছি। ভাড়া গাড়ি, ড্রাইভার অপরিচিত, আমি খুব সতর্ক হয়ে ড্রাইভারের প্রতিটি ওভারটেক, প্রতিটি মোড় লক্ষ করছি। কিছু বোঝার আগে হঠাৎ করে সে সামনে আরেকটি বাস কিংবা ট্রাককে মেরে বসল। গাড়ি টুকরো টুকরো হয়ে গেছে। আমার একজন সহকর্মী নিজের সিট থেকে উড়ে গিয়ে জানালার কাচে পড়েছেন। মাথা ফেটে রক্ত পড়ছে। আমরা গাড়ি থেকে নেমে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে কোনো একটা গাড়ি থামানোর চেষ্টা করছি আমাদের আহত সহকর্মীকে বাঁচানোর জন্য। দামি পাজেরো গাড়ি গতি কমিয়ে দুর্ঘটনায় টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়া গাড়িটাকে একনজর দেখে হুশ করে বের হয়ে যায়, থামে না। শেষ পর্যন্ত থামল একটা ট্রাক। ট্রাক ড্রাইভারের পাশে বসিয়ে রক্তাক্ত সহকর্মীকে হাসপাতালে নিয়ে গেলাম। তখন একবার ভেবেছিলাম কিছু একটা লিখি। পরে মনে হলো, কী হবে লিখে? প্রতিদিন কত মানুষ দুর্ঘটনায় মারা যাচ্ছে, আমরা তো শুধু আহত হয়েছি!

গত বছর জুলাইয়ের শেষে আরিচার রাস্তায় দুর্ঘটনায় রিজিয়া বেগম আর সিদ্দিকুর রহমান মারা গেলেন। দুজনই অত্যন্ত উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা। সিদ্দিকুর রহমান আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য ছিলেন। মাত্র কিছুদিন আগে আরেকটা দুর্ঘটনায় তাঁর দুজন মেয়ে মারা গিয়েছিল। রিজিয়া বেগমকে আমি অনেক দিন থেকে চিনি। গণিত অলিম্পিয়াড যখন শুরু হয়, তখন রাজবাড়ীতে একটা অলিম্পিয়াডে তিনি এসেছিলেন। বিটিসিএলের বোর্ড মিটিংয়ে তাঁর সঙ্গে অনেক মিটিং করেছি। যখন শুনতে পেয়েছিলাম একজন রিজিয়া বেগম মারা গেছেন, তখন মনে মনে দোয়া করেছি যেন অন্য কোনো রিজিয়া বেগম হয়। কিন্তু আমার দোয়া কাজ করেনি। খবরের কাগজে তাঁর ছবি দেখে বুকটা ভেঙে গিয়েছিল। কী ভয়ংকর একটি দুর্ঘটনা! মনে হলো, খবরের কাগজে একটু লিখি। তারপরই দীর্ঘশ্বাস ফেলে নিজেকে বলেছি, কী হবে লিখে? আমি এই দুজনকে চিনি বলে কষ্ট পেয়েছি। প্রতিদিন যে কত শত মানুষ মারা যাচ্ছে, তাদের আপনজনেরা কষ্ট পাচ্ছে, তখন কি আমি তাদের নিয়ে কিছু লিখেছি? সেই মৃত্যুগুলো কি শুধু একটা পরিসংখ্যান নয়?

জুলাই মাসের ১১ তারিখে মিরসরাইয়ে ট্রাক উল্টে ৪০ জনের বেশি বাচ্চা মারা গেল। কোনো মৃত্যুকেই কেউ কখনো গ্রহণ করতে পারে না, আর সেই মৃত্যু যখন হয় একটি শিশু কিংবা কিশোরের—তখন সেটি মেনে নেওয়া অসম্ভব হয়ে যায়। আর সে রকম মৃত্যু একটি-দুটি নয়, ৪০টির বেশি। আমার অনেক বড় সৌভাগ্য, আমার টেলিভিশন নেই! যদি থাকত তাহলে টেলিভিশনে স্বজন হারানো কান্না দেখে, ফুটফুটে বাচ্চাগুলোর নিথর দেহ দেখে আমি নিশ্চয়ই অস্থির হয়ে যেতাম। খবরের কাগজের পৃষ্ঠাগুলো দেখে আমার বুক ভেঙে গেছে। আমার মনে হয়েছে, পৃথিবীর অন্য যেকোনো দেশ হলে সেই দেশের যোগাযোগমন্ত্রী নিশ্চয়ই পদত্যাগ করতেন। সরকার টালমাটাল হয়ে যেত। আমাদের দেশে কিছুই হলো না। এই দেশ ৪০টি কিশোরকে ধীরে ধীরে ভুলে গেল। ভাবলাম, পত্রিকায় নিজের ক্ষোভটা লিখি—তার পরই মনে হলো, কী হবে লিখে?

আগস্টের ২ তারিখ ভোরবেলা আমার ফোন বেজে উঠেছে, আমার একজন সহকর্মী নরসিংদী বাস অ্যাকসিডেন্টের ভেতর থেকে ফোন করেছে। হাউমাউ করে কাঁদতে কাঁদতে বলছে, ‘স্যার, চারদিকে শুধু লাশ আর লাশ!’ না, কোনো শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নয়, একজন রিকশাওয়ালা আমার সহকর্মীকে ধ্বংসস্তূপ থেকে টেনে বের করে হাসপাতালে নিয়ে গেছে। তাকে বসিয়ে বলেছে, আমি যাই, অন্যদের নিয়ে আসি।’ আমাদের যোগাযোগমন্ত্রীদে দেখে (কিংবা নৌপরিবহনমন্ত্রী কিংবা অন্য মন্ত্রী) যখন আমরা দীর্ঘশ্বাস ফেলি, ঠিক তখনই আমরা দেখি, এই রিকশাওয়ালার মতো মানুষজন চারপাশে আছে বলেই দেশটি টিকে আছে। মন্ত্রী মহোদয়রা এই দেশটিকে ধরে রাখেন না—এই রিকশাওয়ালার মতো মানুষেরা দেশটাকে বুক আগলে ধরে রাখেন। আমার সহকর্মীকে ঢাকার হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করার সময় খবর পেলাম ১৬ জন মারা গেছে। অন্য সব দুর্ঘটনার মতো এটাও মুখোমুখি সংঘর্ষ। আমার মনে হলো, কিছু একটা লিখি। আবার মনে হলো, কী হবে লিখে? সেই একই দিনে একই রাস্তায় অন্য একটি দুর্ঘটনায় আরও একটি পরিবার শেষ হয়ে গেছে, আমি কি তাদের নিয়ে দুর্ভাবনা করেছি? করিনি। স্বার্থপরের মতো শুধু নিজের আপনজনের কথা লিখব?

আগস্টের ১৩ তারিখ একটা আনন্দানুষ্ঠানে বসে আছি। তখন একটা এসএমএস এল, গাড়ি দুর্ঘটনায় তারেক মাসুদ মারা গেছেন। দুর্ঘটনায় আহত হলে যত কমই হোক, কিছু একটা আশা থাকে—‘মারা গেছে’ কথাটি এত নিষ্ঠুর, সবকিছু শেষ। আমার পাশে আমার স্ত্রী বসে ছিল। তারেক মাসুদ ও ক্যাথরিন মাসুদ আমাদের বহুদিনের পরিচিত, সেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রবাসজীবন থেকে। তাকে খবরটা দিতে হবে—আমি তবু চুপচাপ বসে রইলাম। যদি পাঁচ মিনিট পরও দিই, তাহলে সে মানুষ পাঁচ মিনিট পরে কষ্ট পাবে!

আমি প্রতিদিন অনেকগুলো খবরের কাগজ পড়ি। তারেক মাসুদের মৃত্যুর পরের দিন আমি খবরের কাগজগুলো পড়তে পারিনি। ভাঁজ করে সরিয়ে রেখেছি। যেন খবরের কাগজ সরিয়ে রাখলেই কষ্টটা সরিয়ে রাখা যায়। আমার মনে হলো, কিছু একটা লিখি। প্রথমবার আমি লিখতে বসেছি—কী লিখব? একটি কথাই লেখার আছে, যদিও আমি প্রতিটি ঘটনার সময় ‘দুর্ঘটনা’ শব্দটি ব্যবহার করেছি। আসলে এর একটিও কিন্তু দুর্ঘটনা নয়, প্রতিটি একধরনের হত্যাকাণ্ড।

২.
আমরা যে পাকিস্তানকে ছুড়ে ফেলে দিয়ে নিজের দেশকে স্বাধীন করেছি, সেটা হচ্ছে আমাদের সবচেয়ে বড় অর্জন। আমি প্রতিদিন যখন খবরের কাগজ খুলি, তখন চোখে পড়ে পাকিস্তানের কোথাও না কোথাও কোনো জঙ্গি, কোনো তালেবান বোমা মেরে ৩০-৪০ জন মানুষকে মেরে ফেলেছে। পাকিস্তান নামক এই দুর্ভাগা দেশটিকে দেখে এখন আমার করুণা হয়।
আমাদের দেশে জঙ্গিদের উৎপাত নেই। খবরের কাগজে জঙ্গিদের খবর আসে না তা নয়; কিন্তু সেগুলো হচ্ছে তাদের ধরার খবর। এই দেশের মানুষ জঙ্গি বা মৌলবাদকে কখনো প্রশ্রয় দেয়নি, কখনো দেবে না। এই দেশে জঙ্গিদের হাতে প্রতিদিন ৩০-৪০ জন মানুষ নৃশংসভাবে মারা যায় না।
কিন্তু প্রতিদিন দুর্ঘটনায় ৩০-৪০ জন মারা যায়। তাহলে পাকিস্তানের সঙ্গে আমাদের পার্থক্য কী থাকল? খবরের কাগজে মৃত্যুর খবরটা পরিসংখ্যান হিসেবে দেখে দেখে আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি। কখনো খেয়াল করি না যে প্রতিটা মৃত্যুই আসলে কোনো না কোনো পরিবারের আপনজন হারানোর হাহাকার। সেই হাহাকারগুলো কত মর্মন্তুদ হতে পারে, সেটা আমরা তারেক মাসুদ কিংবা মিশুক মুনীরের মৃত্যু দিয়ে বুঝতে পারি। দুর্ঘটনায় সবচেয়ে বেশি মারা যায় দেশের সাধারণ মানুষ। একেকটি মৃত্যুতে একেকটা পরিবার ধ্বংস হয়ে যায়। যারা আহত হয়ে বেঁচে থাকে, তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে গিয়ে একেকটি পরিবার সর্বস্বান্ত হয়ে যায়। এই দেশের অর্থনীতির ওপর এর চাপ নিয়ে আলোচনা হয়, কিন্তু মানবিক বিপর্যয়ের কথাটি কি কেউ ভেবে দেখবে না?

৩.
নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান কিছুদিন আগে কোনো রকম পরীক্ষা ছাড়াই ২৪ হাজার ড্রাইভিং লাইসেন্স চেয়েছেন। তিনি নৌপরিবহনমন্ত্রী, যদি লঞ্চের সারেং চাইতেন, আমি বুঝতে পারতাম। রাস্তায় গাড়ি চালানোর ড্রাইভার চাওয়ার অধিকার তিনি কোথা থেকে পেয়েছেন, আমি সেটা বুঝতে পারছি না। বিষয়টা অনেকটা অশিক্ষিত ২৪ হাজার মানুষকে স্কুলের মাস্টার করে দেওয়ার জন্য শিক্ষামন্ত্রীর কাছে আবদার করার মতো। (তিনি সম্ভবত যুক্তি দিতে পারতেন, মাস্টারদের লেখাপড়া জানতে হবে কে বলেছে? বইয়েই তো সব লেখা আছে, মাস্টাররা ছাত্রদের পেটাবে, ছাত্ররা পড়বে!)
নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের কথায় দেশের মানুষ অসম্ভব বিরক্ত হয়েছে—পত্রপত্রিক খুললে কিংবা কম্পিউটার স্পর্শ করলেই সেটা বোঝা যায়। আমি কিন্তু তাঁর কথায় খুব খুশি হয়েছি দুই কারণে। প্রথম কারণটি হচ্ছে, যে কথাটা দেশের মানুষকে বোঝাতে আমাদের জান বের হয়ে যেত, সেই কাজটি মন্ত্রী মহোদয় আমাদের জন্য খুব সহজ করে দিয়েছেন। আমরা এখন তাঁর দিকে আঙুল তুলে দেখিয়ে বলতে পারি, এটাই হচ্ছে সমস্যা! একজন মন্ত্রী যদি বিশ্বাস করেন যে গাড়ির স্টিয়ারিং ঘুরিয়ে গাড়িকে ডানে-বাঁয়ে নিতে পারাটাই হচ্ছে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার একমাত্র যোগ্যতা, তাকে নিয়মকানুন কিছুই জানতে হবে না, গরু ও ছাগলের পার্থক্যটা জানলেই হবে, তাহলে আমরা কেন রাস্তাঘাটের বাস-ট্রাকের ড্রাইভারদের দোষ দিই? তাদের বেশির ভাগই তো গাড়িটা চালাতে পারে, ট্রাফিক আইন কী, সেটা কেন মানতে হবে তার বিন্দুবিসর্গ জানে না, জানার প্রয়োজন আছে, সেটাও জানে না। যারা জানত তাদেরও মন্ত্রী মহোদয় বলে দিয়েছেন, আর জানার প্রয়োজন নেই।
বেশ কিছুদিন আগে আমি নামীদামি একটা বাস কোম্পানির দামি ভলভো বাসে করে যাচ্ছি। দেখতে পেলাম, বাস ড্রাইভার অন্য গাড়ি ওভারটেক করার জন্য একটু পর পর পাশের লেনে উঠে সামনের দিক থেকে ছুটে আসা গাড়িকে সরে যেতে বাধ্য করছে। কিছুক্ষণ পর ব্যাপারটা আমার আর সহ্য হলো না, আমি ড্রাইভারের কাছে গিয়ে বললাম, ‘এই বাম দিকের লেনটি আপনার, আপনি এই লেন দিয়ে যাবেন। ডান দিকের লেনটি যারা আসছে তাদের জন্য। কাউকে ওভারটেক করার জন্য আপনি ডান দিকের লেনে উঠতে পারবেন শুধু যখন এটা ফাঁকা থাকবে তখন। এই লেনে যদি একটা মোটরসাইকেলও থাকে, আপনি তখন ওখানে উঠতে পারবেন না। বুঝেছেন?’
বাসের ড্রাইভার কিছুক্ষণ আমার দিকে হতভম্বের মতো তাকিয়ে রইল; তারপর বলল, ‘স্যার, আমি এত বছর থেকে বাস চালাই, আপনার আগে আমাকে কেউ এই কথা বলে নাই!’
আমি এবার ড্রাইভারের দিকে হতভম্ব হয়ে তাকিয়ে রইলাম। শুনে অবিশ্বাস্য মনে হতে পারে, কিন্তু এই হচ্ছে অবস্থা। আমাদের দেশে প্রতিদিন ৩০ থেকে ৫০ জন সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। সৃষ্টিকর্তার এই দেশের জন্য একধরনের মায়া আছে, সেই জন্য সংখ্যাটি মাত্র ৩০ থেকে ৫০। প্রকৃত সংখ্যাটি হওয়ার কথা তার থেকে ১০ গুণ বা ১০০ গুণ বেশি। এই দেশে প্রতিমুহূর্তে কোনো না কোনো রাস্তায় দুটি গাড়ি মুখোমুখি ছুটে আসতে আসতে শেষ মুহূর্তে একেবারে এক সুতো ব্যবধানে পাশ কাটিয়ে চলে যাচ্ছে—পৃথিবীর আর কোথাও এত ভয়ংকরভাবে গাড়ি চালানো হয় না।
নৌপরিবহনমন্ত্রী বলেছেন, ড্রাইভারদের লেখাপড়া জানার দরকার নেই, গরু ও ছাগলের পার্থক্য জানলেই হবে! (কেন গরু আর ছাগল বলেছেন, সেটি এখনো রহস্য, যদি বলতেন বাস আর ট্রাকের পার্থক্য জানলেই হবে কিংবা ক্যাব আর টেম্পোর পার্থক্য জানলেই হবে, কিংবা রিকশা আর স্কুটারের পার্থক্যটা জানলেই হবে—তাহলেও একটা কথা ছিল।) মন্ত্রী মহোদয় নিশ্চয়ই জানেন না গাড়ি চালানোর অন্তত দুই ডজন নিয়ম আছে, যেগুলো পড়ে শিখতে হয় (রাস্তায় কোন ধরনের চিহ্ন থাকলে কোন দিকে যেতে হয় ইত্যাদি)। অন্তত ৩০টা জরুরি আইন আছে, গতিসীমা লিখে দেওয়ার ব্যাপার আছে। যে মানুষটি লেখাপড়া জানে না এবং এই বিষয়গুলো না জেনে একটা ড্রাইভারস লাইসেন্স পেয়ে যাচ্ছে, তার সঙ্গে একজন সন্ত্রাসীর হাতে একটা ধারালো কিরিচ তুলে দেওয়ার মধ্যে পার্থক্য কোথায়? আমি এই কথাগুলো লিখছি এবং ভাবছি, কী বিচিত্র এই দেশ: একজন মন্ত্রী সম্পূর্ণ বেআইনি একটা বিষয়ের আবেদন করছেন এবং কেন তিনি সেটা করতে পারেন না, আমাকে সেটা লিখতে হচ্ছে! বেআইনি কাজ করা যদি অপরাধ হয়, তাহলে বেআইনি কাজ করার জন্য প্রকাশ্য ঘোষণা দেওয়া কি অপরাধ নয়?
আমি বলেছিলাম নৌপরিবহনমন্ত্রীর এই বেআইনি আবদার শুনে আমি খুব খুশি হয়েছিলাম দুটি কারণে। প্রথম কারণটি বলা হয়েছে, দ্বিতীয় কারণটি খুবই সহজ। এই মুহূর্তে নানা কিছু মিলিয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার খুব ঝামেলার মধ্যে আছে। গায়ে পড়ে আদিবাসী বিতর্কটা উসকে দিয়েছে, রাস্তাঘাট ভাঙা, ঈদে বাড়ি যাওয়ার কোনো উপায় নেই, সড়ক দুর্ঘটনায় দেশের প্রিয় মানুষগুলোর মৃত্যু—সেই অবস্থায় নৌপরিবহনমন্ত্রীর উদ্ভট বক্তব্য। এই সরকার নিশ্চয়ই এই অবস্থা থেকে বের হয়ে আসতে চাইছে—অন্তত কিছুদিনের জন্য হলেও দেশের মানুষের দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরাতে চাইছে। নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সেই অপূর্ব সুযোগটি করে দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এখন নৌপরিবহনমন্ত্রীক মন্ত্রিপরিষদ থেকে সরিয়ে দিয়ে সারা দেশের মানুষের বাহবা পেতে পারেন। তাঁর সঙ্গে সঙ্গে যদি যোগাযোগমন্ত্রীকে সরিয়ে দেন, তাহলে তো কথাই নেই। ঈদের ছুটিতে যারা বাড়ি যেতে পারবে না কিংবা যারা বাড়ি যেতে গিয়ে ক্ষত-বিক্ষত হয়ে যাবে, অন্তত তাদের বুকের জ্বালা একটু হলেও মিটবে।
খবরের কাগজে দেখছি, সবাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই ঈদের উপহারটি চাইছে। আমার ধারণা, এটি আসলেই দেশের মানুষের জন্য চমৎকার একটা উপহার হতে পারে!

৪.
সড়ক দুর্ঘটনা—কিংবা যদি ঠিক ঠিক বলতে চাই, তাহলে, ‘সড়ক হত্যাকাণ্ড’ আমাদের দেশের অনেক বড় একটা সমস্যা। আমার মতে সবচেয়ে বড় সমস্যা। পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে বছরে ১২ থেকে ২০ হাজার মানুষ সড়ক দুর্ঘটনা কিংবা সড়ক হত্যাকাণ্ডে মারা যায় বলে জানা নেই। প্রতিদিনই মানুষ মারা যাচ্ছে কিন্তু আমরা সেটা নিয়ে বিচলিত হই না। হঠাৎ করে তারেক মাসুদ বা মিশুক মুনীরের মতো কোনো প্রিয়জন যখন মারা যায়, আমরা তখন চমকে উঠি। যেদিন মানিকগঞ্জের সেই দুর্ঘটনায় তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন মারা গিয়েছিল, সেই খবরটির নিচে আরও একটি দুর্ঘটনায় আরও পাঁচজন মারা গিয়েছিল—সেই খবরটি কিন্তু আমাদের চোখেও পড়েনি। আমাদের অনুভূতি ভোঁতা হয়ে গেছে। সাধারণত এসব দুর্ঘটনায় সাধারণ খেটে খাওয়া হতদরিদ্র মানুষ মারা যায়, সেই মৃত্যুর কথা কারও চোখেও পড়ে না। তাই বছরে ১২ থেকে ২০ হাজার মৃত্যুর পরও কোনো সরকারের কোনো দিন টনক নড়েনি। আমি মোটামুটি নিশ্চিত, এই সরকারেরও টনক নড়বে না। যদি নড়ত, তাহলে যে দুজন মন্ত্রী দেশের মানুষকে ক্ষিপ্ত করে তুলেছেন, তাঁরা নিজেরাই পদত্যাগ করে বিদায় নিতেন। সে রকম কিছু ঘটেনি। দেশের মানুষ শোকসভা, শোকমিছিল, মানববন্ধন করছে। আমি যে রকম খবরের কাগজে লিখছি, সে রকম কিছু অর্থহীন কথা লেখা হবে এবং একসময় সবাই ভুলে যাবে।
কিন্তু এ রকম হতে হবে কে বলেছে? অন্য রকম কিছুও তো হতে পারে? বছরের পর বছর হাজার হাজার মানুষ দুর্ঘটনায় মারা গেছে, লাখো মানুষ দুর্ঘটনায় পঙ্গু হয়েছে, আমরা কেউ গা করি না। ইলিয়াস কাঞ্চন একা নিরাপদ সড়ক চেয়ে আন্দোলন করে যাচ্ছেন, আমরা তাঁর পাশে গিয়ে দাঁড়াইনি। তারানা হালিমকে আমি সংসদে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কথা বলতে শুনেছি, পরীক্ষা ছাড়া ড্রাইভিং লাইসেন্স দিয়ে মানুষ হত্যা করার লাইসেন্স দেওয়া হলে তিনি আমরণ অনশন করবেন বলে হুমকি দিয়েছেন। অন্যরা কোথায়? সরকার যেহেতু কিছু করবে না, তাহলে দেশের মানুষ কি সবাই মিলে একত্র হতে পারে না? পত্রিকায় হালকা কলম লেখা বিশেষজ্ঞের পরিবর্তে সত্যিকারের বিশেষজ্ঞরা একত্র হতে পারেন না? ট্রাফিক আইন মানানোর জন্য পুলিশকে জোর করে হাইওয়েতে নামানো যায় না? একটা দুর্ঘটনা হলেই বাসমালিক, বাস ড্রাইভার, যোগাযোগ মন্ত্রণালয়—সবার বিরুদ্ধে মামলা করা যায় না? আমি নিশ্চিত, সবাই মিলে একত্র হলে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বিভীষিকাকে নিশ্চয়ই ঠেকানো সম্ভব।
মে মাসের শেষে আমি যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলাম। প্লেনে ওঠার সময় আমাদের ক্যাথরিনের সঙ্গে দেখা। ফুটফুটে বাচ্চাটিকে নিয়ে দাঁড়িয়ে তারেক মাসুদের জন্য অপেক্ষা করছে। বিদেশি মেয়ে অথচ কী সুন্দর বাংলা বলে। বহুদিন থেকে তাকে আমরা আমার দেশের মানুষ হিসেবেই ধরে নিয়েছি। বাচ্চাটিকে আদর করে প্লেনে উঠেছি, একটু পর তারাও উঠেছে। তারেক মাসুদ পিঠে একটা ব্যাকপ্যাক নিয়ে হেঁটে যাচ্ছে। সেই আমার শেষ দেখা।
তারেক-ক্যাথরিনের ছোট্ট বাচ্চাটি একদিন বড় হবে। আমার খুব ইচ্ছে, তখন তাকে আমরা বলব, ‘তুমি জানো, তোমার আব্বু ছিল অসম্ভব সুদর্শন একজন মানুষ! এই দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য তার বুকের মাঝে ছিল অসম্ভব ভালোবাসা। একদিন গাড়ি অ্যাকসিডেন্টে সে তার প্রাণের বন্ধুদের নিয়ে মারা গেল। তখন সারা দেশের মানুষ খেপে উঠে বলল, এই দেশে গাড়ি অ্যাকসিডেন্টে আর কাউকে মরতে দেওয়া হবে না। দেশের মানুষ তখন পুরো দেশটাকে পাল্টে দিল। এখন আমাদের দেশে আর গাড়ি অ্যাকসিডেন্টে মানুষ মারা যায় না!’ আমরা তখন ছোট শিশুটির মাথায় হাত দিয়ে বলব, ‘তুমি তোমার আব্বুকে হারিয়েছ। কিন্তু তোমার আব্বুর জীবন দেওয়ার কারণে এই দেশের আর কোনো শিশুর আব্বু এভাবে মারা যায় না।’
আমার খুব ইচ্ছে, আমরা এই ছোট শিশুকে একদিন এই কথাগুলো বলি। সবাই মিলে চাইলে কি বলতে পারব না?

মুহম্মদ জাফর ইকবাল: লেখক। অধ্যাপক শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #49  
Old November 4, 2011, 02:52 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

হেরে যাওয়াকে ভয় পেও না: মার্টিন কুপার
শেরিফ আল সায়ার

বর্তমান বিশ্বকে বলা হয় মোবাইল বিশ্ব। ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়নের হিসাব অনুযায়ী ৫৩০ কোটি মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে। অথচ এ যন্ত্রটির উদ্ভাবকের কথা খুব কম মানুষই জানে। প্রথম মোবাইল ফোন তৈরি করেন মার্টিন কুপার।

কুপার ১৯৫০ সালে ইলিনিয়স ইনিস্টিটিউট অব টেকনোলজি থেকে ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ব্যাচেলর ডিগ্রি অর্জন করেন।

পড়াশোনা নিয়ে মার্টিন বলেন, আমি যখন ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে গেলাম তখন থেকেই সবগুলো বিষয়ের উপর আমার আগ্রহের কমতি ছিল না। কুপার আরও বলেন, কোন যন্ত্র কিভাবে কাজ করে তা বের করার চেষ্টা করি। একই সাথে কিভাবে যন্ত্রটি দিয়ে আরও সুবিধা পাওয়া যায়, সে চেষ্টাও করতাম। এছাড়াও ইউএস নেভিতে কাজ করার অভিজ্ঞতা মার্টিন ভুলতে পারেন না। তিনি মনে করেন, টিম ওয়ার্ক এবং নেতৃত্ব দিয়ে কিভাবে কোন কাজকে সফলতায় রুপান্তরিত করা যায় সে বিষয়ে সব কলাকৌশল তিনি ইউএস নেভিতে কাজ করতে গিয়ে শিখেছেন।

মোবাইল ফোন উদ্ভাবনের কথা কিভাবে মাথায় আসলো? এই প্রশ্ন বহুবারই তাকে বহুজনে করেছে। তিনি উত্তরে বলেছেন, যখন মটোরোলাতে পারসোনাল কমিউনিকেশন বিভাগে কাজ করতেন, তখন দেখতেন টেলিফোনে কথা বলতে হয় তারের মাধ্যমে। তারহীন বা ওয়্যারলেস প্রযুক্তি কিভাবে কাজে লাগানো যায়, সেই বিষয় নিয়ে গবেষণা শুরু করলেন। একই সময় যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা এটিঅ্যান্ডটি ঘোষণা দিল, তারা ‘কার টেলিফোন’ নামে একটি বেতার টেলিফোন ডিভাইস তৈরি করছে। কিন্তু এটিঅ্যান্ডটির কার টেলিফোনকে পেছনে ফেলে কুপার বাজারে আনলেন ‘হ্যান্ডহ্যাল্ড মোবাইল ফোন’।

নতুন প্রজন্মের জন্য তিনি সবসময় বলেন, আউট অব দ্যা বক্স চিন্তা করার কথা। বিশ্ববিদ্যালয় পড়া অবস্থায় গবেষণার গুরুত্বের কথাও বহুবার বলেছেন। তার দৃষ্টিতে, কোন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান স্বল্প সময়ের জন্য গবেষণা করে থাকে। প্রতিষ্ঠানের কাজ হলো তার নিজস্ব প্রডাক্ট নিয়ে কাজ করা। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা একদম ভিন্ন। তাদের সুযোগ আছে নির্দিষ্ট কোন বিষয়ে না থেকে বহু বিষয়ে গবেষণা করার। আসলে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাটাকেই বলা যেতে পারে সত্যিকার অর্থে গবেষণা। তারা ব্যবহারকারী হিসেবে গবেষণা করে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবহারকারীর জন্য গবেষণা করে। তাই দুটি গবেষণা সম্পূর্ণ ভিন্ন।

প্রযুক্তি বিশ্বের আইকন হিসেবে একবার একজন তাকে প্রশ্ন করেছিল- সফলতা কিভাবে পাওয়া যেতে পারে? তিনি এক বাক্যে বলেছিলেন- ‘এগিয়ে যাও। হেরে যাওয়াকে ভয় পেও না।’

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩২ ঘণ্টা, আগস্ট ৯, ২০১১
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
  #50  
Old November 4, 2011, 02:55 PM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

তরুণ প্রজন্মই দেশটাকে পাল্টে দেবে: রিটন

লুৎফর রহমান রিটন জনপ্রিয় ছড়াকার। আশি ও নব্বইয়ের দশকে নিজেকে সাহিত্যের এই ভিন্ন ধারায় প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ২০০১ এ জাপান দূতাবাসে ফার্স্ট সেক্রেটারি (প্রেস) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সরকার পরিবর্তনের পর চাপের মুখে রিটন ২০০২ সালের এপ্রিলে কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় নেন। সে সময় থেকেই তিনি কানাডাতেই অবস্থান করছেন। তবে ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তিনি তার পাসপোর্ট ফিরে পান এবং প্রায় সাত বছর পর দেশে আসেন।

লুৎফর রহমান রিটনের প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ১০০। প্রতিবছরই বইমেলায় তার ৩/৪ টা বই প্রকাশিত হয়। পুরস্কার পেয়েছেন অসংখ্য। তার মধ্যে ১৯৮৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পুরস্কার এবং ২০০৭ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার উল্লেখযোগ্য।

এ বিশিষ্ট ছড়াকারের সঙ্গে ছড়া নিয়ে তার ভাবনা, দেশ, রাজনীতি ও তরুণ প্রজন্মের সম্ভাবনা নিয়ে অনলাইন আড্ডায় কথা বলেছেন স্বপ্নযাত্রার বিভাগীয় সম্পাদক শেরিফ আল সায়ার।

১. ছড়াকার হবেন এমনটা কি কোনদিন ভেবেছিলেন?

লুৎফর রহমান রিটনঃ ছেলেবেলায় আসলে হতে চেয়েছিলাম শিল্পী। আর্টিস্ট। প্রচুর ছবি আঁকতাম। খারাপ ছিলো না কিন্তু আমার ছবি আঁকার হাত। শঙ্কর ইন্টারন্যাশনাল এ্যাওয়ার্ডসহ বেশ কয়েকটা আন্তর্জাতিক পুরস্কারও পেয়েছিলাম পিচ্চিকালে। ছড়াকার হবো ভাবি নি। কিন্তু নিয়তি আমাকে আঁকিয়ে হতে দেয়নি। হতে চাইলাম আর্টিস্ট আর হলাম কি না ছড়াকার! কোনো মানে হয়?

আসলে, একেকটা মানুষ একেকটা দায়িত্ব নিয়ে পৃথিবীতে আসে। আমার মনে হয় আমার ওপর অর্পিত ছিলো ছড়ার দায়িত্ব। ওটা আমি নিতে চাইনি কিন্তু নিয়তি আমার কাঁধে ছড়ার বোঝাটা ঠিক ঠিক চাপিয়ে দিয়েছে। ও থেকে আমার আর নিস্তার নেই। এইটা বুঝে গিয়েছিলাম বলেই আর গাঁইগুঁই করিনি। শেষমেশ মেনেই নিয়েছি প্রকৃতির বিধান।

২. ছোটদের নিয়ে আপনার জনপ্রিয় একটি পত্রিকা ছিল। নাম ছিল ‘ছোটদের কাগজ’। ছোকা বন্ধ হয়ে গেলো কেন?

লুৎফর রহমান রিটনঃ ‘ছোটদের কাগজ’ ছিলো আমার স্বপ্নের পত্রিকা। শিশুদের অনিন্দ্যসুন্দর ঝলমলে একটি পৃথিবীর স্বপ্ন দেখি আমি। আর সেই কারণেই সম্পূর্ণ নিজের টাকায় বের করেছিলাম মাসিক পত্রিকাটি। পত্রিকাটি জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো, পাঠকপ্রিয়তাও পেয়েছিলো।

কিন্তু শুধুমাত্র পাঠকপ্রিয়তার ওপর নির্ভর করে একটি পত্রিকা বেঁচে থাকতে পারে না। সরকারি বেসরকারি সহায়তা লাগে। বিজ্ঞাপন লাগে। আমি সরকারি বেসরকারি কোনো সহায়তা পাইনি। পাঁচ ছয় বছর পর এক সময় টের পেলাম ‘ছোটদের কাগজ’ পত্রিকাটি বের করতে গিয়ে আমি প্রায় নিঃস্ব হয়ে গেছি!

আমার স্ত্রীর কিছু মূল্যবান অলংকার ছিলো, সেগুলোও বিক্রি করে ফেলেছিলাম পত্রিকাটি বের করতে গিয়ে। তো এক পর্যায়ে মধ্যবিত্তের অনিবার্য গ্লানিময় পরাজয়ের মুকুটটি আমার মাথার ওপর চেপে বসে ব্যর্থতার ব্যান্ড বাজাতে আরম্ভ করলো। আমি নিঃশ্ব হলাম। পত্রিকাটিও মরে গেলো।

৩. বাংলাদেশের তরুণ ছড়াকারদের ভবিষ্যত কেমন দেখতে পান?

লুৎফর রহমান রিটনঃ খুব খারাপ। আমি আমার নিজের পরিণতি থেকে যে প্রভূত জ্ঞান অর্জন করেছি তার সুবাদেই বললাম কথাটা! তবে তুমি যদি বাংলাদেশের তরুণ ছড়াকার বন্ধুদের রচিত ছড়ার ভবিষ্যতকে মিন করে থাকো তাহলে বলবো খুব ভালো। অসাধারণ আর চমৎকার সব ছড়া লিখছে তরুণরা। বাংলাদেশের তরুণ ছড়াকারদের ছড়ার ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।

৪. মুক্তিযুদ্ধের সময় কিংবা বলতে পারেন স্বৈরাচার শাসকের সময় আমরা দেখতে পেতাম আপনাদের প্রজন্ম ব্যঙ্গ ছড়া বা ব্যঙ্গ রম্য রচনা লিখে প্রতিবাদ জানাতো। কিন্তু বর্তমান সংকটকালের সময় তেমন ব্যঙ্গাত্বক ছড়া বা রম্য রচনা আমরা দেখতে পাই না। এ বিষয়ে আপনি কি মনে করেন? তার মানে কি গত একদশকে আমাদের প্রতিবাদী ছড়াকার তৈরি হয়নি?

লুৎফর রহমান রিটনঃ গত একদশকে আমাদের প্রতিবাদী ছড়াকার তৈরি হয়নি কথাটা পুরোপুরি মানতে না পারলেও মানতেই হবে যে অতীতের তুলনায় সংখ্যাটা একেবারেই নগণ্য। এর একটা সমাজতাত্ত্বিক কারণ সম্ভঃবত চলমান বাস্তবতায় ক্রমশ মানুষের পাল্টে যাওয়া। আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাওয়া। স্বার্থপর হয়ে যাওয়া। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত শ্রেণীটির।

গত এক দেড় দশকে আমাদের মধ্যবিত্ত শ্রেণীটি ক্রমান্বয়ে চরিত্র বদল করেছে। চারিত্র্য বদল হয়ে গেছে মধ্যবিত্তের। মুশকিল হলো শিল্প-সাহিত্য-রাজনীতি-সমাজ সবকিছুই পাল্টায় মধ্যবিত্তের হাত ধরে। এই শ্রেণীটির দায় অনেক। আমাদের নষ্ট রাজনীতি আর লোভী ‘অদেশপ্রেমিক রাজনীতিবিদ’রা এই মধ্যবিত্ত শ্রেণীটির বিশাল একটি অংশকে তাদের কব্জায় নিয়ে নিয়েছে। যে কারণে চারপাশে এতো এতো নির্দয় আর অমানবিক নিষ্ঠুর মানুষ গিজগিজ করছে। এর একটা প্রত্যক্ষ প্রভাব আমরা রাজনীতিতে দেখতে পাচ্ছি। শিল্প-সাহিত্যেও কিছুটা ছিটেফোঁটা লেগে থাকবে হয়তো।

আর সে কারণেই কোনো দৃশ্যমান প্রতিবাদী ছড়াকারের দেখা আমরা পাচ্ছিনা। হয় সে ভয় পাচ্ছে কিংবা সে প্রাপ্তিসম্ভাবনা কাছে আত্মসমর্পণ করছে। কিন্তু তারপরেও আমি হতাশ নই বন্ধু। সংখ্যায় অপ্রতুল হলেও তারা আছে। ব্যক্তি-সমাজ-রাষ্ট্র-সরকারের যাবতীয় পতনের ঘনঘোর কৃষ্ণপক্ষকালে, দেশের যে কোনো দুর্যোগে দুঃসময়ে ছড়াকাররাই প্রথম প্রতিবাদ করে, ইতিহাস তো সেই স্বাক্ষ্যই দেয়।

৫. সবাই বলে, তরুণ প্রজন্ম নাকি পুরো দেশটাকে পাল্টে দেবে। আসলেই কি তাই? কি এমন বিশেষত্ব আছে এ প্রজন্মের মাঝে?

লুৎফর রহমান রিটনঃ আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি যে তরুণ প্রজন্মই একদিন পুরো দেশটাকে পাল্টে দেবে। এই উপমহাদেশকে ব্রিটিশদের কবল থেকে মুক্ত করেছিলো যাঁরা তাঁদের সিংহভাগই ছিল তরুণ প্রজন্মের।

ক্ষুদিরাম, প্রফুল্ল চাকী, বিনয়-বাদল-দীনেশ, সূর্যসেন, প্রীতিলতা এইরকম গুচ্ছ গুচ্ছ নাম আমরা স্মরণে আনতে পারি। ঊনসত্তুরের গণঅভ্যূত্থানে লৌহমানব আইয়ূব খানকেও পরাভূত করেছিলো তরুণরাই। আসাদ কিংবা মতিউরের নাম আমরা স্মরণে আনতে পারি। আমাদের ভাষা আন্দোলনেও আত্মত্যাগ তরুণদেরই। বরকত, রফিক, শফিউর, জব্বার, সালামদের কথা আমরা স্মরণে আনতে পারি। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে তরুণদের রক্ত আর অকাতরে তাঁদের জীবন উৎসর্গের অপরূপ উপাখ্যান রচিত হয়েছে। তিরিশ লক্ষ শহীদের সিংহভাগ কিন্তু তরুণরাই।

মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী স্বাধীন বাংলাদেশেও যাবতীয় দুর্যোগ দুঃসময় আর স্বৈরাচারকে রুখতে বুলেটের সামনে বুক পেতে দিয়েছে তরুণরাই। নব্বইয়ের সামরিক স্বৈরাচার এরশাদকে হটাতে প্রবল প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলো এই তরুণরাই। সাতাশির নভেম্বরের আগে আমরা কি নূর হোসেনকে চিনতাম? জানতাম? কিন্তু দেখো, সময়ের সাহসী সন্তান শহীদ নূর হোসেন আচমকা জনস্রোতের সামনে এসে দাঁড়ালো কী দুর্দান্ত এক প্রতিরোধের মশাল হয়ে। গণতন্ত্র মুক্তি পাক, স্বৈরাচার নিপাত যাক বুকে পিঠে এই সেøাগান লিখে রাজপথে স্বৈরাচারের বুলেটে আত্মাহুতি দেয়া নূর হোসেন তো আমাদের তরুণ প্রজন্মের ঐতিহাসিক ভূমিকার ধারাবাহিকতারই একটি উজ্জ্বল উদাহরণ।

আমাদের বর্তমান প্রজন্ম তো সেই নূর হোসেনদের গৌরবদীপ্ত উত্তরাধিকারই বহন করছে। কী এমন বিশেষত্ব আছে এ প্রজন্মের মাঝে এই প্রশ্নের উত্তরে এইটুকুই বলি। একটু পেছনে তাকাতে বলি। নিকট অতীতের আন্দোলন আর সংগ্রামের দিকে একটু তাকাতে বলি। আর সবশেষে বলি, তারুণ্য কোনোদিন পরাভব মানে না।

৬. আমাদের দেশে স্বপ্নবাজ নেতা নেই। তাই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে না। এটি সবাই মনে করেন। যদি তাই হয়, তবে জাতিকে ঘুরে দাঁড়াতে হলে কি করা উচিত?

লুৎফর রহমান রিটনঃ একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে আমাদের দেশে এখন স্বপ্নবাজ নেতা নেই। স্বপ্নবাজ নেতা কিন্তু প্রতিদিন প্রতিমাসে প্রতিবছরে প্রতিযুগে জন্মায় না। এরকম নেতার আগমনের জন্যে দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতে হয়। একজন শেখ মুজিব এসেছিলেন আমাদের দেশে। তাঁর মতো স্বপ্নবাজ নেতা আবার একদিন নিশ্চয়ই আসবেন। তবে সময় লাগবে।

দেশ এখন একদল সংঘবদ্ধ দুর্বৃত্ত নেতার নাগপাশে বন্দি। তবে সময় এরকম থাকবেনা। জাতি ঘুরে দাঁড়াবেই। সময়ের সাহসী সন্তানেরা আছে আমাদের আশেপাশেই। জাতিকে ঘুরে দাঁড়াতে হলে প্রথমেই জাতিকে সঠিক নেতা নির্বাচন করতে হবে।

যে জাতি যেমন তার নেতাও থাকে তেমন। নেতা বাইরে থেকে আসেন না। নেতা আকাশ থেকে পড়েন না। জাতির ভেতর থেকেই বেরিয়ে আসেন নেতা। জাতিই তৈরি করে নেতা। দায়টা জাতির। দায়টা সবার। এককভাবে দায়টা কারো নয়।

৭. এবার একটু ভিন্ন প্রসঙ্গে আসি। সামনে ঈদ। কিশোর বেলায় আপনার ঈদ কেমন কাটতো?

লুৎফর রহমান রিটনঃ আমার কিশোরবেলার ঈদ ছিলো আনন্দে ভরপুর। কৈশোর হচ্ছে ডানা মেলবার দিন। কিশোরবেলাটা হচ্ছে একজন কিশোর বা কিশোরীর প্রজাপতি হয়ে উঠবার কাল। শুঁয়োপোকা যেরকম ক্রমশঃ প্রজাপতিতে রূপান্তরিত হয় এ সময়টা সেরকম।

এ সময়েই কিশোর-কিশোরীরা তাদের শরীরে আর মনে, স্বপনে আর জাগরণে অন্যরকম একটা শিহরণ টের পায়। তখন সবকিছুই ভালো লাগে। পৃথিবীর সবকিছুকেই অসাধারণ সুন্দর মনে হয়। রঙিন বর্ণাঢ্য মনে হয়। তো ঈদটাও তখন কানায় কানায় ভর্তি থাকে।

কৈশোরে নতুন জামা-জুতো পড়ে ফুলবাবুটি সেজে বন্ধুদের সঙ্গে সীমাহীন হইহুল্লুড় আড্ডায় এর বাড়ি ওর বাড়িতে ক্লান্তহীন ভোজনের উল্লাসে দিনটা কেটে যেতো আমার।

৮. বড় হয়ে কেমন কাটতো?

লুৎফর রহমান রিটনঃ বড় হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে ঈদের পুরো দিনটাই কাটাতাম বাড়িতে। একা একা, ভরপেট খেয়েদেয়ে শুয়ে আর ঘুমিয়ে। সন্ধ্যা থেকে শুরু হতো ম্যারাথন টিভি দর্শন। টেবিলে বিপুল খাদ্যসম্ভারের মজুদ নিশ্চিত করে স্ত্রী-কন্যা আমাকে বাড়িতে তালা মেরে রেখে বেড়াতে বেরুত। ওরা ফিরতো সন্ধ্যায়। আহারে! সারাটাদিন শুয়ে ঘুমিয়ে জেগে উঠে আবারো নিদ্রার মধ্যে কাটানোটা কী যে মজার ছিলো...

৯. তরুণদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন। যারা স্বপ্ন দেখতে চায়, কিংবা যারা দেখে না। কিন্তু চেষ্টা করলে তারাও স্বপ্নবাজ হয়ে ওঠবে। সবার উদ্দেশ্যেই কিছু বলুন।

লুৎফর রহমান রিটনঃ অন্যের ওপর দোষ না চাপিয়ে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজের দিকে তাকাতে হবে আগে। দেশ আমাকে কি দিয়েছে সেই প্রশ্ন ছুঁড়ে দেবার আগে নিজেকেই প্রশ্ন করতে হবে আমি দেশকে কি দিয়েছি? স্বপ্ন দেখতে হলে কিংবা স্বপ্ন দেখাতে হলে প্রথমেই নিজের মুখোমুখি হতে হবে। দেশের জন্যে কিছু করতে হলে নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে সবার আগে।

মেধার কোনো বিকল্প নেই। একজন মেধাহীন মানুষের পক্ষে বড় কোনো স্বপ্ন দেখাও সম্ভব নয়। একজন মেধাবী মানুষের ব্যক্তিগত স্বপ্নও এক সময় সমষ্টির স্বপ্নে পরিণত হয়। ব্যক্তির স্বপ্ন তখন রূপান্তরিত হয় জাতির স্বপ্নে।

দেশের সিংহভাগ মানুষই ভালো মানুষ। দুর্নীতিবাজ- দুর্বৃত্তরা সংখ্যায় কম কিন্তু তারা সংঘবদ্ধ। আর সে কারণেই তারা শক্তিশালী। সৎ আর ভালো মানুষগুলো পরস্পর বিচ্ছিন্ন। আর সে কারণেই তারা দুর্বল। আমাদের দুর্ভাগ্য, দুর্নীতিবাজদের নেতা আছে কিন্তু সৎ মানুষগুলোর কোনো নেতা নেই।

বাংলাদেশ সময়: ১৬১০ ঘণ্টা, ২৯ আগস্ট, ২০১১
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
Reply

Bookmarks


Currently Active Users Viewing This Thread: 1 (0 members and 1 guests)
 
Thread Tools
Display Modes

Posting Rules
You may not post new threads
You may not post replies
You may not post attachments
You may not edit your posts

BB code is On
Smilies are On
[IMG] code is On
HTML code is On



All times are GMT -5. The time now is 10:16 PM.


Powered by vBulletin® Version 3.8.7
Copyright ©2000 - 2014, vBulletin Solutions, Inc.
BanglaCricket.com
 

About Us | Contact Us | Privacy Policy | Partner Sites | Useful Links | Banners |

© BanglaCricket