facebook Twitter RSS Feed YouTube StumbleUpon

Home | Forum | Chat | Tours | Articles | Pictures | News | Tools | History | Tourism | Search

 
 


Go Back   BanglaCricket Forum > Miscellaneous > Forget Cricket

Forget Cricket Talk about anything [within Board Rules, of course :) ]

Reply
 
Thread Tools Display Modes
  #1  
Old February 11, 2012, 03:04 AM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,335
Unhappy Murder of journalist couple

No wrods is enough for him ... not for any human being in fact.

----------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------


ছোট্ট মেঘ জানে সে কী হারাল?

নিজস্ব প্রতিবেদক | তারিখ: ১১-০২-২০১২




« আগের সংবাদ




ছোট্ট মেঘ। বয়স পাঁচ কিংবা পাঁচের একটু বেশি। মায়াময় মিষ্টি চেহারা। বুদ্ধিদীপ্ত দুটি চোখ, সেই চোখে চঞ্চলতার আভাস। মা মেহেরুন রুনির সঙ্গে দৌড়ে দৌড়ে নানির ইন্দিরার রোডের বাসার চার তলায় ওঠা, আবার নেমে যাওয়া ছিল তার নিত্যদিনের খেলা।
আবার কখনো বাবা সাগর সরওয়ারকে রিকশায় রেখেই দৌড় নানির বাসার দিকে। নানির ফ্ল্যাটের আশপাশের বাসার বাচ্চাগুলোর সঙ্গে বন্ধুত্ব, খেলাধুলা। সব সময় ব্যস্ত, প্রাণশক্তিতে ভরা একটি শিশু।
মাহীন সরওয়ার মেঘ নামের এই শিশুটি গতকাল রাতের কোনো একসময় হারিয়েছে তার প্রিয় মা-বাবাকে। বাবা সাগর ছিলেন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক এবং মা রুনি এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক।
আজ সকালে মা-বাবাকে রক্তাক্ত অবস্থায় শোয়ার ঘরে দেখে সে নিজেই নানিকে ফোন করেছে। তার নানি নুরুন নাহার মির্জা বলেন, ‘মেঘ আজ সকাল সাতটার দিকে আমাকে ফোন করে। বলে, মা-বাবা মরে গেছে।’
তখন কী সে একবারও ভাবতে পেরেছে, সে কী হারিয়েছে? সেটা ভাবার মতো বয়স কি তার হয়েছে? খবর পেয়ে সকালে সবাই যখন সাগর-রুনি দম্পতির বাসায় ভিড় করেন, তখন মেঘ অনেকটাই শান্ত হয়ে তাকিয়ে ছিল। পরে তাকে সেখান থেকে সরিয়ে আত্মীয়ের বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়।
এটিএন বাংলা মেঘের সঙ্গে কথা বলে একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছে। মেঘ তাদেরকে বলেছে, ‘তাদের (দুর্বৃত্ত) হাতে ছুরি ছিল, পিস্তল ছিল। আমাকে গুলি করতে চেয়েছিল।’
এই সাংবাদিক দম্পতি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারে নিজেদের ভাড়া বাসায় রহস্যজনকভাবে খুন হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার রাতের কোনো একসময় সাগর-রুনি দম্পতি খুন হন বলে পুলিশ জানিয়েছে।
তবে পুলিশ জানায়, সাগর-রুনি দম্পতির ছেলে মেঘ গতকাল স্কুল থেকে পিকনিকে যায়। সে ক্লান্ত থাকায় আগেই নিজের ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। সকালে ঘুম থেকে উঠে সে মা-বাবার শোয়ার ঘরে গিয়ে তাঁদের রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে নানিকে খবর দেয়।
মেঘের বাবা সাগর সরওয়ার গতকাল রাত একটা পর্যন্ত অফিস করেছেন। তিনি একটার পর বাসায় ফেরেন। মা রুনির সকালে অফিস থাকায় তিনি সন্ধ্যার পর থেকেই বাসায় ছিলেন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।
ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার বেনজীর আহমদ বলেছেন, দ্রুততম সময়ের মধ্যে হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন করা হবে। কী কারণে তাঁদের খুন করা হয়েছে, তা নিয়ে তদন্ত প্রাথমিক পর্যায়ে আছে।



Prothom Alo
Reply With Quote
  #2  
Old February 11, 2012, 06:36 AM
simon's Avatar
simon simon is offline
Cricket Sage
 
Join Date: February 20, 2008
Favorite Player: Tam,Sak,Nasa,Mash
Posts: 19,957

this is terrible,journalisme in a country like BD is so threatening.
__________________
আমার সত্ত্বা ভেঙ্গে টুকড়ে একদম একাকার
অশরীরীর মত আমি মানুষ নই যে আর !
Reply With Quote
  #3  
Old February 11, 2012, 06:49 AM
MohammedC MohammedC is offline
BanglaCricket Staff
 
Join Date: April 15, 2007
Location: Manchester,UK
Favorite Player: bhujee kom
Posts: 22,479

We have no Freedom of Speech in our country. Such a barbaric act.....this is sick.
__________________
I love Bangladesh cricket and that's why I found BanglaCricket.com
Reply With Quote
  #4  
Old February 11, 2012, 07:16 AM
Rifat H's Avatar
Rifat H Rifat H is offline
Cricket Legend
 
Join Date: June 8, 2011
Location: Dhaka
Posts: 2,592

I was very sad seeing the news on TV !
Reply With Quote
  #5  
Old February 11, 2012, 08:46 AM
akabir77's Avatar
akabir77 akabir77 is offline
Cricket Guru
 
Join Date: February 23, 2004
Location: Overland Park, Kansas
Favorite Player: Nantu Ghotok
Posts: 10,773

A lot of my friends went to school (shahin school) with the mom. It's really sad news. Wonder what happen
Reply With Quote
  #6  
Old February 11, 2012, 09:18 AM
shaad's Avatar
shaad shaad is offline
Cricket Legend
 
Join Date: February 5, 2004
Location: Bethesda, MD, USA
Posts: 3,584

Upon reading this Prothom Alo report, two questions come to mind:
  1. First, the report states "এটিএন বাংলা মেঘের সঙ্গে কথা বলে একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছে। মেঘ তাদেরকে বলেছে, ‘তাদের (দুর্বৃত্ত) হাতে ছুরি ছিল, পিস্তল ছিল। আমাকে গুলি করতে চেয়েছিল।"
    The report also goes on to add "সকালে ঘুম থেকে উঠে সে মা-বাবার শোয়ার ঘরে গিয়ে তাঁদের রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে নানিকে খবর দেয়।"

    Even given the fact that we are talking about a probably psychologically scarred five year old child, which statement is correct?

  2. Did the couple in question report on news items that would be considered severely prejudicial to their interests by certain people? I ask solely to avoid leaping to the conclusion that this murder/homicide was caused by some individuals wanting to suppress press freedoms as opposed to, say, robbery or vengeance motivated by being jilted.
__________________
Shaad
Reply With Quote
  #7  
Old February 11, 2012, 11:14 AM
F6_Turbo F6_Turbo is offline
Banned
 
Join Date: February 19, 2011
Location: A hospital near you
Favorite Player: Brian Lara
Posts: 2,552

I refuse to believe this was anything but a armed robbery gone wrong, and they are the victims of sheer depravity of some animals.

As Shaad bhai asks....none of them were involved in investigative reporting as such...in Bangladesh, Politics/crime/drugs are the three main issues you'd think would endanger a journo.

Yet none of them fit the bill.

Obviously sad beyond words, and you feel for the orphan, but this should not be looked at as an attack on journalism or journalists. So people need to go easy with that angle.

*If this was about press freedom

Islamic TV
Diganta
NTV
RTV
Bangla Vision

Journos would have been attacked, all are blatantly Pro - BNP/Jamaat.

Alternatively

Desh TV
Ekushey

are blatantly Pro - AL, ATN Bangla too at times comes across as very Pro-AL.
Reply With Quote
  #8  
Old February 11, 2012, 04:17 PM
nakedzero's Avatar
nakedzero nakedzero is offline
Cricket Legend
 
Join Date: February 3, 2011
Favorite Player: ShakTikMashNasir(ShakV2)
Posts: 2,024
Default রাতের আঁধারে কালো হলো ছোট্ট ‘মেঘ’

GOD! I wish I could share her pain. Mon ta kharap hoye gelo. Onek kharap, matha theke shorate parchina.


স্কুলের পিকনিকে আগের দিনটিও উজ্জ্বল ছিল সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন নাহার রুনির একমাত্র সন্তান মাহিন সরওয়ার মেঘের। কিন্তু আততায়ীর ছুরিতে মা-বাবা খুন হওয়ার পর তার জীবনে নেমে এসেছে অনিশ্চয়তার আঁধার।

শনিবার সকালে ঘুম থেকে উঠেই মা-বাবার রক্তাক্ত মৃতদেহ দেখে হঠাৎ করেই যেন অচেনা হয়ে গেছে পাঁচ বছরের মেঘের জীবন। এখন শুধুই ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কান্না। আর নানীর কাছে যাওয়ার বায়না।

শুক্রবার স্কুলের পিকনিকে বন্ধুদের সঙ্গে আনন্দ করে বাসায় ফেরার পর দ্রুতই ঘুম পেয়ে যায় ক্লান্ত মেঘের। সকালে ঘুম থেকে উঠেই মা-বাবার ঘরে গিয়ে তাদের রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখে। বাবা-মে যে আর নেই, তা বুঝতে সমস্যা হয়নি ওর। নানীকে ফোন করে কি দেখেছে জানায় সে।

শুক্রবার রাতে কোনো এক সময় রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের একটি ছয় তলা ভবনের পঞ্চম তলায় ঘটে এই হত্যাকাণ্ড। এলোপাতাড়ি ছুরি মেরে শোবার ঘরে নির্মমভাবে হত্যা করা হয় মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার এবং তার স্ত্রী এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন নাহার রুনিকে।

তাদের একমাত্র সন্তান মেঘের বরাত দিয়ে শেরেবাংলা নগর থানার ওসি জাকির হোসেন মোল্লা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, সকাল ৭টার দিকে ঘুম ভাঙার পর মেঘ তাদের বাসায় দুইজনকে দেখে। তারা চলে যাওয়ার পর সে দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে বাবা-মায়ের ঘরে এসে লাশ দেখে সে নানীকে খবর দেয়।

পাঁচ বছরের ফুটেফুটে মেঘের জন্মের পর অনেকটা সময় কেটেছে জার্মানিতে। সেখানে ডয়েচে ভেলে রেডিওতে কাজ করতেন তার বাবা। বছরখানেক আগে দেশে ফিরে মাছরাঙায় যোগ দেন সাগর। রাজাবাজারে বাসার কাছেই উইলিয়াম কেরি স্কুলের প্লে গ্র“পে ভর্তি হয় মেঘ।

স্বজনরা জানান, সকালে একটু ‘শক্ত’ থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে একদমই চুপচাপ হয়ে গেছে মেঘ। তাকে পান্থপথে রুনির এক খালার বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে জানিয়ে মেঘের ছোট মামা নওশের রোমান জানান, শুধুই নানীর কাছে যেতে চাইছে সে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে রোমান বলেন, “একটু পর পর ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে ও। শুধুই বাবা-মার কথা বলছে।”

মেঘের শরীরে সামান্য জ্বর জ্বর ভাবও এসেছে বলেও জানান তিনি।



SOURCE
Reply With Quote
  #9  
Old February 12, 2012, 03:59 AM
F6_Turbo F6_Turbo is offline
Banned
 
Join Date: February 19, 2011
Location: A hospital near you
Favorite Player: Brian Lara
Posts: 2,552

A lot of the local papers reporting today that the child said he recognized the killers as having been at family gatherings/picnics etc.

So it looks like, it might be a family vendetta.

The grill they cut to apparently 'break in' was too small for an adult to squeeze through - it was simply a lame attempt at putting the investigators off.
Reply With Quote
  #10  
Old February 12, 2012, 04:46 AM
Rabz's Avatar
Rabz Rabz is offline
BanglaCricket Staff
BC - Bangladesh Representative
 
Join Date: February 28, 2005
Location: Here
Favorite Player: Father of BD Cricket
Posts: 20,485

This story brought me almost close to tears this morning, especially feeling for the kid.
What a horrendous memory to grow up to, watching your parent's slain dead bodies right in front of you.
No amount of right counseling can heal that.

May Allah keep the kid safe.
__________________
Verily, in the remembrance of Allah do hearts find rest [Al-Qur'an,13:28]
Reply With Quote
  #11  
Old February 12, 2012, 04:33 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

Dear mod and admin bhais,

There are a few posts regarding this heinous and unspeakable double murder crime (Little Megh's parents' murder) in the Bangladesh Breaking News Thread, please kindly combine them or bring them here or make a new thread kindly....I much appreciate it.
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #12  
Old February 12, 2012, 05:11 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

There is zero law and order in Bangladesh! There is no conscience left in the society! People get slaughtered, good contributing, dedicated citizens get stabbed to death, but the system, the dead, mute, incompetent, imbecile system, law enforcement agencys of Bangladesh just sit on their fat asses! Any arrest made in this double murder yet? WHY NOT? What are we doing? The ground intellligence alone should be able to make some strong connections with this murders by now,. The land is full of poor people, full of unemployed people, and this population is super dense...these murderers are talking, they are talking, they must have spoken tio somebody else, their close friends, and this talks should come back to the law enforcement. Employ civilian (non-police) agents in every street corners, and you wouldn't know who is doing what?! We do not have funds to pay salary to these infromants nationwide.....are you f'in kiding me??? Give them incentives, employ the petty criminals to take out the big ones and \always put a strong leash on the petty ones so that they don't grow too big and always stay loyal to the police, by incentives I mean let them off on petty Ganja/pick-pocket petty theft crimes but use them to trap the bigger scumbags! And once proven just send them(the bigger scumbags) to Electric chairs, finish them off~! Get rid off these pests of society. Then find the root of these problems. Why, who? Who is connected to who? The whole country/the whole society is a living sespool, we are all ternished, bring all of these scumbags on their knees and execute (spell) the scums.

Why is Megh parentless today? It is because of me, you and everybody around, all of us Bangladeshis. We murdered them, we made an Orphan out of Megh! We stay mute, motionless and actionless (inactive) but we do not speak out against a forever sick, neverending cycle of diesease in the society and moral, ethical decay!

Why the newspapers get information that Megh said that he might be able to pick the perpetraitor(s) (spell) from a line-up, he saw them (or one of them) in family gathering etc. Why would other newspapers know these, these should be very classified mat. the crime just took place a day or two ago. That information should be a Police thing and a Police tight lipped thing only. This is not an investigation, these are just a bunch of imbeciles in law enforcement uniforms!

Little Megh's life is now at stake as the attackers know that he said that he reckognized one of them. What about his(Megh's) protection? I mean this is something CID, DMP should provide full spectrum and find the assailants (spell) ASAP and sentence them ( that is the maximum, electric chair/hanging whatever).

Megh should be given full State protection from this very momnet on to until they catch the last bit of these murderers (associated with this crime) abnd execute them!
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #13  
Old February 12, 2012, 06:18 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

My heartfelt sorrow and respect for the the victims Sarwar and Nahar. They did something that I naver managed to do, They studied in the west and developed their career in Germany and then they went back to their homeland, their root, Bangladesh. They wanted to do good for their people, their land. I am a hypocrite (spell), I talk big only but I will never do this sacrifice, going back and sacrifice for my people. Sarwar and Nahar are the people with great spirit, no scumbag, soulless, mindless evil killers can take that away!

Rest in Peace Sarwar and Nahar.
May Allah bless Megh.
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #14  
Old February 12, 2012, 09:19 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,335


দুই বন্ধু ঘাতক

গ্রেফতারের খবর যে কোনো সময়



সমকাল প্রতিবেদক
সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনির নৃশংস খুনের রহস্য উদ্ঘাটিত হয়েছে। সাগর ও তার স্ত্রী রুনির খুনিদের শনাক্তের শেষপ্রান্তে পুলিশ। যে কোনো সময় গ্রেফতার হতে পারে খুনিরা। এই দম্পতির দুই বন্ধুর হাতেই নির্মম এ খুনের ঘটনা ঘটেছে। সূত্র জানিয়েছে, ব্যক্তিগত আক্রোশের জের ধরে হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে। কিলিং মিশনের দুই সদস্যকেই শনাক্ত করেছে পুলিশ। পুলিশ তাদের পরিচয় না জানালেও ধারণা করা হচ্ছে, সন্দেহভাজন দুই খুনিই সাংবাদিক দম্পতির দীর্ঘদিনের পরিচিত। কিলিং মিশনের দুই সদস্যের সঙ্গে সাগর ও রুনির সম্পর্কের খুঁটিনাটি বিষয় খতিয়ে দেখছে পুলিশ। পারিবারিক বিষয়ও খতিয়ে দেখছে তদন্ত দল। এই দুই বন্ধুর সঙ্গে সাংবাদিক দম্পতির মোবাইল ফোন কথোপকথনের সর্বশেষ রেকর্ড পরীক্ষা করা হচ্ছে। গতকাল রাত ৩টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সন্দেহভাজনদের গ্রেফতারের কথা পুলিশ স্বীকার করেনি। তবে তারা দু'জনেই গোয়েন্দা জালে রয়েছেন বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। অপর একটি সূত্র বলছে, তাদের ইতিমধ্যেই আটক করা হয়েছে। অসমর্থিত সূত্রে জানা গেছে, তারা দু'জনই পেশায় সাংবাদিক। তাদের গোয়েন্দা হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। সূত্র জানায়, খুনিদের গ্রেফতারের খবর যে কোনো মুহূর্তে জানানো সম্ভব হবে।
এর আগে পুলিশ সূত্র জানায়, নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ব্যাপারে বেশ কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। যদিও তদন্তের স্বার্থে কোনো পুলিশ কর্মকর্তা সে সময় বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। তবে কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা ইঙ্গিত দিয়ে সমকালকে বলেন, আমরা রহস্যভেদের শেষপ্রান্তে রয়েছি। অল্প সময়ের মধ্যে ভালো খবর দেওয়া যাবে। বেশকিছু ক্লু শনাক্ত করে তদন্ত এগিয়ে চলেছে। সন্ধ্যায় পুলিশ কর্মকর্তারা বলেছিলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্র র বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যেই খুনিদের গ্রেফতার করা সম্ভব হবে। গত রাতে পুলিশের ছয়টি বিশেষ দল খুনিদের ধরতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। সাগর সরওয়ার বেসরকারি টেলিভিশন মাছরাঙার বার্তা সম্পাদক এবং মেহেরুন রুনি এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ছিলেন। শুক্রবার রাতে
রাজাবাজারের ৫৮/এ/২ নম্বর হোল্ডিংয়ে রশিদ লজের ছয়তলা ভবনের পঞ্চম তলার ফ্ল্যাটে (এ-ফোর) নৃশংসভাবে খুন হন এই দম্পতি। শনিবার সকাল ৭টার দিকে তাদের ছেলে মেঘ বাবা-মায়ের রক্তাক্ত লাশ দেখে রুনির মাকে খবর দেয়। এ ঘটনায় রাজধানীসহ দেশব্যাপী প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।
এদিকে ঘটনার ৩৬ ঘণ্টা পর অজ্ঞাতপরিচয় আসামিদের বিরুদ্ধে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেছেন রুনির ভাই নওশের আলম। স্বরাষ্ট্রমন্ত্র গতকালও জোর দিয়ে বলেছেন, প্রতিশ্রুত সময়ের মধ্যেই খুনিদের ধরা হবে। শনিবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্র অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছিলেন। গতকাল মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের জয়েন্ট কমিশনার মারুফ হাসানের নেতৃত্বে একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও ঘটনার একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী সাংবাদিক দম্পতির পাঁচ বছরের ছেলে মেঘের সঙ্গে কথা বলে। মামলার তদন্ত সূত্র জানিয়েছে, তারা জানতে পেরেছেন_ হত্যাকারী দু'জন রুনির সঙ্গেই বাসায় প্রবেশ করেছিল। রশিদ লজের দুই দারোয়ান ও ম্যানেজারকে পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। গতকাল পুলিশ অভিযান চালিয়েছে আশপাশের কয়েকটি ভবনেও।
এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ও দেশের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন করে বিভিন্ন সংগঠন। মানববন্ধন চলাকালে সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। একই সঙ্গে তারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্র র দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আজকের (সোমবার) মধ্যে খুনিদের গ্রেফতার করা না হলে রাজপথে আন্দোলনের ঘোষণা দেন। এদিকে নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে আজ পুলিশের আইজি হাসান মাহমুদ খন্দকার সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন। সংবাদ সম্মেলনের বিষয় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি হলেও এটা স্পষ্ট, এ হত্যাকাণ্ডই এতে প্রাধান্য পাবে। খুনিদের গ্রেফতারের খবর এখানে জানানো হতে পারে।
মামলা দায়ের : মামলার বাদী রুনির ভাই নওশের আলম গতকাল বিকেল ৫টায় একটি মামলা করেন। মামলা নম্বর-২৩। মামলার এজাহারে আসামি হিসেবে কারও নাম ও সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি। এদিকে গতকাল সকাল ১০টার দিকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের জয়েন্ট কমিশনার মারুফ হাসান, ডিবি (উত্তর) মাহবুবুর রহমান, ডিসি তেজগাঁও ইমাম হাসান, এডিসি (ডিবি) উত্তর মনিরুজ্জামান মেহেরুন রুনির মা, ছেলে মেঘ ও ভাই নওশের আলমকে নিয়ে সাগর-রুনির ফ্ল্যাটে যান এবং দেড় ঘণ্টা সেখানে অবস্থান করেন। এ সময় তাদের সঙ্গে যাওয়া একটি গোয়েন্দা টিম সাগর-রুনির ভাড়া বাসা রশিদ লজ থেকে কিছু আলামত সংগ্রহ করে। তবে তদন্তের স্বার্থে এসব আলামতের বিবরণ এখনই প্রকাশ করা হবে না বলে সাংবাদিকদের জানিয়ে দেওয়া হয়।
ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের জয়েন্ট কমিশনার বলেন, তদন্ত চলছে। তদন্তের স্বার্থে এখনই কোনো কিছু বলা যাবে না। তবে এর সঙ্গে যারা জড়িত খুব অল্প সময়ের মধ্যে তাদের গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হবে।
তদন্ত শেষে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশের গাড়িতে করে চলে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, রুনির মা ও ছেলে অসুস্থ। তাদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।
সিআইডি সিরিজ দেখে মেঘ : গতকাল সকালে পুলিশ কর্মকর্তারা মেঘকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এ সময় মেঘ বারবার অন্যমনস্ক হয়ে যাচ্ছিল। পুলিশ কর্মকর্তা যখনই তার বাবা-মায়ের (সাগর-রুনি) প্রসঙ্গে জানতে চাচ্ছিলেন, ততবারই সে অস্বস্তি বোধ করছিল। এ অবস্থায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত অন্য এক পুলিশ কর্মকর্তা মেঘকে জিজ্ঞাসা করেন, তুমি টেলিভিশনের সিআইডি দেখেছ? মেঘ এবার খুব আনন্দের সঙ্গে বলে ওঠে, হ্যাঁ। ওই কর্মকর্তা তখন বলেন, আমি সিআইডির এক বড় কর্মকর্তা। এরপর তার লেখাপড়া ও জার্মানির বন্ধুদের কথা জিজ্ঞাসা করেন।
ওই কর্মকর্তা বলেন, মেঘই ঘটনার একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী; কিন্তু সে ঘটনার পর থেকে খুব দুর্বল হয়ে পড়েছে। আরও ক'টা দিন তার কাছ থেকে কথা শোনার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।
খুনিরা সাগর-রুনির পরিচিত : মামলার তদন্তের সঙ্গে জড়িত এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, মোটামুটি নিশ্চিত হওয়া গেছে শুক্রবার সন্ধ্যায় রুনির সঙ্গে দুই যুবক বাসায় প্রবেশ করেছিল। তারা আগেও রুনি ও সাগরের ফ্ল্যাটে এসেছিল। রুনির সঙ্গে থাকার কারণেই নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের নাম-ঠিকানা ভিজিটর খাতায় লিপিবদ্ধ করেনি। ওই দুই যুবককে শনাক্ত করার ও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। তিনি আরও বলেন, হত্যার ধরন ও আলামত পরীক্ষা করে নিশ্চিত হওয়া গেছে_ রুনি এবং সাগরকে একই সময় হত্যা করা হয়েছে। তা ছাড়া সাগর অফিস থেকে বাসায় ফেরেন রাত ২টার দিকে। বাসায় ফেরার পর তিনি প্যান্ট-শার্ট পরিবর্তন করেন এবং রাতের খাবার খান।
আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে, খুনিরা রুনি ও সাগরের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। খুনের পরিকল্পনা নিয়েই তারা বাসায় আসে। কারণ বাসার কোথায় ছুরি ও বঁটি থাকে তা তারা আগে থেকেই জানত। সাগর বাসায় আসার পর তারা গল্পগুজব করে। এরই একপর্যায়ে সাগরের ওপর চড়াও হয় তারা। ভোর ৪টা থেকে ৫টার মধ্যে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। এরপর ফজরের নামাজের সময় ভবনের মুসুলি্লদের সঙ্গে খুনিরা নিরাপদে সটকে পড়ে।
শেরেবাংলা নগর থানার ওসি জাকির হোসেন বলেন, দুই পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে সাগর ও রুনির বন্ধুবান্ধব সম্পর্কে জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, সাগর ও রুনির মোবাইল ফোন নিয়েও কাজ চলছে। এ হত্যাকাণ্ড কী কারণে ঘটেছে, কারা ঘটিয়েছে_ সে ব্যাপারে স্পষ্ট করে বলার সময় এখনও আসেনি।
রুনির সঙ্গে দুই যুবক বাসায় প্রবেশ করেছিল_ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তদন্ত চলছে। খুনিরা গ্রেফতার হলে সবকিছু জানা যাবে। ঘটনার পর বাসার দুই দারোয়ান পলাশ রুদ্র পাল ও হুমায়ুন কবীর এবং ম্যানেজার আবু তাহের পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।
র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক এম সোহায়েল বলেন, চারটি টিম তদন্ত করছে। ঘটনা প্রাথমিক তদন্তের পর র‌্যাবের গোয়েন্দারা জানান, সাংবাদিক দম্পতির হত্যাকাণ্ড পরিকল্পিত এবং খুনিরা নিহতদের পরিচিত বলে ধারণা করা হচ্ছে। অন্যদিকে দু'জনের লাশের ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক জানান, আঘাতের ধরন দেখে মনে হয়েছে খুনিরা অপেশাদার।
পিকনিকের ছবি সংগ্রহ : সূত্র জানায়, র‌্যাব এবং গোয়েন্দা পুলিশ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, পরিবেশ সাংবাদিক ফোরাম এবং সাংবাদিক দম্পতির ছেলে মেঘের স্কুল 'উইলিয়াম কেরি'র পিকনিকের ভিডিও এবং স্থিরচিত্র সংগ্রহ করেছে। এগুলো যাচাই করে দেখছেন তারা। মেঘ পুলিশকে বলেছে, দুই ব্যক্তি তারা বাবা-মাকে হত্যা করেছে। ওই দু'জনকে আগে সে একটি পিকনিকে দেখেছিল। এ ছাড়া মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে অনেক তথ্য পাওয়া গেছে। আরও কিছু বিষয় নিশ্চিত হতে পুলিশ কাজ করছে।
খুনি ধরা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্র অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন বলেছেন, যেভাবেই হোক ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ঘটনার হোতাদের ধরা হবে। আশা করি, তাদের ধরা পড়তেই হবে। গতকাল সচিবালয়ে এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। তিনি বলেন, এরই মধ্যে সাংবাদিক দম্পতি হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শুরু হয়েছে। তিনি আরও বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে এ ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন, ডিবি, র‌্যাব ও সিআইডি এ বিষয়ে কাজ করছে। আমরা আশাবাদী, খুব তাড়াতাড়িই সফল হবো।
মামলার তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্র সাংবাদিকদের বলেন, তদন্ত চলাকালে এ বিষয়ে কিছু বলব না। এ সময় পুলিশের আইজি হাসান মাহমুদ খন্দকার বলেন, এ হত্যার রহস্য 'শিগগির' উদ্ঘাটন করা সম্ভব হবে।


Daily Shamokal
Reply With Quote
  #15  
Old February 12, 2012, 09:30 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

Thank you poorfan bhaiya for this newsbreak.
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #16  
Old February 12, 2012, 10:35 PM
Zunaid Zunaid is offline
Administrator
 
Join Date: January 22, 2004
Posts: 21,739

Just as shameful is how the media is further exploiting the tragedy by making the child relive the trauma and pain. You have Munni Shaha interviewing then child and you have the Daily Star putting his picture on the front page. The psychiatric damage to his young mind is incalculable. Is there no shame no sense of responsibility in our media? And what of his guardians - that they are letting this exploitation occur?
Reply With Quote
  #17  
Old February 12, 2012, 11:27 PM
F6_Turbo F6_Turbo is offline
Banned
 
Join Date: February 19, 2011
Location: A hospital near you
Favorite Player: Brian Lara
Posts: 2,552

Quote:
Originally Posted by Zunaid
Just as shameful is how the media is further exploiting the tragedy by making the child relive the trauma and pain. You have Munni Shaha interviewing then child and you have the Daily Star putting his picture on the front page. The psychiatric damage to his young mind is incalculable. Is there no shame no sense of responsibility in our media? And what of his guardians - that they are letting this exploitation occur?
Because our media like our politicians are with the odd exception, scum. First thing you had was individuals trying to score political points, of course now they're all backtracking as the cause of murder seems to be heading in a different direction. They've been showing pixelated videos of the two murdered bodies basically on loop. It is still very easy to make out the bodies, and some of the wounds - the gore and blood is being shown without any discretion. Still they've been offered some decency - on a regular basis they show dead bodies at the DMC morgue and elsewhere, without any respect for the dead.

Death is a morbid curiosity, more than usual in this country - it is the same reason, you get thousands at accident sites, but only 1-2 individuals wanting to help. Voyeurism at it's worst.

Children have an incredible ability to bounce back, and are very resilient - but the heavy handed manner in how he has been dealt with it is very sad
Reply With Quote
  #18  
Old February 13, 2012, 12:48 AM
RazabQ's Avatar
RazabQ RazabQ is offline
Moderator
BC Editorial Team
 
Join Date: February 25, 2004
Location: Fremont CA
Posts: 10,287

Ok I gotta ratchet up what I do with Agami. As for the journos being murdered, you know I'm ashamed to admit this but the first thought I had was: "Allah please let me be able to see my kids grow up"
Reply With Quote
  #19  
Old February 13, 2012, 05:35 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

Anymore updates on the Sarwar-Nahar double murder case Poorfan bhai, Turbo da?

I said a lot of harsh and crude words about the CID, DMP and DB, RAB...I would like to tone it down a bit and show my supports for them, I know they are doing their best, and I hope they catch the two murderers ASAP.
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #20  
Old February 13, 2012, 07:36 PM
Zunaid Zunaid is offline
Administrator
 
Join Date: January 22, 2004
Posts: 21,739

Finally a voice of reason from the press. Mahfuz Anam from the Daily Star:

http://www.thedailystar.net/newDesig...php?nid=222368

Quote:
An appeal to fellow journalists

We are obviously deeply agonised by the murder of our two colleagues Meherun Runi and Sagar Sarowar, and we want the earliest possible solution of this case and punishment of the killers.

However, in our eagerness to cover the story and seek justice, we are perhaps unthinkingly subjecting Mahir Sarowar Megh, the 5-year-old son of the murdered couple, to additional trauma and stress by constant exposure to the media questioning.
The boy has already suffered the greatest trauma that a child can possibly experience by being an eyewitness to the murder of both his parents.

We cannot know, or perhaps even imagine, what psychological and emotional impact the sight of his murdered parents might have had on him.

By questioning him to recall details of the incident, we are forcing him to suffer more, and hence running the risk of damaging his condition further.

We appeal to our media colleagues to leave the child alone and help him recover with the love, care and company of his relatives.
We will of course try to cover the story as intensely as we can. However, in doing so we must adhere to one fundamental ethical norm of our profession -- do not hurt or cause pain to the innocent, especially if the person happens to be a child.

-- Mahfuz Anam
Reply With Quote
  #21  
Old February 13, 2012, 08:20 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

Thank you dr. Zed uncle for this update with journalist Mahfuz Anam's statement.
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #22  
Old February 13, 2012, 10:13 PM
F6_Turbo F6_Turbo is offline
Banned
 
Join Date: February 19, 2011
Location: A hospital near you
Favorite Player: Brian Lara
Posts: 2,552

IGP gave a press briefing yesterday, preliminary investigations are almost done - they remain hopeful of getting those responsible.

Of course the role the media has played in this entire tragedy has been disgusting to say the least. Not only by trying to score cheap political points, then haranguing the poor boy, but also giving away crucial information with regards to who the police thought was responsible.

Anywhere else, and responsible media would have not given away this sort of information, yet here, within hours - this info and heads up was given to the killers. The police deserve blame for this too - the family, and boy(being a witness, should have been under police protection or custody right from the start). You'd think they'd want to keep the only potential witness untainted and SAFE.

He is now under police protection.

Just a final thought - last night all the talk was about the media chastising itself in the search of an exclusive, and they rightly spoke about ignoring the plight of the child, but I didn't hear one person comment on what how much harm their leaking of information had done to the cause of the police - then again, this is standard for the media in this country, exclusives before principles.
Reply With Quote
  #23  
Old February 14, 2012, 12:03 AM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,335

There are few reports on this horrific news and latest developments but most seems in rumor state, may not be a good idea to post here yet.
Reply With Quote
  #24  
Old February 14, 2012, 12:19 AM
Rabz's Avatar
Rabz Rabz is offline
BanglaCricket Staff
BC - Bangladesh Representative
 
Join Date: February 28, 2005
Location: Here
Favorite Player: Father of BD Cricket
Posts: 20,485

^^ Wide range of rumors are circulating around!
But whatever it is, I dont think we'll get any juicy stories on the papers, the journalists are most likely to protect one of their own.
__________________
Verily, in the remembrance of Allah do hearts find rest [Al-Qur'an,13:28]
Reply With Quote
  #25  
Old February 14, 2012, 12:47 AM
idrinkh2O's Avatar
idrinkh2O idrinkh2O is offline
Test Cricketer
 
Join Date: April 9, 2011
Favorite Player: Performing Tigers
Posts: 1,869

তদন্তে অগ্রগতি নেই
নিজস্ব প্রতিবেদক | তারিখ: ১৪-০২-২০১২



গতকাল গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মাহির। এ সময় তিনি মাহিরের দায়িত্ব নেওয়ার ঘোষণা দেন
ছবি: প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সৌজন্যে

স্বরাষ্ট্রমন্ত্র র বেঁধে দেওয়া ৪৮ ঘণ্টা পেরোলেও দৃশ্যত সাংবাদিক দম্পতির খুনিদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। তবে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) হাসান মাহমুদ খন্দকার দাবি করেছেন, ‘তদন্তের প্রণিধানযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।’

গতকাল সোমবার পুলিশ সদর দপ্তরে দুই দিনব্যাপী ত্রৈমাসিক অপরাধ-সংক্রান্ত সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলা হয়।

অপরাধীদের খুঁজে বের করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্র সাহারা খাতুনের নির্দেশের ৪৮ ঘণ্টা সময়সীমা গতকাল বেলা একটায় শেষ হয়েছে। গত রোববারও পুলিশের তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছিলেন, এই সময়ের মধ্যেই ঘটনা উদ্ঘাটন সম্ভব। অথচ গতকাল সকাল থেকে পুলিশ কর্মকর্তারা কেউ কিছু বলছেন না। খুনি শনাক্ত হয়েছে কি না, কেউ গ্রেপ্তার হয়েছে কি না, খুনের উদ্দেশ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে কি না—দিনভর পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে ঘুরেফিরে সাংবাদিকেরা এসব প্রশ্ন করে গেছেন। জবাবে পুলিশ কর্মকর্তারা ‘মন্তব্য নেই’ অথবা ‘খবর নেই’জাতীয় কথা বলেছেন, অথবা বলেছেন তদন্তের স্বার্থে তাঁরা কিছু বলবেন না। মতবিনিময় সভায় আইজিপির বক্তব্যেও ছিল একই সুর। গত শনিবার সকালে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসা থেকে মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সরওয়ারকে অসংখ্য ছুরিকাঘাতে ও মেহেরুনকে পেটে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়। বাবা-মাকে প্রথম রক্তাক্ত অবস্থায় দেখে ওই দম্পতির পাঁচ বছরের ছেলে মাহির সরওয়ার। শনিবার দুপুরে বাসায় গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের আইনের আওতায় আনার নির্দেশ দেন পুলিশকে।

আইজিপির বক্তব্য: গতকাল দুপুরে পুলিশ সদর দপ্তরের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় সাংবাদিক দম্পতি হত্যা নিয়ে আইজিপি কিছু বলবেন এই আশায় ভিড় করেন অনেক সাংবাদিক। জনাকীর্ণ মতবিনিময়ের শুরুতেই আইজিপি বলেন, এটা সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময় সভা, সংবাদ সম্মেলন নয়। তবুও প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত সভাজুড়ে সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল আলোচিত ওই হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে।

সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, পুলিশ সবিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ও আন্তরিকতার সঙ্গে হত্যাকারীদের ধরতে চেষ্টা চালাচ্ছে। এর মধ্যেই প্রণিধানযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্র র বেঁধে দেওয়া সময় নিয়ে জানতে চাইলে আইজিপি বলেন, ‘বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে সব সময় সব কাজ করা সম্ভব না। তবে আমি খুব আস্থা নিয়ে বলতে চাই, তদন্তের ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্র হয়তো কাজটা দ্রুত করার জন্যই সময় বেঁধে দিয়েছিলেন। আমরা বলব খুব অল্প সময়ের মধ্যে এ বিষয়ে ভালো খবর বা আরও বিস্তারিত তথ্য দেওয়া সম্ভব হবে। থানা-পুলিশ, ডিবি, সিআইডি, র‌্যাব সকলে সম্মিলিতভাবে কাজ করছে।’ কেউ গ্রেপ্তার আছে কি না, জানতে চাইলে আইজিপি বলেন, ‘তদন্তের স্বার্থে আমি পুরোটা বলতে পারছি না।’

খুনিদের শনাক্ত করা গেছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেহেতু তদন্তের কয়েক দিন হয়ে গেছে, একটা ধারণা ইতিমধ্যেই পাওয়া সম্ভব হয়েছে। টেকনিক্যাল কারণে আমরা কিছু শব্দ এড়িয়ে যাচ্ছি, তদন্ত চলছে। এ সময় আমাদের এমন কোনো কথা বা মন্তব্য করা ঠিক হবে না, যা বিভ্রান্তি ছড়াবে, তদন্তে সমস্যা করবে।’ পুলিশ বিভ্রান্ত কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, একদম এ রকম না। সবকিছু বিধি মোতাবেকই চলছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, ‘পুলিশ ব্যর্থ হয়নি। তদন্তকারীরা পেশাদারির সঙ্গে কাজ করছে। এ কারণে আমি আস্থা নিয়ে বারবারই বলছি তদন্তে প্রণিধানযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।’

মাহিরকে নিয়ে ফ্ল্যাটে পুলিশ: হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই মাহির বারবারই বলছিল, সে আগেও খুনিদের পিকনিকে দেখেছিল। এই বক্তব্যের সত্যতা নিশ্চিত করতে গত রোববার পুলিশ কর্মকর্তারা মাহিরকে তাঁর মা-বাবার ফ্ল্যাটে নিয়ে যায়। এ সময় মাহিরের নানি ও মামারা সঙ্গে ছিলেন। মাহির পুলিশকে দেখিয়েছে, খুনিরা চলে যাওয়ার পর সে কীভাবে দরজা বন্ধ করেছে, মায়ের ফোন থেকে নানিকে ফোন করেছে এবং নানি আসার পর দরজা খুলে দিয়েছে। চলে যাওয়ার সময় খুনিরা মাহিরের গলা টিপে ধরে ভয় দেখিয়েছে বলেও জানায় মাহির।

মাহিরের ছবিতে লাশ: গতকাল মাহির মোটামুটি স্বাভাবিকভাবে খাওয়া-দাওয়া করেছে, খেলেছে। মাহিরের মামা নওশের আলম প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল মোটামুটি স্বাভাবিক ছিল মাহির। তবে তার সবকিছু জুড়েই এখন মা-বাবার মৃত্যু। কিছুক্ষণ কথা বলার পরপরই সে মা-বাবার মৃত্যুর প্রসঙ্গ তুলছে। গতকাল কিছু ছবি এঁকেছে, সেখানেও লাশ আর কবর এঁকেছে সে। গ্রামীণ দৃশ্যের মাঝে পড়ে রয়েছে একটা মানুষ বুকে-পেটে রক্ত। আর একটা ছবিতে গাছের পাশে উঁচু ঢিবি বানিয়ে কবর এঁকেছে সে। গতকাল তাকে কোনো পত্রিকা দেখতে দেওয়া হয়নি, টিভির খবর থেকেও দূরে রাখা হয়েছে।

দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী: গতকাল সন্ধ্যায় গণভবনে সাগরের মা সালেহা মনির ও মেহেরুনের মা নুরুন্নাহার মির্জা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি মাহিরের দায়িত্ব নেন। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী (প্রেস) মাহবুবুল হক শাকিল প্রথম আলোকে এ তথ্য জানান।
প্রধানমন্ত্রী জানান, যত দিন তিনি বেঁচে থাকবেন, তত দিন এই সাংবাদিক দম্পতির একমাত্র সন্তান যাতে ভালোভাবে বেড়ে উঠতে পারে, পড়াশোনাসহ সুস্থভাবে জীবন যাপন করতে পারে, সে দায়িত্ব তিনি নেবেন।

এ সময় মাহিরের তিন মামা ও এক ফুপাও উপস্থিত ছিলেন।

-----------------------------------------------------
The family should protect the child from the media and seek professional help to help him recover from this emotional and psychological trauma asap. My thoughts and prayers are with that kid. May Allah protect him from any harms and bless him with a fruitful life...Ameen
__________________
-- Alwayz with !!! Champions are made from something they have deep inside them - a desire, a dream, and a vision!
-- Bangladesh are the Runners-up in the 2012 ASIA Cup!
Reply With Quote
Reply

Bookmarks


Currently Active Users Viewing This Thread: 1 (0 members and 1 guests)
 
Thread Tools
Display Modes

Posting Rules
You may not post new threads
You may not post replies
You may not post attachments
You may not edit your posts

BB code is On
Smilies are On
[IMG] code is On
HTML code is On



All times are GMT -5. The time now is 01:19 PM.


Powered by vBulletin® Version 3.8.7
Copyright ©2000 - 2014, vBulletin Solutions, Inc.
BanglaCricket.com
 

About Us | Contact Us | Privacy Policy | Partner Sites | Useful Links | Banners |

© BanglaCricket