facebook Twitter RSS Feed YouTube StumbleUpon

Home | Forum | Chat | Tours | Articles | Pictures | News | Tools | History | Tourism | Search

 
 


Go Back   BanglaCricket Forum > Miscellaneous > Forget Cricket

Forget Cricket Talk about anything [within Board Rules, of course :) ]

Reply
 
Thread Tools Display Modes
  #26  
Old December 5, 2011, 07:02 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Nocturnal, your post made me emotional.
Poorfan bhai, please make this thread sticky with some sort of significant colors.
Reply With Quote
  #27  
Old December 5, 2011, 07:03 PM
Zunaid Zunaid is offline
Administrator
 
Join Date: January 22, 2004
Posts: 21,739

^^ Made sticky for the duration of the month.
Reply With Quote
  #28  
Old December 5, 2011, 07:18 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Quote:
Originally Posted by Zunaid
Yugoslavia was among the earliest but not the 2nd. Here are the first 10, with dates.

India, Dec 6, 1971 - absolutely no surprise as to who was first
Bhutan, Dec 7, 1971 - not surprising; Bhutan's foreign policy at that time was dictated by India
Poland, Jan 12, 1972 - not surprising; Soviet block
Bulgaria, Jan 12 1972 - not surprising; Soviet block
Myanmar Jan 13, 1972 - surprising
Nepal - 16 Jan, 1972 - not surprising
Barbados - 20 Jan, 1971 - interesting
Yugoslavia - 22 Jan, 1972 - not surprising; Nonaligned movement, Tito was BFF with Indira

The rest 20 or so, in chronological order:

Tonga
Russia
Czechoslovakia

Cyprus
Hungary
Australia
Fiji
New Zealand
Senegal
Britain
West Germany
Finland
Denmark
Sweden
Norway
Iceland
Israel
Japan
Luxemburg
Netherlands
Belgium
Ireland
Italy


src: http://www.bcstest.com/bdesh_details.php?id=39
Where were the ME and other Muslim countries through our most difficult and important time?
Reply With Quote
  #29  
Old December 5, 2011, 07:20 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Quote:
Originally Posted by Zunaid
^^ Made sticky for the duration of the month.
Thanks..where is BC Boss?
Reply With Quote
  #30  
Old December 5, 2011, 07:22 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

BD government should invite them and their families to BD as a recognition of their sacrifice.
Reply With Quote
  #31  
Old December 6, 2011, 01:45 AM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333

Quote:
Originally Posted by FagunerAgun
Where were the ME and other Muslim countries through our most difficult and important time?
Thats one of very important question, such as... what was the stand of OIC and other Muslim block towards our liberation, what kind of propaganda they were feeded by Pakistan, for which not a single Muslim country bother to show us anykind of support. Finally, the question come why Bongobondhu had to give up the trial of 195 Pakistani war criminal, once which was agreed among Bangladesh, India, Pkistan with the support from Rassia. Someone who has detail knowledge on this regard should shed some light.
Reply With Quote
  #32  
Old December 6, 2011, 03:32 PM
Neel Here's Avatar
Neel Here Neel Here is offline
Cricket Legend
 
Join Date: March 17, 2009
Favorite Player: Aravinda DeSilva, Lara
Posts: 2,765

Quote:
Originally Posted by FagunerAgun
Where were the ME and other Muslim countries through our most difficult and important time?
supporting pakistan. UAE and jordan sent military aircraft to support pakistan in the war.

USAF pilot chuck yeager, the first man to break the sonic barrier was in pakistan as a military attache and reportedly flew combat missions for pak air force.
__________________
Anything can be sacrificed for truth,
nothing is too valuable to sacrifice truth instead.
-- Swami Vivekananda
Reply With Quote
  #33  
Old December 6, 2011, 08:52 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

OIC was a lame duck during that time.

But I had a great expectation from Malaysia and Indonesia, which were in turn, very disappointing for our nation.

That time we had only two true friends: India and USSR. Thanks to those two nations.
Reply With Quote
  #34  
Old December 6, 2011, 08:56 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

This thread is very informative and important for us and for our next generations.

PoorFan bhai..please convince zunaid to make it permanent sticky file so that we all can see and read the inforamation with the pictures.
Reply With Quote
  #35  
Old December 6, 2011, 09:02 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

I am a practicing Muslim, I know my faith very well, but from this tragic experience, this tragic reality of the fact that the Middle Eastern and Islamic Countries took on the side of a civilian crushing Pakistani attack regime and they saw to that any hope for Bangladesh should be destroyed and Bangladesh must be stopped by sending money and weapons to Pakistan, I DO NOT and cannot believe any BS Muslim Ummah thing ever exists! I do not care, I do not care, if I cannot identify a human as a human first of all, This "Ummah" is just a very funny sounding word in my ears and gets under my skin!! Hate to say this, but I rather have a Chummah than a Ummah!
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #36  
Old December 6, 2011, 11:29 PM
Prithviraj Prithviraj is offline
Club Cricketer
 
Join Date: February 16, 2011
Posts: 130

Excellent informative post.. I love Bangladesh.. this is where my parents come from .. though I am a proud Indian now... My family members who were in Indian army and Air-Force sacrificed their life in 1971 war
Reply With Quote
  #37  
Old December 7, 2011, 12:28 AM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333

Quote:
Originally Posted by FagunerAgun
This thread is very informative and important for us and for our next generations.

PoorFan bhai..please convince zunaid to make it permanent sticky file so that we all can see and read the inforamation with the pictures.
There is no setting like 'permanent sticky' I am afraid, but it will remain as sticky until someone change it to unsticky.

As for OIC and Middle East stand at that time ... you might find something more in this thread যে কারনে পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে ব্যর্থ হলাম
Reply With Quote
  #38  
Old December 7, 2011, 12:37 AM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333

Quote:
Originally Posted by Prithviraj
Excellent informative post.. I love Bangladesh.. this is where my parents come from .. though I am a proud Indian now... My family members who were in Indian army and Air-Force sacrificed their life in 1971 war
Welcome to BC Prithviraj, sorry to hear the loss of your family member in that war.
Reply With Quote
  #39  
Old December 7, 2011, 11:48 AM
HereWeGo HereWeGo is offline
Cricket Legend
 
Join Date: March 7, 2006
Posts: 2,339

Quote:
Originally Posted by PoorFan
Thats one of very important question, such as... what was the stand of OIC and other Muslim block towards our liberation, what kind of propaganda they were feeded by Pakistan, for which not a single Muslim country bother to show us anykind of support. Finally, the question come why Bongobondhu had to give up the trial of 195 Pakistani war criminal, once which was agreed among Bangladesh, India, Pkistan with the support from Rassia. Someone who has detail knowledge on this regard should shed some light.

Did you ever gave a Multiple choice exam where all your four choices seem correct but you have to give the MOST correct answer? Lets put it this way, Pakistanis just seemed more muslim than Bangladeshis...

That is the exact reason why I hate the concept of Brotherhood based on Religion... As if we are talking about a cult and not a religion.

Arab's still treat our labors like SLAVES...(where is the justice)
Reply With Quote
  #40  
Old December 7, 2011, 03:35 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Quote:
Originally Posted by HereWeGo
Did you ever gave a Multiple choice exam where all your four choices seem correct but you have to give the MOST correct answer? Lets put it this way, Pakistanis just seemed more muslim than Bangladeshis...

That is the exact reason why I hate the concept of Brotherhood based on Religion... As if we are talking about a cult and not a religion.

Arab's still treat our labors like SLAVES...(where is the justice)
Agreed ver well.
One of my cousins came back from the ME empty handed after a couple of years valid job.
And this is the second time it happened to him.

To him ' Muslim brotherhood' is an emotional term of the fools and the foxes. No offense to any one please.
Reply With Quote
  #41  
Old December 7, 2011, 03:48 PM
akabir77's Avatar
akabir77 akabir77 is offline
Cricket Guru
 
Join Date: February 23, 2004
Location: Overland Park, Kansas
Favorite Player: Nantu Ghotok
Posts: 10,768

Quote:
Originally Posted by Rifat
according to my mother, it is Yugoslavia, well, at least one of you have to be wrong...

You both are wrong it was israil. but Bangladesh couldn't except that... I read in a book (a journalist wrote it forgot the name)
__________________
1. Shahadat Hossain: Mufambisi c Mashud; Chigumbura lbw; Utseya c Mashud
2.
Abdur Razzak: P Utseya caught; RW Price lbw; CB Mpofu lbw
3. Rubel Hossain: Corey J A bowled; BB McCullum caught; JDS Neesham caught
Reply With Quote
  #42  
Old December 7, 2011, 04:00 PM
al Furqaan's Avatar
al Furqaan al Furqaan is offline
Cricket Sage
 
Join Date: February 18, 2004
Location: New York City
Favorite Player: Mominul, Nasir, Taskin
Posts: 20,851

Quote:
Originally Posted by FagunerAgun
Where were the ME and other Muslim countries through our most difficult and important time?
I think the Pakistanis had convinced them that we were a breakaway Hindu province or apostates.

Similar reason why secular Muslims like the Kurds don't get any support from non-involved muslim countries (BD included).

If we had Islamicized our revolt, we might have garnered more support or least confused the ME into neutrality (how do you choose between two rival Islamic sides eg Iran-Iraq?).

There are also instances of general apathy towards the plight of non-Arab black Muslims in Sudan as well as the Arab Muslims of Western Sahara. Which leads one to believe that an established OIC member will get automatic immunity eg a hypothetical situation where if Bangladesh suppressed a Bihari rebellion, OIC wouldn't do anything to help the Biharis.

The revolutionary must speak the language or wear the colors of his target helpers in order to get assistance. The US would have never supported a communist revolution, but the Soviets did. And vice versa.
__________________
Bangladesh is a stronger team with Shakib al Hasan.
Bangladesh is a stronger team without Shakib al Hasan.
Reply With Quote
  #43  
Old December 7, 2011, 07:57 PM
HereWeGo HereWeGo is offline
Cricket Legend
 
Join Date: March 7, 2006
Posts: 2,339

Quote:
Originally Posted by al Furqaan
I think the Pakistanis had convinced them that we were a breakaway Hindu province or apostates.

Similar reason why secular Muslims like the Kurds don't get any support from non-involved muslim countries (BD included).

If we had Islamicized our revolt, we might have garnered more support or least confused the ME into neutrality (how do you choose between two rival Islamic sides eg Iran-Iraq?).

There are also instances of general apathy towards the plight of non-Arab black Muslims in Sudan as well as the Arab Muslims of Western Sahara. Which leads one to believe that an established OIC member will get automatic immunity eg a hypothetical situation where if Bangladesh suppressed a Bihari rebellion, OIC wouldn't do anything to help the Biharis.

The revolutionary must speak the language or wear the colors of his target helpers in order to get assistance. The US would have never supported a communist revolution, but the Soviets did. And vice versa.
Oh!! So somehow ME countries thought it was right to murder and rape innocent civilians by Muslims just because it was a breakaway hindu province????
Reply With Quote
  #44  
Old December 7, 2011, 08:10 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Not only that, still some countries in the ME are against the current government's War Crime Tribunal. Specially KSA. They have already made things difficult for BD and BD workers in the ME.
Reply With Quote
  #45  
Old December 7, 2011, 10:21 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333


বিজয়ের ৪০ বছর: বিদেশি সহযোদ্ধা

জেনারেল মানেকশ একাত্তরের যুদ্ধনায়ক

শাহেদ মুহাম্মদ আলী | তারিখ: ০৮-১২-২০১১


  • ০ মন্তব্য
  • প্রিন্ট
  • ShareThis




« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»
  • জেনারেল মানেকশ
1 2




১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর দিনটি মিত্রবাহিনীর জন্য ছিল বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। নির্দিষ্ট করে বললে, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যক্ষ সহায়তাকারী ভারতীয় সেনাবাহিনীর জেনারেলদের জন্য স্বস্তির। ওই দিন ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রধান স্যাম হরমুজজি প্রেমজি জামশেদজি মানেকশ কার্যত ভারতীয় বাহিনীকে ঢাকা অভিযানের অনুমতি দেন।
স্বাধীনতার জন্য সর্বস্ব বাজি রেখে যুদ্ধরত বাংলাদেশ তত দিনে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে পূর্ব রণাঙ্গন। দিশেহারা পাকিস্তান ৩ ডিসেম্বর বিকেলে ভারতের পশ্চিম অংশে বিমান আক্রমণ করে বসেছিল। ফলে মুক্তিবাহিনীকে সহায়তাকারী ভারতীয় সেনাবাহিনী সরাসরি পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। ভারতীয়দের হিসাবে, মাত্র ১৩ দিনের সার্বিক যুদ্ধে মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী।
যুদ্ধ শুরু হলে চীন হস্তক্ষেপ করতে পারে—এই বিবেচনা থেকে ১৬৭ ও ৫ মাউন্টেন ব্রিগেডকে চীন সীমান্তে রাখার পক্ষে ছিলেন জেনারেল মানেকশ। ৮ ডিসেম্বর মানেকশ ওই ব্রিগেডগুলোকে পূর্ব পাকিস্তানে ব্যবহারের অনুমতি দেন। এতে যুদ্ধ নতুন গতি পায়।
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রতি রাষ্ট্রীয় সমর্থনকে সামরিকভাবে কার্যকর করে ভারতীয় সেনাবাহিনী। ফলে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর পর ইতিহাসের আলো গিয়ে পড়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে আহত সেনা কর্মকর্তা স্বাধীন ভারতের অষ্টম সেনাপ্রধান জেনারেল স্যাম মানেকশর ওপর। চার দশকের সামরিক জীবনে পাঁচটি যুদ্ধ করেছেন তিনি। একাত্তরের শেষ যুদ্ধে বাংলাদেশের সঙ্গে বিজয়ী হন মানেকশও।
১৯৭১ সালে ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের প্রধান (চিফ অব স্টাফ) জেনারেল জে এফ আর জ্যাকব তাঁর সারেন্ডার অ্যাট ঢাকা বইয়ে কিছু সমালোচনা করলেও মানেকশ সম্পর্কে লিখেছেন: ভারতের সবচেয়ে বড় সামরিক বিজয়ের সময় জেনারেল স্যাম মানেকশ ছিলেন সেনাবাহিনীর প্রধান। ১৯৬২ সালের পরাজয় এবং তারপর ১৯৬৫ সালের অমীমাংসিত যুদ্ধের পর ভারতীয় সেনাবাহিনীর সম্মান তিনি পুনরুদ্ধার করেছেন। সব সময় তিনি সেনাবাহিনীর স্বার্থে কাজ করেছেন। অত্যন্ত ব্যক্তিত্বসম্পন্ একজন মানুষ ছিলেন তিনি। কখনো কোনো আমলাতান্ত্রিক হস্তক্ষেপ সহ্য করেননি।
এর প্রমাণ অবশ্য পাওয়া যায় ভারতের নৌবাহিনী সদর দপ্তরের ১৯৯৬ সালের এক নথিতে। তাতে মানেকশর দেওয়া একটি সাক্ষাৎকার ছিল এমন:
এপ্রিল মাসের কোনো এক দিন মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী সেনাপ্রধানকে বললেন, বাংলাদেশ থেকে পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, ত্রিপুরায় প্রচুর শরণার্থী আসছে। আপনারা কী করছেন?
মানেকশ: আমার কী করার আছে?
—আপনার বাহিনী নিয়ে এগিয়ে যান।
—মানে, যুদ্ধ?
—তা-ই যদি হয় হোক।
—আমি যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত নই। এখন এপ্রিলের শেষ। ১৫-২০ দিন পরই শুরু হবে বর্ষা। এ সময় পূর্ব পাকিস্তানের নদীগুলো সমুদ্রের মতো হয়ে যায়। এ রকম পরিস্থিতিতে আমরা রাস্তায় আটকা পড়ে যাব। পাকিস্তানিরা তখন আমাদের মাটিতে মিশিয়ে দেবে। দ্বিতীয়ত, ভারতে এখন ফসল কাটার সময়। সৈন্য পরিবহনের জন্য প্রতিটি ট্রাক, রাস্তা, রেলপথ আমার দরকার হবে। ফলে শস্য পরিবহন সম্ভব হবে না। এতে ভারতে দুর্ভিক্ষ শুরু হলে সবাই দোষ দেবে আমাকে। আমি তা ঘাড়ে নিতে চাই না। আর্মার্ড ডিভিশন আমার মূল শক্তি। কিন্তু তাদের কাজ চালানোর মতো মাত্র ১২টি ট্যাংক আছে। এর পরও আপনি যদি আমাকে এগিয়ে যেতে বলেন, তাহলে আমি আপনাকে ১০০ ভাগ পরাজয়ের নিশ্চয়তা দিচ্ছি। আদেশ করুন।
বৈঠক মুলতবি করে ইন্দিরা গান্ধী স্যাম মানেকশকে বসতে বললেন। মন্ত্রীরা চলে গেলে মানেকশ বললেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি বলার আগে জিজ্ঞেস করি, আপনি কি চান আমি মানসিক বা শারীরিক কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করি?
প্রধানমন্ত্রী বললেন, ওহ্ স্যাম, আপনি বসুন।
জেনারেল মানেকশ বললেন, এই কাজ (যুদ্ধ) অবশ্যই আমার সময় অনুযায়ী হতে হবে। যুদ্ধে একজন মাত্র কমান্ডার থাকবে। আমার একজন মাত্র রাজনৈতিক অধিকর্তা থাকবে। তাঁর নির্দেশ অনুযায়ী আমি কাজ করব, অন্য কারও নয়।
—ঠিক আছে, স্যাম। আপনি অধিনায়ক, কেউ আপনার কাজে হস্তক্ষেপ করবে না।
—ধন্যবাদ। আমি আপনাকে সাফল্যের নিশ্চয়তা দিচ্ছি।
সব রাজনৈতিক প্রক্রিয়া ও পরিস্থিতির সঙ্গে মিলিয়ে এ রকম একটি যুদ্ধ পরিচালনার জন্য যে ব্যক্তিত্বের প্রয়োজন, তার পুরোটাই ছিল মানেকশর মধ্যে। একাত্তরের যুদ্ধে সেনাবাহিনীর প্রধান ও সব বাহিনীপ্রধানদের চেয়ারম্যান হিসেবে যুদ্ধাভিযানের সামগ্রিক দায়দায়িত্ব ছিল তাঁর কাঁধে।
৭ ডিসেম্বর জেনারেল মানেকশ কলকাতায় ৮ থিয়েটার রোডে বাংলাদেশ সরকারের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী সৈয়দ নজরুল ইসলামের দপ্তরে যান। সেখানে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের রণাঙ্গন সংবাদদাতা মুসা সাদিক তাঁর একটি সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন। তাতে মানেকশ মুক্তিবাহিনীর ভূয়সী প্রশংসা করেন।
মানেকশ বলেছিলেন: দেখো, এই যুদ্ধ সম্পর্কে বিশ্ববাসী জানে। আমরাও জানি, এটা বাংলাদেশের যুদ্ধ। রণক্ষেত্রের অগ্রভাগে সাত-আট মাস ধরে তোমাদের হাজার হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধা যুদ্ধ করছে এবং তাদের জীবন উৎসর্গ করছে। পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর গণহত্যা প্রতিরোধে তোমাদের পিতা-মাতারা তাদের সন্তানদের মুক্তিযোদ্ধা বানিয়ে রণাঙ্গনে পাঠাচ্ছে। এটাকে তোমাদের জনগণ এখন জনযুদ্ধে রূপান্তর করেছে। একটা দেশের গোটা জনগোষ্ঠী তাদের রুখে দাঁড়িয়েছে বলে এ যুদ্ধ বেশি দিন চলতে পারবে না।
রণক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধাদের দেখেছেন কি না—জানতে চাইলে মানেকশ বলেছিলেন, না, এখনো দেখিনি। কিন্তু আমাদের ইস্টার্ন সেক্টরের যেসব জেনারেল রণাঙ্গনে তাদের ক্ষিপ্রগতির আক্রমণ দেখেছে, তাদের রিপোর্ট পাচ্ছি। শত্রুর ওপর তাদের ভয়ভীতিহীন আক্রমণ দেখে তারা (জেনারেলরা) বিস্মিত। আমার জেনারেলরা আমাকে বলেছে, বীর বাঙালিরা জন্মভূমির জন্য রণাঙ্গনে জান কোরবানিদানের প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়েছে। সৃষ্টিকর্তা বলতে পারেন, কীভাবে তোমাদের কিশোর, তরুণ, যুবক মুক্তিযোদ্ধারা জীবনের মায়া এমন তুচ্ছ করে হাসিমুখে দেশের পায়ে নিজেদের বলি দিতে পারে। তিনি বলেন, দ্বিধাহীন চিত্তে আমার এই অনুভূতি প্রকাশ করা কর্তব্য যে বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা শেখ মুজিবুর রহমান মৃত্যুঞ্জয়ী মন্ত্র জানেন। তাঁর নিখাদ মন্ত্রে এমন মৃত্যুঞ্জয়ী জাতি জন্ম নিয়েছে যে, এখন তারা মন্ত্রমুগ্ধের মতো শুধু মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে চায়। বাংলাদেশের বীর মুক্তিবাহিনীর জন্য অভিবাদন। তাদের সামনে শুধু বিজয় অপেক্ষা করছে। ঈশ্বরের আশীর্বাদে ধন্য হোক বাংলাদেশ।
ফ্রন্টিয়ার ফোর্স রেজিমেন্টে মানেকশ কমিশন হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বার্মায় সিতাং সেতু দখলের লড়াইয়ে তিনি আহত হন। সাহসিকতা ও বীরত্বের জন্য তিনি মিলিটারি ক্রস লাভ করেন। ১৯৭৩ সালে তাঁকে ফিল্ড মার্শাল খেতাবে ভূষিত করা হয়। ২০০৮ সালের ২৭ জুন তিনি মারা যান।


Prothom Alo
Reply With Quote
  #46  
Old December 8, 2011, 01:09 PM
al Furqaan's Avatar
al Furqaan al Furqaan is offline
Cricket Sage
 
Join Date: February 18, 2004
Location: New York City
Favorite Player: Mominul, Nasir, Taskin
Posts: 20,851

Quote:
Originally Posted by HereWeGo
Oh!! So somehow ME countries thought it was right to murder and rape innocent civilians by Muslims just because it was a breakaway hindu province????
Yep. People have a tendency to support [blindly] those that wear their colors or seem to wear their colors. Ever seen any Bloods wearing blue or supporting any Crips?

As an example, how many West Bengalis or Assamese do you see concerned about the effects in Bangladesh of building dams and what not on their side of the border? And its not surprising either than only the left-most leaning extremists (+ those who might profit somehow financially) are calling for independent experts to find out what every idiot and their kajer bua already knows will be the most likely outcome.
__________________
Bangladesh is a stronger team with Shakib al Hasan.
Bangladesh is a stronger team without Shakib al Hasan.
Reply With Quote
  #47  
Old December 8, 2011, 08:45 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333


বিজয়ের ৪০ বছর: বিদেশি সহযোদ্ধা

সিডনি শনবার্গ: একাত্তরের ভাষ্য জেনোসাইডের সাক্ষ্য

মফিদুল হক | তারিখ: ০৯-১২-২০১১


  • ০ মন্তব্য
  • প্রিন্ট
  • ShareThis




« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»
  • সিডনি শনবাগ
1 2




কত সাংবাদিক কতভাবেই না জড়িত হয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে, তাঁদের অনেকের রিপোর্টিং-জীবনে সেটা ছিল চার্চিল কথিত ‘ফাইনেস্ট আওয়ার’। ষাটের দশকের মাঝামাঝি থেকে গণমাধ্যমে বৈদেশিক সংবাদদাতা হয়ে উঠছিল আলোচিত চরিত্র। ভিয়েতনাম যুদ্ধ জন্ম দিয়েছিল নতুন এক সাংবাদিকতার, যুদ্ধবিরোধী গণ-আন্দোলনের মধ্য দিয়ে নতুন পৃথিবীর স্বপ্নও যেন দেখতে শুরু করেছিল অযুত মানুষ। ভিন্ন এক উন্মাদনায় অধীর বিশ্বে বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রাম সৃষ্টি করেছিল বিপুল অভিঘাত। ফলে বৈদেশিক সংবাদদাতা হিসেবে যাঁরা বাংলাদেশের ঘটনাধারা অনুসরণ করেছিলেন, তাঁদের সংবাদ সংগ্রহ ও পরিবেশনে নিষ্পৃহতা মুছে দিয়েছিল একধরনের সহমর্মিতা ও অঙ্গীকারের বোধ।
এমন অনেক সাংবাদিকের একজন সিডনি শনবার্গ, একাত্তরের মার্চে যাঁরা ঢাকায় ছিলেন এবং ২৫ তারিখ ঢাকা থেকে বিতাড়িত হন, তাঁদের অন্যতম নিউইয়র্ক টাইমস-এর এই সংবাদদাতা। সিডনি শনবার্গ হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পাট সম্পন্ন করে শিক্ষানবিশ হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন নিউইয়র্ক টাইমস-এ। কপি বয়, ডেস্ক রাইটার ইত্যাদি নানা কাজে যোগ্যতার পরিচয় দিয়ে ১৯৭১ সালে তিনি পত্রিকার দিল্লি অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। তরুণ এই সাংবাদিকের জন্য বাংলাদেশবিষয়ক রিপোর্টিং ছিল বিরাট চ্যালেঞ্জ ও সুযোগ। ঢাকা থেকে বহিষ্কৃত হলেও তিনি অচিরে দিল্লি ফিরে আসেন এবং যেমন দিল্লি থেকে তেমনি সীমান্তবর্তী এলাকা ঘুরেও সংবাদ সংগ্রহ করেন। মুজিবনগর সরকারের শপথ গ্রহণের আগেই আগরতলায় সরকার গঠিত হওয়ার সংবাদ প্রথম তিনি প্রকাশ করেন। খালেদ মোশাররফের গেরিলা দলের সঙ্গে তাদের অপারেশনে দেশের ভেতরে তিনি প্রবেশ করেন। জুন মাসে পাকিস্তান সামরিক কর্তৃপক্ষ নিয়মকানুন শিথিল করে বিদেশি সংবাদদাতাদের ঢাকায় আসার অনুমোদন দিলে সিডনি শনবার্গ সেই সুযোগ গ্রহণ করেন বটে, তবে তাঁর রিপোর্ট কর্তৃপক্ষের মনঃপূত না হওয়ায় অচিরেই আবার বহিষ্কৃত হন। ৩ ডিসেম্বর ভারত-পাকিস্তান সর্বাত্মক যুদ্ধ শুরু হলে তিনি কলকাতা থেকে বিদেশি সাংবাদিকদের সঙ্গে মুক্ত বাংলাদেশে প্রবেশ করেন এবং ১৬ ডিসেম্বর ঢাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর পরাজয়বরণের ঘটনা প্রত্যক্ষ করেন। মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাধারার পূর্বাপর ও ধারাবাহিক রিপোর্টিংয়ের ঐতিহাসিক সুযোগ সিডনি শনবার্গের করায়ত্ত হয়েছিল।
আজ ৪০ বছর পর সেই সব রিপোর্টের দিকে ফিরে তাকালে এর সমকালীন প্রাসঙ্গিকতা দেখে পুনরায় হতে হয় বিস্মিত ও অভিভূত। সিডনি শনবার্গ ও বিদেশি সংবাদদাতাদের অধিকাংশ রিপোর্ট মার্কিন কংগ্রেশনাল রেকর্ডের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে এডওয়ার্ড কেনেডি ও অন্য কংগ্রেস সদস্যদের বক্তব্যের সুবাদে। এই সব দলিল ইতিহাসের অন্তর্গত। ৪০ বছর পর ইতিহাসের দায়মোচনে বাংলাদেশ যখন প্রবেশ করেছে, ‘জেনোসাইড’ এবং মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধের বিচার-প্রক্রিয়া শুরু করেছে, তখন বিদেশি সংবাদদাতাদের বিভিন্ন রিপোর্ট অর্জন করেছে আরেক মহিমা।
বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল একাত্তরে সংঘটিত নৃশংসতা ও বর্বরতা আইনি দৃষ্টিতে নিরীক্ষণ করবেন এবং সে ক্ষেত্রে ইতিমধ্যে অভিযুক্ত দেলাওয়ার হোসাইন সাইদীর বিরুদ্ধে দুই ধরনের অর্থাৎ জেনোসাইড ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগ আদালতে গৃহীত হয়েছে। সংগঠিত ও ব্যাপকভাবে যেসব হত্যা, ধর্ষণ ও লুণ্ঠন ঘটেছে, তা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ এবং সুনির্দিষ্টভাবে কোনো জনগোষ্ঠীকে চিহ্নিত করে গোষ্ঠীর সদস্যদের পুরোপুরি বা আংশিকভাবে উৎখাত বা নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার লক্ষ্যে যেসব কর্মকাণ্ড পরিচালিত হয়েছে, তা জেনোসাইড হিসেবে বিবেচিত হবে। আদালত সর্বাগ্রে বিবেচনা করবেন বাংলাদেশে একাত্তরে জেনোসাইড সংঘটিত হয়েছিল কি না, তারপর বিবেচিত হবে সেই জেনোসাইডে অভিযুক্ত সাঈদীর সম্পৃক্ততা ছিল কি না।
হিন্দু জনগোষ্ঠীকে উৎখাত করার লক্ষ্য নিয়ে আদৌ কি পরিচালিত হয়েছিল জেনোসাইড—এই নিয়ে আদালতে চলবে সওয়াল-জবাব, আদালতের বাইরেও চলবে আলোচনা। এখানে সাক্ষ্যভাষ্য হিসেবে বিদেশি সংবাদদাতাদের রিপোর্ট পালন করবে বিশাল ভূমিকা। এ ক্ষেত্রে সিডনি শনবার্গের রিপোর্ট থেকে কিছু উদ্ধৃতি লোকসমাজের সামনে সাক্ষ্য হিসেবে আমরা পেশ করতে পারি। জুন মাসে ঢাকায় এসে সরেজমিনে বাস্তবতা প্রত্যক্ষ করে তিনি কয়েকটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছিলেন। ২৫ জুন, ১৯৭১ প্রকাশিত রিপোর্টে লিখেছিলেন: ‘হিন্দু সংখ্যালঘিষ্ঠরা বিশেষভাবে সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়েছে। যে ছয় লাখ পূর্ব পাকিস্তানি ভারতে পালিয়ে গেছে, তাদের ভেতর চার লাখ বা ততোধিক হচ্ছে হিন্দু। হিন্দু অথবা সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান যারাই পালিয়ে গেছে, তাদের বাড়িঘর দিয়ে দেওয়া হচ্ছে “অনুগত” নাগরিকদের।’
সিডনি শনবার্গ সে-যাত্রায় ফরিদপুরে গিয়েছিলেন এবং ২৯ জুন, ১৯৭১ প্রকাশিত রিপোর্টে লেখেন, ‘সংঘর্ষক্ষেত্রে কর্মরত একজন আর্মি কমান্ডার ব্যক্তিগত আলাপচারিতার সময় স্বীকার করেন, তাঁদের নীতি হচ্ছে বাঙালি সংস্কৃতি ধ্বংস করা, হিন্দু ও মুসলমান উভয়কে, বিশেষভাবে হিন্দুদের, উৎখাত করা। ফরিদপুরে এবং পূর্ব পাকিস্তানের প্রায় গোটা পরিধিজুড়েই, সেনাবাহিনী আসার আগে হিন্দু ও মুসলমানের মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব ছিল না। আর্মি এখন এমন বিরোধ উসকে দিতে চাইছে। এপ্রিল মাসে জনসাধারণকে শিক্ষা দেওয়ার জন্য ফরিদপুর শহরকেন্দ্রে দুজন হিন্দুর শিরশ্ছেদ করে তাঁদের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। কয়েকজন হিন্দু যখন প্রাণ বাঁচাতে ইসলামে ধর্মান্তরিত হতে আবেদন জানায়, তাদের কাফের গণ্য করে গুলি করে মারা হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে অবশ্য ধর্মান্তরিত হওয়া গৃহীত হয়ে থাকে।’
এই রিপোর্ট প্রকাশের পর পাকিস্তান সামরিক কর্তৃপক্ষ সিডনি শনবার্গকে পুনরায় বহিষ্কার করে। সিডনি শনবার্গ এরপর ঢাকায় প্রবেশ করেন ১৬ ডিসেম্বর মিত্রবাহিনীর ট্যাংকে সওয়ারি হয়ে, তাঁকে বহিষ্কারের ক্ষমতা যখন আর পাকিস্তান বাহিনীর ছিল না।
৪০ বছর পর সত্যের সওয়ারি হয়ে সিডনি শনবার্গের রিপোর্ট আজ আবার প্রতিধ্বনিত হবে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কক্ষে এবং কক্ষের বাইরে। বিদেশি সংবাদদাতার এই সব রিপোর্টের সত্যতা মোচন বা অস্বীকার করার সাধ্য কারও থাকবে না—এই প্রত্যাশা নিশ্চয় আমরা করতে পারি।


Prothom Alo
Reply With Quote
  #48  
Old December 12, 2011, 11:56 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333





Reply With Quote
  #49  
Old December 13, 2011, 09:47 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333


বিজয়ের ৪০ বছর: বিদেশি সহযোদ্ধা

পদগর্নির পত্র অন্ধকারে আলো

মফিদুল হক | তারিখ: ১৪-১২-২০১১


  • ০ মন্তব্য
  • প্রিন্ট
  • ShareThis




« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

  • নিকোলাই পদগর্নি
1 2




২৫ মার্চ মধ্যরাত থেকে পাকিস্তানি বাহিনী যে গণহত্যাযজ্ঞ শুরু করে, তা ছিল সুপরিকল্পিত অভিযান, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতির পূর্বাপর মূল্যায়ন করে ‘পূর্ব বাংলা’ সমস্যার সামরিক সমাধানের পদক্ষেপ তারা গ্রহণ করেছিল। উদ্যোগী হয়েছিল প্রায় হিটলারীয় ‘ফাইনাল সলিউশন’ বা চূড়ান্ত সমাধানে। সে জন্য আকস্মিক আঘাতে বিপুল রক্তপাত ঘটাতে সামরিক শাসকদের সামান্যতম দ্বিধা ছিল না। কেননা, তারা জানত, তাদের এই কাজের পেছনে মার্কিন তথা পশ্চিমা শক্তির সমর্থন রয়েছে এবং পাকিস্তানে যা কিছু ঘটবে, তা একটি দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় হিসেবে বিবেচনা করার বাইরে কেউ যেতে পারবে না। কেননা, দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের পর যে বিশ্বব্যবস্থা গড়ে উঠেছিল, সে ক্ষেত্রে এমনটাই ছিল সর্বপক্ষ-স্বীকৃত বিধান। ভারত যে হইচই করবে, তা মোকাবিলা করা দুষ্কর নয়। কেননা, একে ভারতের চিরন্তন পাকিস্তান-বিরোধিতা হিসেবে চিহ্নিত করা যাবে এবং শক্তিশালী ভারতের দিক থেকে যেকোনো কঠোর সমালোচনা দুর্বল প্রতিবেশীর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ন্যক্কারজনক হস্তক্ষেপ হিসেবে চিহ্নিত করে পাকিস্তান নিজেকে অন্যায়ের শিকার রূপে তুলে ধরতে পারবে। পরিস্থিতি বুঝে মাঝেমধ্যে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে বিবৃতি দিলেই হবে, শান্তিপূর্ণ সমাধানে সরকার সচেষ্ট, ‘প্রকৃত’ জনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে তারা আগ্রহী, বিচ্ছিন্নতাবাদীদ র কাছে নয়, এমন সব গোলমেলে বক্তব্য দিয়ে সামাল দেওয়া যাবে আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি এবং তত দিনে রক্তবন্যায় ডুবিয়ে বাঙালিদের যথোচিত শিক্ষাদান সম্পন্ন হবে।
কিন্তু পাকিস্তানি বর্বরতার বিরুদ্ধে সমাজতান্ত্রিক শিবিরের নেতৃরাষ্ট্র সোভিয়েত ইউনিয়ন শুরুতেই যে অসাধারণ প্রজ্ঞাবান ও মানবিক অবস্থান গ্রহণ করল, তা সরল পাকিস্তানি সমীকরণ বানচাল করে দেয়। গণহত্যা শুরুর পরপর ৩ এপ্রিল ইউনিয়ন অব সোভিয়েত সোশ্যালিস্ট রিপাবলিকের কাউন্সিল অব মিনিস্টার্সের চেয়ারম্যান অর্থাৎ সমাজতান্ত্রিক সোভিয়েত ইউনিয়নের রাষ্ট্রপ্রধান নিকোলাই পদগর্নি পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খানের কাছে এক পত্র প্রেরণ করে, যা ইতিহাসে ‘পদগর্নি লেটার’ হিসেবে অভিহিত হয়েছে। এই পত্রে নিকোলাই পদগর্নি কূটনৈতিক শিষ্টাচার বজায় রেখে পাকিস্তানের সামরিক পদক্ষেপের প্রতি বিরূপতা প্রকাশ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিপুল নির্বাচনী বিজয়ের উল্লেখপূর্বক তাঁর গ্রেপ্তারি ও পীড়নে উদ্বেগ ব্যক্ত করেন। তৎকালীন জটিল আন্তর্জাতিক পরিস্থিতিতে যে লিপিকুশলতার সঙ্গে এই পত্র প্রণীত হয়েছিল, তা নিবিড় পর্যবেক্ষণ দাবি করে। তদুপরি এই পত্র ঘিরে সোভিয়েত ইউনিয়নের রাজনৈতিক তৎপরতাও বিশেষ উল্লেখ দাবি করে। সাধারণভাবে রাষ্ট্রপ্রধান কর্তৃক রাষ্ট্রপ্রধানকে প্রেরিত পত্র কূটনৈতিক মাধ্যমে হস্তান্তরিত হয় এবং উভয় পক্ষের সম্মত সিদ্ধান্তে তা প্রকাশিত হয়। তবে গুরুতর ও জরুরি কোনো বিষয়ে পত্র একপক্ষীয়ভাবে প্রকাশের উদাহরণও রয়েছে। সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট কর্তৃক প্রেরিত পত্র যে পরদিনের অর্থাৎ ৪ এপ্রিলের প্রাভদা পত্রিকায় প্রকাশিত হলো, সেটা এর গুরুত্ব তুলে ধরে। তদুপরি আরেকটি কূটনৈতিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল সোভিয়েত বিদেশ মন্ত্রণালয়। ৫ এপ্রিল ১৯৭১ নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সোভিয়েত মিশন ‘পদগর্নি পত্র’-এর কপি সব সদস্যরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের দপ্তরে পৌঁছে দেয়।
এখানে পদগর্নি পত্রের কতক তাৎপর্যময় দিকের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা যায়। ‘মান্যবর মিস্টার প্রেসিডেন্ট’ সম্বোধনের পর কোনো রকম ভণিতা বা কুশলবিনিময় ছাড়াই লেখা হয়েছে, ‘ঢাকায় আলোচনা ভেঙে যাওয়া এবং পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের বিরুদ্ধে সামরিক শক্তি প্রয়োগ ও চরম ব্যবস্থা অবলম্বন যে সামরিক প্রশাসন প্রয়োজন মনে করেছে, সেই সংবাদ সোভিয়েত ইউনিয়ন গভীর উদ্বেগের সঙ্গে গ্রহণ করেছে।’ এখানে কৌশলে ‘পাকিস্তান সরকার’ উল্লেখ না করে বলা হয়েছে ‘সামরিক প্রশাসন’, গণহত্যাযজ্ঞের সূচনার সেই ডামাডোলে যদি সমাজতান্ত্রিক শিবিরের চাপে শুভবুদ্ধির উদয় হয়, তবে পিন্ডির শাসকচক্র যেন সম্মানের সঙ্গে সমাধানে পৌঁছাতে পারেন, সেই অবকাশ তাদের দেওয়া হয়েছিল। অর্থাৎ সরকার চাইলে নিজেকে রক্ষা করে দায়ভার চাপাতে পারতেন প্রাদেশিক বা তথাকথিত সামরিক প্রশাসনের ওপর।
এরপর সমস্যার শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক সমাধান কামনা করে বলা হয়, ‘মাননীয় প্রেসিডেন্ট, সোভিয়েত ইউনিয়নের সর্বোচ্চ সোভিয়েতের সভাপতিমণ্ডলীর পক্ষ থেকে আমাদের কর্তব্য মনে করে আপনার প্রতি বিশেষ আবেদন জানাই, যেন আপনি পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের ওপর পীড়ন ও রক্তপাত ঘটানো বন্ধের জন্য অতীব জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।’ গণহত্যা বন্ধের জন্য এর চেয়ে জোরালো আবেদন আর ছিল না। ‘অ্যাপ্রোপ্রিয়েট মেজার্স’ বা যথাযোগ্য ব্যবস্থা কিংবা ‘আর্জেন্ট মেজার্স’ বা জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণের বদলে বলা হয়েছিল ‘মোস্ট আর্জেন্ট মেজার্স’ এবং এভাবেই মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে বলিষ্ঠ অবস্থান নেয় সোভিয়েত ইউনিয়ন, যে-ভূমিকার সঙ্গে জড়িয়ে আছে নিকোলাই পদগর্নি স্বাক্ষরিত পত্র, যে পত্র মুক্তিযুদ্ধরত বাঙালিদের কাছে হয়ে উঠেছিল প্রেরণামূলক।
এরপর আগস্ট মাসে ভারত-সোভিয়েত মৈত্রী চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে সোভিয়েত ইউনিয়নের ভূমিকা আরও মূর্ত রূপ নেয় এবং যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে জাতিসংঘে যুদ্ধবিরতি তথা স্থিতাবস্থা আরোপের সব চক্রান্ত ব্যর্থ করে দেয় সোভিয়েত ভেটো এবং সম্ভব করে তোলে বাংলাদেশের অভ্যুদয়।
বাংলাদেশের মানুষের চরম দুর্দিনে পরম নির্ভরযোগ্য বন্ধু হিসেবে পাশে দাঁড়িয়েছিল সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং সে দেশের কমিউনিস্ট পার্টি ও সরকার। আজ দেশটি আগের অবয়বে নেই, নামও গেছে পাল্টে, কমিউনিস্ট পার্টিও ক্ষমতাবিচ্যুত হয়ে এখন খণ্ড-বিখণ্ড, তবু তো রয়ে যায় ইতিহাস, সেই ইতিহাসের কাছে আমরা যতটা দায়বদ্ধ ততটাই ঋণী সোভিয়েত দেশ ও তার মানুষের কাছে, সেই মানুষদের তৎকালীন নেতৃত্ব, সরকার ও পার্টির কাছে এবং কৃতজ্ঞ নিকোলাই পদগর্নির কাছে, অনন্যসাধারণ ও তাৎপর্যময় এক পত্রের স্বাক্ষরদাতা হিসেবে।



Prothom Alo
Reply With Quote
  #50  
Old December 13, 2011, 09:51 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,333


সাক্ষাৎকার

বাংলাদেশের মানুষের প্রতি বিশেষ শ্রদ্ধা

| তারিখ: ১৪-১২-২০১১


  • ০ মন্তব্য
  • প্রিন্ট
  • ShareThis




« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»
জ্যাক ফ্রেডেরিক রালফ জ্যাকব



পুরো নাম জ্যাক ফ্রেডেরিক রালফ জ্যাকব। একাত্তরে তিনি ছিলেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের চিফ অব স্টাফ। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইতিহাসের একমাত্র প্রকাশ্য আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানের মুখ্য পরিকল্পনাকারী তিনি। প্রথম আলো তাঁর মুখোমুখি হয়েছিল গত ২৩ মে তাঁর দিল্লির বাসভবনে। সাক্ষাৎকার ও ই-মেইলে সাম্প্রতিক যোগাযোগের ভিত্তিতে তাঁর স্মৃতিচারণা আজ থেকে ছাপা হচ্ছে তিন কিস্তিতে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মিজানুর রহমান খান

লে. জেনারেল জ্যাকবের পূর্ব পুরুষেরা বাগদাদ থেকে এসেছিলেন কলকাতায়। ১৯২১ সালে সেখানেই তাঁর জন্ম।
জ্যাকব বলেন, ‘নিয়াজি ও ৯৩ হাজার পাকিস্তানি সেনার প্রকাশ্য আত্মসমর্পণের ৪০তম বার্ষিকীতে আসুন আমরা শ্রদ্ধা জানাই বাংলাদেশ ও ভারতের তাঁদের প্রতি, যাঁরা বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য প্রাণোৎসর্গ করেছিলেন। তবে অবশ্যই বিশেষভাবে শ্রদ্ধা জানাতে হবে বাংলাদেশের জনগণকে, যাঁরা পাকিস্তানি অত্যাচারের বিরুদ্ধে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিলেন এবং বীরের মতো তাদের প্রতিহত করেছিলেন। আমরা যেন মুক্তিযোদ্ধা ও ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের অসাধারণ ভূমিকা ভুলে না যাই, যাঁরা ভারতের সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করেছিলেন।’
প্রথম আলো: আত্মসমর্পণ নিয়ে নিয়াজির সঙ্গে আপনার প্রথম কখন কথা হয়েছিল?
জেনারেল জ্যাকব: ১৩ ডিসেম্বর রাতে। এরপর ১৪, ১৫ ও ১৬ ডিসেম্বর ঢাকায় আসার আগে আরও তিন দফা কথা হয়েছিল বেতারে। নভেম্বরে টাঙ্গাইলে আমরা আকাশপথে ছত্রীসেনা নামিয়েছিলাম। এ সময়ের মধ্যে ঢাকার বাইরে আমাদের প্রায় তিন হাজার সেনা নিয়োজিত ছিল। মার্কিন সপ্তম নৌবহর মালাক্কা প্রণালির দিকে অগ্রসর হচ্ছিল। দিল্লিতে অনেকেই উদ্বিগ্ন ছিলেন। ইসলামাবাদ থেকে পূর্ব পাকিস্তানের সেনাদের পাঠানো গোপন বার্তা আমরা ইন্টারসেপ্ট বা ধরতে পেরেছিলাম। এতে বলা হয়েছিল, যুদ্ধ চালিয়ে যাও। উত্তর থেকে হলুদ (চীন) এবং দক্ষিণ থেকে সাদার (আমেরিকা) কাছ থেকে সাহায্য আসছে। নিয়াজি এ কথা বিশ্বাস করেছিলেন। তাই তিনি শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত একটা যুদ্ধবিরতির আশা করেছিলেন।
প্রথম আলো: জাতিসংঘের অবস্থান কী ধরনের প্রভাব ফেলেছিল?
জ্যাকব: ১৩ ডিসেম্বর জাতিসংঘে মার্কিন প্রস্তাব পেশ করা হয়েছিল। সোভিয়েত ইউনিয়ন তাতে ভেটো দেয়। তবে সোভিয়েত বলে দিয়েছিল, মার্কিন প্রস্তাবের বিরুদ্ধে আর কোনো ভেটো তারা দেবে না। জেনারেল মানেকশ (ভারতীয় সেনাপ্রধান) এ জন্য প্রতিক্রিয়া দেখান। তিনি আমাদের নির্দেশ দিয়েছিলেন, ঢাকা ছাড়া বাংলাদেশের আর সব শহর দখল করতে। সে কারণে ১৬ ডিসেম্বরেও ঢাকা ছিল অরক্ষিত। মানেকশর নির্দেশ সব আঞ্চলিক অধিনায়কের কাছে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু আমরা ফোন করে তাঁর এই আদেশ উপেক্ষা করতে বলেছিলাম। জেনারেল অরোরা (তৎকালীন পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের জিওসি) উত্তেজিতভাবে আমার কক্ষে এলেন। বললেন, এসবের জন্য আমিই দায়ী। কারণ তিনি শহরগুলো দখল করতে চেয়েছিলেন এবং আমি তাঁর দৃষ্টিভঙ্গি সমর্থন করিনি। উপরন্তু আমি সিলেট, রংপুর, দিনাজপুর ও অন্য কয়টি শহর দখল করার পরিকল্পনার বিরোধিতা করেছি। সুতরাং ১৩ ডিসেম্বর রাতে আমি নিয়াজিকে বেতারে পেয়ে তাঁকে জানিয়ে দিয়েছিলাম, ঢাকার অদূরে থাকা আমাদের সেনাশক্তি খুবই জোরালো। অন্যদিকে মুক্তিবাহিনীদের একটা অভ্যুত্থান আসন্ন। এখন নিয়াজি ও তাঁর বাহিনী যদি আত্মসমর্পণ করে, তাহলে তারা ও জাতিগত সংখ্যালঘুরা (বিহারি) সুরক্ষা পাবে।
প্রথম আলো: যুদ্ধবিরতি কীভাবে কার্যকর হয়েছিল?
জ্যাকব: ১৪ ডিসেম্বর আমি একটা পাকিস্তানি বেতার বার্তা ভেদ করতে সক্ষম হই। তাতে জানতে পারি, ঢাকার গভর্নর হাউসে একটা সভা বসবে। ঢাকায় দুটি সরকারি ভবন ছিল। তাই আমরা একটা বুদ্ধিদীপ্ত অনুমান করি এবং সৌভাগ্যবশত সেটাই ছিল সঠিক। এর পরবর্তী দুই ঘণ্টার মধ্যে ওই ভবনটির ওপর ভারতীয় বিমানবাহিনী বোমা ফেলে। ওই দিনই গভর্নর মালেক ও তাঁর মন্ত্রিসভা পদত্যাগ করে। ওই দিনই সন্ধ্যার দিকে নিয়াজি ও জেনারেল ফরমান আলী ঢাকার মার্কিন কনসাল জেনারেল হার্বাট স্পিভাকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তাঁদের প্রস্তাবে লেখা ছিল, জাতিসংঘের আওতায় যুদ্ধবিরতি, সেনা প্রত্যাহার ও পূর্ব পাকিস্তানের প্রাদেশিক সরকারের দায়িত্ব জাতিসংঘের কাছে হস্তান্তর এবং কোনো প্রতিশোধমূলক তৎপরতা না চালানোর শর্ত।
স্পিভাকের কাছে দেওয়া ওই যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে ভারত শব্দটিরও কোনো উল্লেখ ছিল না।
প্রথম আলো: আপনি নিয়াজির যুদ্ধবিরতি প্রস্তাব সম্পর্কে কখন জানতে পারেন?
জ্যাকব: একটি দূতাবাস সূত্রে আমি তখনই জানতে পেরেছিলাম। সুতরাং আমি বিষয়টি মানেকশকে অবহিত করি এবং তিনি ভারতে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে কথা বলেন। কিন্তু মার্কিন রাষ্ট্রদূত কিছুই জানতেন না। ওই দিনই ইসলামাবাদের মার্কিন দূতাবাস নিয়াজির প্রস্তাব নিউইয়র্কে পাঠান। ১৫ ডিসেম্বর সেটা ভুট্টোর কাছে হস্তান্তর করা হয়। ভুট্টো সেটা গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানান। মার্কিনিরা তখন আমাদের কাছে প্রস্তাবটি হস্তান্তর করে। ১৫ ডিসেম্বরে যুদ্ধবিরতির আদেশ চূড়ান্ত হয়। সোভিয়েত ব্লকে থাকা পোল্যান্ডের একটি প্রস্তাব জাতিসংঘে ১৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় পেশ করা হয়েছিল। আমাদের সময় তখন কিন্তু ১৬ ডিসেম্বর সকাল। ভুট্টো এই প্রস্তাব ছিঁড়ে ফেলেছিলেন। কারণ আগ্রাসনের জন্য ভারতকে তাতে নিন্দা জানানো হয়নি।
প্রথম আলো: ১৬ ডিসেম্বর সকালের স্মৃতি আপনার কতটা মনে আছে?
জ্যাকব: তখন সকাল সাতটা হবে। আমি বেতারে জেনারেল নিয়াজির সঙ্গে পুনরায় কথা বললাম। আমি তাঁকে আত্মসমর্পণ করতে বলি। তাঁকে তখন সেনাবাহিনী, আধাসামরিক বাহিনী ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দেওয়ার কথা বলেছিলাম। জেনেভা কনভেনশন যে মেনে চলা হবে, সেটাও তাঁকে স্মরণ করিয়ে দিই।
প্রথম আলো: কী করে ঢাকায় পৌঁছালেন?
জ্যাকব: সকাল আটটায় আমি অফিসে যাই। সকাল নয়টায় মানেকশর কাছ থেকে ফোন পাই। তিনি বললেন, আপনি ঢাকা যান এবং আত্মসমর্পণের ব্যবস্থা করুন। এর কয়েক দিন আগেই আমি কিন্তু আত্মসমর্পণের দলিলের খসড়া দিল্লিতে পাঠিয়েছিলাম। তাই তাঁর কাছে জানতে চাইলাম, ওই খসড়ার ভিত্তিতে নিয়াজির সঙ্গে আমি আলোচনা করতে পারি কি না। তিনি এর উত্তর দেননি। শুধু বললেন, আপনি সেখানে পৌঁছে যান। সেখানে কী করতে হবে, তা আপনার জানা আছে। ফোন রেখেই আমি জেনারেল অরোরাকে মানেকশর নির্দেশনার কথা জানালাম। তাঁর তা অবশ্য আগেই জানা ছিল। অরোরার অফিসের বাইরে মিসেস অরোরার সঙ্গে দেখা হলো। তিনি আমাকে বললেন, তিনি তাঁর স্বামীর সঙ্গে ঢাকা যাচ্ছেন। তাঁর কথা, তাঁর স্থান তাঁর স্বামীর পাশেই। আমি অরোরার কাছে আপত্তি জানালাম। কিন্তু তিনি সাফ বললেন, তিনি তাঁর স্ত্রীকে নিয়ে ঢাকায় যাচ্ছেন এবং তাঁর নিরাপত্তার দায়িত্ব আমাকেই নিতে হবে। অফিস ত্যাগের আগে যারা ঢাকায় যাবে তাদের বিষয়ে আমি অফিস আদেশ জারি করলাম। আমি গুরুত্বারোপ করলাম, ওসমানী ও খন্দকার যাতে সেখানে থাকেন। নিয়াজিকেও অবহিত করলাম যে, আমি ঢাকায় আসছি। এর আগে আমি একটি ভুল করেছিলাম। নিয়াজির সঙ্গে আলোচনায় তিনি ধারণা করেছিলেন, আমি ঢাকায় আসছি। তাই তিনি আমাকে ১৬ ডিসেম্বর মধ্যাহ্নভোজে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। মানেকশকে বলেছিলাম, নিয়াজি আমাকে মধ্যাহ্নভোজের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। (চলবে)



Prothom Alo
Reply With Quote
Reply

Bookmarks


Currently Active Users Viewing This Thread: 1 (0 members and 1 guests)
 
Thread Tools
Display Modes

Posting Rules
You may not post new threads
You may not post replies
You may not post attachments
You may not edit your posts

BB code is On
Smilies are On
[IMG] code is On
HTML code is On



All times are GMT -5. The time now is 07:48 AM.


Powered by vBulletin® Version 3.8.7
Copyright ©2000 - 2014, vBulletin Solutions, Inc.
BanglaCricket.com
 

About Us | Contact Us | Privacy Policy | Partner Sites | Useful Links | Banners |

© BanglaCricket