facebook Twitter RSS Feed YouTube StumbleUpon

Home | Forum | Chat | Tours | Articles | Pictures | News | Tools | History | Tourism | Search

 
 


Go Back   BanglaCricket Forum > Miscellaneous > Forget Cricket

Forget Cricket Talk about anything [within Board Rules, of course :) ]

Reply
 
Thread Tools Display Modes
  #1  
Old February 13, 2012, 10:09 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636
Default Omor Ekushey February: February 21st - My Language, My Pride

Ekushey February now also called just Ekushey, 21 February, Shaheed Dibas (Martyrs' Day) and, since 2000, International Mother Language Day. On 21 February 1952, corresponding to the 8th of Falgun 1359 in the Bangla calendar, a number of students were campaigning for the recognition of Bangla as one of the state language of Pakistan were killed when police fired upon them.

Even before the creation of Pakistan in 1947, there had been demands that Bangla be made the state language of Pakistan. In July 1947, Dr. Muhammad Shahidullah suggested that, after the departure of the British, Bangla could be made the state language of the new state – the then East Pakistan. Shortly after the creation of Pakistan, at the first session of the Pakistan Legislative Assembly on 23 February 1948, Dhirendranath Datta proposed that Bangla be made one of the languages of the Assembly along with English and Urdu. The proposal was rejected. Then Sheikh Mujibor Rahman, Moulana Bhashani, Abdur Rob and other leaders of East Pakistan left the assembly in protest of the rejection.

In March 1948, Governor General Mohammed Ali Jinnah arrived in East Pakistan. On 21 March 1948, at a public meeting in Dhaka, he declared that Urdu alone would be the state language of Pakistan. Subsequently Khawja Nazimuddin, who had become the Prime Minister of Pakistan following the assassination of Liaquat Ali Khan, visited East Pakistan in January 1952. On 27 January, at a public meeting at Paltan Maidan, he reiterated Jinnah's pronouncement that Urdu would be the only state language of Pakistan.

In protest, the Dhaka University National Language Committee called a token strike on January 30. A meeting was held on the day at Amtala, on the university campus, close to Madhur Cantin, where students pledged to carry on the Language Movement. A decision was also made to observe a strike in all educational institutions of the province on the 4th of February. The next day, an all-party meeting was held at the Dhaka Bar Library at which prominent and well-respected politician Maulana Abdul Hamid Khan Bhashani presided. At the meeting a 40-member All-Party National Language Action Committee was formed. The meeting supported the strike call on February 4.

Accordingly, a strike was observed in all educational institutions on February 4. A student meeting on the day called for a province-wide Hartal on 21 February. The government, on its part, invoked Section 144 on 20 February, banning public meetings, rallies and processions. Opposition politicians were unwilling to get involved in a clash with the government just before a general election. The All-Party National Language Action Committee, which met that night, decided by a majority vote not to violate Section 144.

The student community, however, refused to accept this decision. At a meeting on the morning of 21 February on the campus of the arts faculty of the university (now Dhaka Medical College and Hospital), the students unanimously agreed to stick to the earlier decision to defy Section 144.

After the meeting, they started gathering on the premises of the Medical College hostel. People from all walks of life gathered there spontaneously in love of their mother language. From there they tried to proceed towards the Provincial Assembly (Dhaka University Jagannath Hall Dormitory that collapsed in 1985) where a session of the East Bengal Legislative Assembly was about to begin. The policemen on duty tried to disperse the students by firing blanks. When this failed, the police fired into the crowd. In the firing Abul Barkat, a university student, Rafiq Uddin Ahmed, a student of Debendra College, Manikganj, and Abdul Jabbar, a young farmer from Gaffargaon, were killed. Abdus Salam, a bank employee, was injured in the firing and died in hospital later. At least two others are also believed to have been killed in the firing that day.

The reaction to the police killings was immediate. People began to gather on the premises of Dhaka Medical College Hospital. All over the country, schools and colleges held protest meetings, rallies and processions.

To bring the situation under control, the government enforced a curfew and deployed the army in Dhaka. Defying the curfew, on 22 February, students alongside common people came out on city streets to protest the killings. They participated in a gayebi janaza (funeral prayer held without the dead body) on the Medical College campus. On the night of 23 February, the students constructed a Shaheed Minar (martyrs' memorial) on the spot where the students had been killed. Three days later, the police demolished the memorial.

Nevertheless, the movement for the recognition of Bangla as a state language gained momentum. After the resounding victory of the United Front in 1954, Bangla was recognised as one of the state languages of Pakistan at a session of the National Assembly on the 9th of May 1954.

Till 1971, the day was observed spontaneously, and served as an occasion to revive the feelings of nationalism and Bengali nationhood. Actually, this Language Movement was the foundation of the bloody Independence war of 1971.

After liberation, the day became a national holiday and the University of Dhaka took over the maintenance of the Shaheed Minar and the surrounding area and the responsibility of organising the commemoration. Colourful Alpana designs are painted on the ground, and Bangla verses and prose passages about Bangla are written on the walls facing the Shaheed Minar.

At one minute past midnight on 21 February, the President of Bangladesh arrives at the Shaheed Minar to pay homage to the language martyrs. He is followed by the Prime Minister, members of the cabinet, staff of diplomatic missions in Dhaka, political leaders, representatives of various institutions and organisations etc. Throughout the day, people of all ages and from all walks of life visit the Shaheed Minar to pay tribute to those who gave their lives for Bangla. Walking slowly, they sing the mournful notes of the elegy, 'Amar bhaiyer rakte rangano ekushey february ami ki bhulite pari' (Can I forget 21 February reddened with the blood of my brothers?). Apart from this famous song, many poets have written poems on 21 February. In commemoration of the day, Bangla Academy holds a month-long book fair and organises literary and cultural events throughout the month.

Special programmes are broadcast and telecast highlighting the importance of the day. Different cultural organisations also arrange various functions. Newspapers publish special supplements.

Ekushey February played an important role in making Bengalis aware of their cultural and national heritage and ultimately led to the creation of Bangladesh in 1971. Since 2000, 21 February is also being observed as International Mother Language Day in tribute to those who sacrificed their lives for their mother tongue.

Now we are a free nation and we are proud of having only Bangla our language. But unfortunately and regrettably, after fifty one years of language movement, we still demand that Bangla, only Bangla will be our language in all aspects of life. Our culture, our beloved language is now at stake again because other cultures are invading our very nation and her own language. Before we fought against our external enemies, now for the language, we are fighting against a much bigger enemy - the enemy within.

***Written in reference of an article by Ahmed Rafique of Banglapedia.
Reply With Quote
  #2  
Old February 13, 2012, 11:46 PM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486

Omor Ekushey February....heartfelt, most humble, most respectful salaams for our Language martyrs.
Bangla is the spirit of our people for thousands of years, it will forever glow and shine even on the hardest of days, even when the earth comes to an end!
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #3  
Old February 14, 2012, 12:42 AM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486


The first Shaheed Minaar

http://banglamusic.com/articles/ekus...leeds-425.html
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #4  
Old February 14, 2012, 12:48 AM
bujhee kom's Avatar
bujhee kom bujhee kom is offline
Cricket Sage
 
Join Date: June 27, 2007
Location: Dhaka Mental Hospital
Favorite Player: Mo Chow = Chow Mo
Posts: 21,486




22nd February morning, 1952: Huge condolence-rally after gaybana janaja in front of Dhaka Medical College hostel.


21st February, 1952: Part of the historic meeting in front of old arts faculty building.


21st February morning, 1953. Female students of Dhaka University, festoons in hand in the procession.


21st February, 1954. Rally on the roads of Dhaka led by Ataur Rahman Khan and Oli Ahmed on the second martyrs


21st February, 1953: Parents of Shaheed Abul Barkat at Barkat's Final Resting Place


21st February, 1956: Maulana Abdul Hamid Khan Bhashani after the foundation stone laying program of Shahid Minar (martyrs tomb)


The second Shaheed Minar

http://bangalnama.wordpress.com/2008...bhashar-jonye/
__________________
Khela-dhulai Haraa-haari maraa-maari often with Lathi o ghushi thakbei...
Reply With Quote
  #5  
Old February 14, 2012, 01:30 AM
Naimul_Hd's Avatar
Naimul_Hd Naimul_Hd is offline
Cricket Guru
 
Join Date: October 18, 2008
Location: Global City of Australia
Favorite Player: Shakib, Mashrafe
Posts: 13,383

Thanks FA bhai and BK bhai for sharing detail and pictures.
Reply With Quote
  #6  
Old February 14, 2012, 01:42 AM
Zunaid Zunaid is offline
Administrator
 
Join Date: January 22, 2004
Posts: 21,739

A brief history of the Bangla Language Movement

Reply With Quote
  #7  
Old February 14, 2012, 06:47 AM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Dear bk, thanks a lot for these great pictures.
Reply With Quote
  #8  
Old February 14, 2012, 07:21 AM
Night_wolf's Avatar
Night_wolf Night_wolf is offline
BC Staff
BC Bangladesh
 
Join Date: October 30, 2010
Location: City of Traffic Jam
Favorite Player: Gilly
Posts: 12,709

thanks for those nice pics BK da..specially the 1st shaheed minar
__________________
Associates whom Bangladesh has lost to: 1.Kenya 2.Canada 3.Ireland 4.Netherlands 5. Scotland 6. Afganistan 7. Hongkong
Reply With Quote
  #9  
Old February 15, 2012, 01:29 AM
Antora's Avatar
Antora Antora is offline
Cricket Guru
 
Join Date: February 28, 2007
Location: melbourne, Australia
Favorite Player: Mominul, Nasir, Shakib
Posts: 8,817

Thanks for the pics and Info (s). Those pictures say a lot.
Reply With Quote
  #10  
Old February 15, 2012, 02:02 AM
riankhan's Avatar
riankhan riankhan is offline
BanglaCricket BPL Fantasy League Winner 2012
 
Join Date: January 9, 2008
Favorite Player: To Bash = AshDaFool
Posts: 2,040

সুতাটাতে কিছু বাংলা লিখা আশা করছিলাম
__________________
"I was dropped after a bad performance in one match..." -- Sir Ash
Reply With Quote
  #11  
Old February 15, 2012, 02:16 AM
Zunaid Zunaid is offline
Administrator
 
Join Date: January 22, 2004
Posts: 21,739

Reply With Quote
  #12  
Old February 15, 2012, 09:24 AM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Quote:
Originally Posted by riankhan
সুতাটাতে কিছু বাংলা লিখা আশা করছিলাম
Yes...Your expectation is reasonable and acceptable..but I can't write Bangla in this forum..sorry for that. I thought about it before I wrote this one.. I thought something is better than nothing.
Reply With Quote
  #13  
Old February 18, 2012, 01:13 AM
shaad's Avatar
shaad shaad is offline
Cricket Legend
 
Join Date: February 5, 2004
Location: Bethesda, MD, USA
Posts: 3,582



The Bangladesh Embassy in DC is having a small program to celebrate 21st February. Is anyone from the neighborhood planning to drop by?
__________________
Shaad
Reply With Quote
  #14  
Old February 19, 2012, 02:17 AM
Zeeshan's Avatar
Zeeshan Zeeshan is offline
BC Staff
BC Editorial Team
 
Join Date: March 9, 2008
Posts: 25,803

Very informative thread. Perhaps it could be sticky for the duration of the month sort of as a bookmark.
Reply With Quote
  #15  
Old February 19, 2012, 04:48 AM
riankhan's Avatar
riankhan riankhan is offline
BanglaCricket BPL Fantasy League Winner 2012
 
Join Date: January 9, 2008
Favorite Player: To Bash = AshDaFool
Posts: 2,040

Quote:
Originally Posted by faguneragun
yes...your expectation is reasonable and acceptable..but i can't write bangla in this forum..sorry for that. I thought about it before i wrote this one.. I thought something is better than nothing.
কোনই অসুবিধা নাই আগুন ভাই। সুতা খোলার জন্য ধন্যবাদ। আসলে, ছবিই কথা বলে।
__________________
"I was dropped after a bad performance in one match..." -- Sir Ash
Reply With Quote
  #16  
Old February 19, 2012, 06:45 AM
oronnya oronnya is offline
Cricket Legend
 
Join Date: October 19, 2011
Favorite Player: Shak,TI,Mash,Mushy,Dravid
Posts: 3,751

রক্ত ও ভালবাসা দিয়ে খোদাই করা বর্ণমালা।
০২ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১১ রাত ৯:৩২
শেয়ারঃ



ভাই ভাই। মেডিকেল কলেজের গেট কোন দিকে বলতে পারেন?

যাকে জিজ্ঞেস করা হল তার দু হাতে দুটি বড় পোস্টার সমান কাগজ। হন্তদন্ত হয়ে ছোটার মুহুর্তে তার গতিপথে বাধার সৃষ্টি করলেন জব্বার। কিন্তু এ ছাড়া তার উপায় নেই। তার শাশুড়িকে ভর্তি করানো হয়েছে মেডিকেলে। তাকে দেখতেই আসা। লোকটি বলল,

সে কি!! ঢাকায় থাকেন আর মেডিকেল কলেজের গেট চিনেন না!!

যে জিজ্ঞেস করেছিল তার নাম জব্বার। জব্বার লজ্জিত হল। আসলে ব্যাপারটা কি আমি বেশ কিছু দিন বার্মাতে ছিলাম। আর হাসপাতালে আমার তেমন আসা যাওয়া হয়না। আমার স্ত্রী আমেনার মা অসুস্থ। তাই দেখতে এলাম। কিন্তু এখানে এসে দেখি সবাই যেমন ব্যস্ত ব্যস্ত।

ভাই সবাই কেন ব্যস্ত সেটা আপনার জানা উচিৎ ছিল। ঐযে গেট দেখতে পাচ্ছেন সোজা ঢুকে পড়ুন। সেটাই মেডিকেলে ঢোকার গেট।

এই বলেই বরকত চলে গেল। বরকতকে পরিচয় করিয়ে দেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পলিটিকাল সায়েন্সে বিএ করেছে এখন এমএ তে ভর্তি হয়েছে। বেশ সংস্কৃতিমনা ছেলে। প্রিয় কাজ কবিতা পড়া। রাজনীতির উপর আগ্রহ আছে। মুহম্মদ আলি জিন্নাহর বক্তব্য শুনতে রেসকোর্স ময়দান আর কার্জন হল দুই জায়গাতেই ছিল সে। তবে " উর্দু, উর্দুই হবে পাকিস্তানের এক মাত্র রাষ্ট্র ভাষা" শোনার পর থেকে জিন্নাহর প্রতি আকর্ষন চলে গিয়েছিল। এ ব্যাপারে তার সাথে অবশ্য তর্কও হয়েছে কয়েকজনের সাথে।

আরে এত কষ্টের পর পাকিস্তান পাওয়া গেছে। জিন্নাহ তো চাইবেনই ৫ টি প্রদেশকে এক করতে! ৫ টি প্রদেশের রাষ্ট্র ভাষা ৫ রকম। এদের মধ্যে সম্প্রীতি আসবে কিভাবে!!

বরকতের সোজা কথা, তাই বলে এভাবে সম্প্রীতি আনতে হবে!! বাঙ্গালী মুসলমান কি আগে ছিলনা!! বাংলায় কোরআন কি আমরা পড়িনি? মনে নাই ৪০০ বছর আগে আব্দুল হাকিম কি বলেছিলেন?? যে জন বঙ্গে জন্মে হিংসে বঙ্গবানী, সে সব কাহার নির্ণয় ন জানি। ১০০০ বছর পুরানো আমাদের বাংলা ভাষা। ১০০০ বছর পুরানো আমাদের বর্ণমালা। আর তারা বলেন উর্দু বা আরবি হরফে বাংলা লিখতে। তাহলে ইংরেজী বর্নমালাই বা রাখার দরকারটা কি?? সেটাকেও উর্দু হরফে দিয়ে দিক।

বরকত পোস্টার গুলা নিয়ে যাচ্ছে কারন সবাই তার জন্য অপেক্ষা করছে। রাতে অনেক মিটিং আছে।

রাতে খাবার খাওয়ার সময় রফিকের বাবা রফিককে বললেন আগামী কাল ঘর থেকে বের না হতে। প্রেসটাও নাকি খোলা রাখবেনা। রফিকের বাবার প্রেস আছে। ৩ বছর হল রফিক মানিকগঞ্জ ছেড়ে প্রেসে কাজ করতে এখানে এসেছে। হটাৎ রফিকের বাবার মনে হল কি জানি কাজ আছে একটা প্রেসে। রফিককে বললেন, ঠিক আছে। কিছু মুদ্রনের কাজ আছে সেটা জানি সে করে আসে।

২১ শে ফেব্রুয়ারী সকালে সালাম বুঝতে পারলনা আজ অফিসে কাজ হবে কি হবেনা। পিয়ন হওয়ার যন্ত্রনা। সে তো আর মালিক না যে বিপদ বুঝে বলে ফেললেই হবে আর অফিস বন্ধ হয়ে যাবে। পিয়নকে অন্যের কথা শুনতে হয়। সে অনেক সকালে গেটে এসে দাঁড়িয়ে থাকল।

সকাল ৯টা থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্ররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এসে জড়ো হতে থাকল। তারা ১৪৪ ধারা জারির বিপক্ষে স্লোগান দিতে থাকল। মানি না মানবনা রাষ্ট্র ভাষা বাঙ্গলা চাই। উর্দুর পাশাপাশি বাঙ্গলাকেও রাষ্ট্র ভাষার মর্যাদা দিতে হবে। এর কোন বিকল্প চলবেনা। উর্দু হরফে বাংলা মানিনা। পূর্ব বঙ্গ আইন পরিষদের সদস্যদের ভাষা সম্পর্কে সাধারণ জনগণের মতকে বিবেচনা করার আহ্বান জানানোই ছিল ছাত্রদের উদ্দেশ্য।

পুলিস উপস্থিত। তারা অস্ত্র হাতে সভাস্থলের চারদিকে প্রাচীর তৈরি করে ফেলল। বিভিন্ন অনুষদের ডীন এবং উপচার্য সে সময় উপস্থিত। বেলা সোয়া এগারটার দিকে ছাত্ররা প্রতিবন্ধকতা ভেঙে রাস্তায় নামতে চাইলে পুলিস কাঁদানে গ্যাস বর্ষণ করতে লাগল। ছাত্ররা দুর্বার। কাদানো গ্যাস সহ্য করতে রাজি আছে কিন্তু কিছুতেই বাংলা ভাষার অমার্যাদা তারা সইবেনা। মায়ের ভাষাকে অমর্যাদা করা যায়না।

কিছু ছাত্র এই সময়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের দিকে দৌড়ে চলে গেলেও বাকিরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে আটকে পড়ে পুলিসের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। উপাচার্য তখন পুলিসকে কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ বন্ধ করতে বললেন। তিনি ছাত্রদের বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা ত্যাগ করতে বলতে লাগলেন। কোন রকমের সহিংসতা যেন না ঘটে।। ছাত্ররাও ক্যাম্পাস ত্যাগ করা আরম্ভ করল। তখনই মূল সমস্যা শুরু হল। ছাত্ররা ক্যাম্পাস ত্যাগ করার সময় পুলিস তাদের গ্রেফতার করা শুরু করল। অনেক ছাত্রদের গ্রেফতার করে তেজগাঁও নিয়ে গিয়ে ছেড়ে দেওয়া হল। এই ঘটনায় ছাত্ররা আরও ক্ষুব্ধ হয়ে যায়। প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে কিছু মহিলাও তাদের এই বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করে। বেলা ২টার দিকে আইন পরিষদের সদস্যরা আইনসভায় যোগ দিতে এলে ছাত্ররা তাদের বাধা দিয়ে সভায় তাদের দাবি উত্থাপনের দাবি জানায়।

পরিস্থিতি আরো নাটকীয় হল যখন কিছু ছাত্র সিদ্ধান্ত নেয় তারা আইন সভায় গিয়ে তাদের দাবি উত্থাপন করবে। পুরাটা সময়ের বরকতের বলিষ্ঠ কন্ঠ বিদ্যমান ছিল। মেডিকেলের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় জব্বর দেখলেন বরকতকে। " আমাদের দাবী মানতে হবে রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই। আমাদের দাবী মানতে হবে রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই।" জোহরের নামাজ আদায় করার পর জব্বর সিদ্ধান্ত নিলেন তিনিও মিছিলে যাবেন। সমগ্র বাঙ্গালি জাতি আজ এক। দীর্ঘদিন বার্মাতে থাকার কারনে ব্যাপারটা তিনি অনুধাবন করতে পারেননি। আজ বুঝতে পারছেন যে তিনি বাঙ্গালি। এখানে যারা আজ মিছিল করছে সবাই মায়ের ভাষাকে রক্ষার জন্য মিছিল করছে। তিনিও মিছিলে ঢুকে গেলেন। তখনও তার পরনে টুপি।

ওই দিকে রফিক সকালে প্রেসে কাজ করার সময় বাইরের সব খবর তার কানে আসছিল। কি জন্য ঢাকা আজ উত্তাল। সে এগুলোর সাথে পরিচিত নয়। প্রেসে ছাপানো কাগজের কাজ করছিল সে। বাচ্চাদের আদর্শলিপি। কাজ করতে করতে থেমে গেল সে। আদর্শ লিপির ক, খ, গ, ঘ এর দিকে তাকাল। একবার হাত বুলাল। প্রেসে তখন তার বাবা নেই। সে প্রেস থেকে বেরিয়ে এল। ক, খ, গ, ঘ কে বাঁচাতে হবে। মায়ের ভাষাকে বাঁচাতে হবে।

রাওয়ালপিন্ডি থেকে নির্দেশ ছাত্রদের আটকাতে হবে।১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার লালবাগ থানার ওসি ছিলেন এম এ গোফরান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকাটি সেদিন তার দায়িত্বে। ঐ দিন ছাত্রদের প্রধামমন্ত্রী নুরুল আমিনকে বাংলা ভাষার দাবিতে স্মারকলিপি দেবার কথা ছিল। তখন ঢাকার ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট (ডিএম) ছিলেন কোরেইশী নামের এক পাঞ্জাবি। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে রাত ১০টায় এম এ গোফরানের কাছে ডিসি স্বাক্ষরিত সেই চিঠিটি পৌছায় এবং তখনই তা সাধারণ ডায়েরিভুক্ত করা হয়। ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে রাজারবাগ থেকে স্পেশাল আর্মস ফোর্সের একটি বড় দল ক্যাম্পাসে আসে। তাদের ইনচার্জ ছিলেন পাঞ্জাবি কর্মকর্তা আর আই নবীশের খান। ঢাকার ডিএম কোরেইশী, ডিআইজিপি এ জেড ওবায়দুল্লাহ, এসপি ইদ্রিস ও এডিশনাল এসপি মাসুদ মাহমুদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন।

ছাত্ররা ৫ জন একত্রিত হলেই ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করেছে বলে ধরে নিতে প্রস্তুত ছিল পুলিশ। এ অবস্থায় বেলা ৩টা কি সাড়ে ৩টার দিকে ছাত্ররা ৪ জন করে অ্যাসেম্বলির হলের দিকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু তাতেও বাধা দেওয়া হয়। পুলিশের মারমুখী আচরণের প্রতিবাদে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয়। হোস্টেল থেকে বয়রা টুকরিতে করে, লুঙ্গিতে ভরে ইটের টুকরো ছাত্রদের কাছে সরবরাহ করতে থাকে। তারা নিজেরাও ইটপাটকেল ছুড়ে পুলিশকে প্রতিরোধের চেষ্টা করে। তখনি একটা অঘটন ঘটে। ডিআইজিপি ওবায়দুল্লাহর পিঠে ইট পড়ে। আর আই নবীশের খানের মাথায় পড়ে ইটের একটি টুকরো। তখনই ডিএম কোরেইশী গুলি করার নির্দেশ দেন। তবে চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার নিয়াজ মোহাম্মদ খান ছাত্রদের মিছিল সমাবেশে বাধা দেওয়ার বিপক্ষে অবস্থান নেন।

পুলিশ গুলি করল। পুলিসের গুলিবর্ষণে কিছু ছাত্র ছাত্র ছাত্রাবাসের বারান্দায় পড়ে গেল। আব্দুল জব্বার এবং রফিক উদ্দিন আহমেদ ঘটনাস্থলেই নিহত হন। একজনের মাথার খুলি উড়ে গেল। হতভম্ব অবস্থায় সেই দৃশ্য তাকিয়ে দেখার সময় গুলি খেলেন বরকত। আরও গুলি লাগল সালামের। সবাইকে ঢাকা মেডিকেলে নেওয়া হল। তাদেরকে দেখে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে কর্তব্যরত ডাক্তার এবং নার্সরা পূর্বে আহত ছাত্রদের বের করে গুলিবিদ্ধ ছাত্রদের চিকিৎসা করতে থাকেন। প্রেসে কাজ করা রফিক ইতিহাসের প্রথম ভাষা শহীদ। হাসপাতালে সেই সময় সম্ভবত আব্দুল গাফফার চৌধুরী ছিলেন বরকতের পাশেই..... বন্ধুর মুখের দিকে তাকিয়ে উনার হাত মুষ্টিবদ্ধ হয়ে গিয়েছিল, উনি বলে উঠে ছিলেন "আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো ২১ শে ফেব্রুয়ারী। আমি কি ভুলিতে পারি!" এটা সম্ভবত বাকিদেরও মনের কথা ছিল। তাই তারা পরদিনও ঝাপিয়ে পরে একই প্রত্যয় নিয়ে .......তার পরদিনও.......আজকেও, এমন আরও শত বছর পরেও........তারা কিছুতেই এটা ভুলতে পারে না কারন তাদের ভাইয়ের রক্ত দিনটার গায়ে লেগে আছে।

ছাত্র হত্যার সংবাদ দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে জনগন ঘটনাস্থলে আসার উদ্যোগ নেয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই সমস্ত অফিস, দোকানপাট ও পরিবহণ বন্ধ হয়ে যায়। ছাত্রদের শুরু করা আন্দোলন সাথে সাথে জনমানুষের আন্দোলনে রূপ নেয়। রেডিও শিল্পীরা তাৎখনিক সিদ্ধান্তে শিল্পী ধর্মঘট আহবান করে এবং রেডিও স্টেশন পূর্বে ধারণকৃত অনুষ্ঠান সম্প্রচার করতে থাকে।

বরকত আর সালাম দুইজনকেই মেডিকেলে নেওয়ার পর চিকিৎসা শুরু হয়। বরকতের লেখা পোস্টার তার বন্ধুর হাতে। এই পোস্টার সহই বরকতকে মেডিকেলে আনা হয়েছে। নিজে গুলি খাওয়ার থেকেও জব্বরের গুলি খাওয়ার দৃশ্যই যেন বরকতের কাছে বেশি দৃশ্যমান। রাত আটটার সময় ডাক্তাররা বললেন বরকতকে বাঁচানো যায়নি। সাথে সাথে তিনি অমর একজন ভাষা শহীদ হয়ে গেলেন। তার লেখা পোস্টার গুলা নিয়ে সবাই বলে উঠল, বরকত তুমি অমর। দীর্ঘদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে সালাম মারা যান ৭ই এপ্রিল।

লাশ রাতের আধারে কারফিউ'র সুযোগ নিয়ে সরকার লাশ কবর চাপা দিয়ে চেষ্টা করে ঘটনাটা চাপা দেবার কিন্তু তা হয়নায়। লাশ না পেয়ে আন্দোলনরত মানুষের সাথে সাধারন জনগনও যোগ দেয়, তারা জায়গায় জায়গায় গায়েবানা জানাযা পরে। পুরাটা সময়ই পুলিশ একই পদ্ধতিতে কারফিউ দিয়ে দিয়ে লাশ সরায়। ২২ তারিখে সারা দেশ হয়ে উঠে মিছিল ও বিক্ষোভে উত্তাল। জনগণ ১৪৪ ধারা অমান্য করার পাশাপাশি শোক পালন করতে থাকে। বিভিন্ন অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা কর্মস্থল ত্যাগ করে ছাত্রদের মিছিলে যোগ দেয়। সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শহরের নাগরিক ঢাকা মেডিকেল কলেজ ছাত্রাবাস পরিদর্শন করেন। পরে তাদের অংশগ্রহনে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে বিশাল মিছিলে অংশগ্রহণ করে। বেলা ১১ টার দিকে ৩০ হাজার লোকের একটি মিছিল কার্জন হলের দিকে অগ্রসর হতে থাকে। প্রথমে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে এবং এক পর্যায়ে তাদের উপর গুলিবর্ষণ করে। এই ঘটনায় সরকারি হিসেবে ৪ জনের মৃত্যু হয়।

শহরের বিভিন্ন অংশে একইভাবে জানাজা ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে আর একটি বিশাল মিছিল পুলিশ দ্বারা আক্রান্ত হয়। বিক্ষুদ্ধ জনতা জুবিলী প্রেসে অগ্নিসংযোগ করে। কারন জুবিলী প্রেস থেকে সকালের পত্রিকা বের হয়েছিল।

একই দিনে পুলিশ দ্বারা আক্রমণ ও হত্যার বিভিন্ন ঘটনা ঘটে। শফিউর সাইকেলে করে অফিসে যাওয়ার পথে মিছিলে যোগ দেন। নবাবপুর রোডের বিশাল মিছিলে পুলিশের গুলিবর্ষনে ঘটনায় শফিউর রহমান গুলিবিদ্ধ হয়ে পরে মারা যান। একই রাস্তায় অহিদুল্লাহ নামে নয় বছরের এক বালকের লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। পুলিশ এর মাঝে কিছু লাশ কৌশলে সরিয়ে ফেলে। আজাদের (দৈনিক) তথ্যমতে মৃতের সংখ্যা ছিল ৪ এবং সৈনিকের তথ্যমতে ছিল ৮। বাঙ্গালি উত্তাল। বাঙ্গালি বাংলায় কথা বলতে চায়। বাংলার অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে চায়।

ভাষা আন্দোলনে জড়িত থাকার অপরাধে ১৯৫২ সালে জেলে আটক ছিলেন রনেশ দাশগুপ্ত ও মুনীর চৌধুরী নামে অনেক লেখক-সাংবাদিক। রণেশ দাশগুপ্ত গোপনে একটি চিরকুট পাঠান মুনীর চৌধুরীর কাছে। একটি নাটক লিখে দেওয়ার অনুরোধ। যাতে করে জেলে থেকেও ভাষা আন্দোলনকে উপলব্ধি করা যায়। ১৯৫৩ সালের ১৭ জানুয়ারী নাটক লেখা হল। ১৯৫৩ সালের ২১ শে ফেব্রুয়ারী জেলের সব কক্ষের বাতি নিভিয়ে দেওয়ার পর হারিকেনের আলোয় মঞ্চায়িত হল নাটক "কবর"। (পাঠ্য বইয়ে পড়া আমার প্রিয় লেখাগুলোর একটি। প্রতিবাদী চরিত্র মুর্দা ফকির প্রিয় চরিত্র।) এর বাদে তখন একুশের প্রথম সংকলন "একুশে ফেব্রুয়ারি" বের হল সম্পাদনায় ছিলেন হাফিজুর রহমান। ভাষা আন্দোলন নিয়ে প্রথম উপন্যাস " আরেক ফাল্গুন" লিখেছেন জহির রায়হান। ২৩ সে ফেব্রুয়ারী ১৯৫২ সালে প্রথম শহীদ মিনার নির্মান করা হয়। তবে সেটা ভেঙ্গে ফেলা হয় ২৬ শে ফেব্রুয়ারী। ১৯৫৩ সালে প্রথম বারের মত পালিত হয় শহীদ দিবস। সবাই খালি পায়ে শহর প্রদক্ষিন করে শহীদদের মর্যাদা প্রকাশ করেন। নারী পুরুষ নির্বিশেষে সবাই এতে অংশগ্রহন করে।

১৯৫৬ সালে প্রথমবারের মতো সরকারের প্রচ্ছন্ন সহযোগিতায় ২১শে ফেব্রুয়ারি পালিত হয়। ১৯৫৬ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি আবুল বরকতের পরিবারের সদস্যরা শহীদ মিনারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। অবশেষে, বাংলাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি দেবার পরে ১৯৫৭ সালের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের কাজ শুরু হয়। এর নির্মান কাজ শেষ হয় ১৯৬৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত কমিটির তত্ত্বাবধানে।

১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ শহীদ মিনার আবার গুড়িয়ে দেওয়া হয়। যেই পাকিস্তানে এখন প্রতিনিয়ত মসজিদে বোমা বিস্ফোরিত হয় তারা শহীদ মিনার ভেঙ্গে লিখে রাখে "নামাজ পড়ার স্থান"। ২৭ শে মার্চ শহীদ জননী জাহানারা ইমাম আর আমাদের সূর্য সন্তান রুমি যখন গাড়িতে করে পাকিস্তানিদের ধংসযজ্ঞ দেখতে বের হন শহীদ মিনারের এরকম অবস্থা দেখে জাহানারা ইমাম কেঁদে ফেলেন। দাঁতে দাঁত চেপে বলেন, "শহীদ মিনার, তোমার এই অপমানের শোধ আমরা নিব"।

জাহানারা ইমামের কথা সত্যি হয়েছিল। শহীদ মিনারের অপমানের শোধ আমরা নিয়েছি। আজ শুধু বাংলাদেশে নয় সমগ্র বিশ্বে পালিত হয় এই দিবস। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। কানাডা প্রবাসী আব্দুস সালাম ও রফিকুল ইসলামকে তাদের অবদানের জন্য ধন্যবাদ।

পৃথিবীতে এখন মোট ভাষার সংখ্যা ৬৯১০ টি। সব ভাষার প্রতি সম্মান জানিয়ে শেষ একটা কথা দিয়ে লেখা শেষ করছি। এই যে পৃথিবীতে এত ভাষা এত এত বর্ণমালা। অনেক সমৃদ্ধশালী ভাষারই নিজেদের বর্ণমালা নেই। স্পেনিশ, ফ্রেঞ্চ ভাষা লেখা হয় ইংরেজী বর্ণমালা দিয়ে। কিন্তু আমাদের আছে নিজেদের বর্ণমালা। কারো সাধ্য নেই আমাদের পছন্দের এই বর্ণমালা কেড়ে নেওয়ার। রক্ত ও ভালবাসা দিয়ে আমরা এটাকে পৃথিবীর বুকে চিরদিনের জন্য খোদাই করে দিয়েছি। পৃথিবীর প্রতিটা জাতিকে নিজেদের বর্ণমালা আর ভাষাকে ভালবাসতে আমরাই শিখিয়েছি। ২১শে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস তাই এখন পাকিস্তানেও পালিত হয়। একুশ আমাদের চেতনা, একুশ আমাদের অহঙ্কার। আব্দুল গাফফার চৌধুরীর লেখা আর শহীদ আলতাফ মাহমুদের সুরের গানটি মনে হয় যেন সবসময় নতুন। ফেব্রুয়ারী আসলেই হৃদয়ে গানটি আমরা ধারন করি। প্রবল আবেগ আমরা অনুভব করি বর্ণমালা নিয়ে সংগ্রাম করা নায়কদের কথা।

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি

ছেলে হারা শত মায়ের অশ্রু গড়া এই ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি

আমার সোনার দেশের রক্তে রাঙ্গানো ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি।

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো গানটির ডাউনলোড লিঙ্ক

(প্রয়োজনীয় তথ্য বিভিন্ন জায়গা থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। গল্প আকারে সাজাতে চেষ্টা করেছি।)



লেখাটির বিষয়বস্তু(ট্যাগ/কি-ওয়ার্ড): ভাষা আন্দোলন, একুশে ফেব্রুয়ারী, আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো ;
প্রকাশ করা হয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ বিভাগে । সর্বশেষ এডিট : ১৫ ই জুন, ২০১১ রাত ২:৫৬ | বিষয়বস্তুর স্বত্বাধিকার ও সম্পূর্ণ দায় কেবলমাত্র প্রকাশকারীর...
__________________
"Shakib Al Hasan to Azhar Ali, OUT, a beauty from the Bangladeshi Superman! Shakib gets the runs, Shakib gets the wickets. " CI
Reply With Quote
  #17  
Old February 19, 2012, 06:46 AM
oronnya oronnya is offline
Cricket Legend
 
Join Date: October 19, 2011
Favorite Player: Shak,TI,Mash,Mushy,Dravid
Posts: 3,751

__________________
"Shakib Al Hasan to Azhar Ali, OUT, a beauty from the Bangladeshi Superman! Shakib gets the runs, Shakib gets the wickets. " CI
Reply With Quote
  #18  
Old February 19, 2012, 10:43 AM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Thanks a lot..oronnya.
Reply With Quote
  #19  
Old February 19, 2012, 09:40 PM
Zunaid Zunaid is offline
Administrator
 
Join Date: January 22, 2004
Posts: 21,739

Reply With Quote
  #20  
Old February 19, 2012, 09:54 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,335

People of those days looks so civil and pure, unlike todays hasrh and chaos in our society.
Reply With Quote
  #21  
Old February 19, 2012, 09:56 PM
Bancan's Avatar
Bancan Bancan is offline
Cricket Legend
 
Join Date: March 25, 2006
Location: CANADA
Favorite Player: Brian Lara
Posts: 2,957

^ That was one of the most beautiful things I have heard in a long time. Thanks for that.
__________________
Clear Eyes, Full Hearts, Can't Lose!
Reply With Quote
  #22  
Old February 19, 2012, 11:20 PM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

Slowly and surely, Banglacricket is becoming one of the best and most important archives for our nation and for our history and for our sports.

After 60/70 years, when our next generations will look back and see these picture, stories and threads, it will be a great wonder to them.
Reply With Quote
  #23  
Old February 19, 2012, 11:30 PM
Dilscoop Dilscoop is offline
Cricket Guru
Commissioner, MLC
 
Join Date: March 22, 2010
Posts: 10,943

Do you say "Shuvo 21 February?" That doesn't sound right.

Odd how it's marked under the English calendar, not Bangla. Wait nvm, it's International MTD.
Reply With Quote
  #24  
Old February 19, 2012, 11:50 PM
PoorFan PoorFan is offline
Moderator
 
Join Date: June 15, 2004
Location: Tokyo
Posts: 14,335

Bit a side topic, but thought this report deserve a place somewhere on BC.

-------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------


এত ক্ষেপে গেলেন কেন 'দিদি' মমতা

সীমান্তে ভাষা দিবসের যৌথ অনুষ্ঠান বাতিল



সমকাল ডেস্ক
বাংলাদেশ ও ভারত সীমান্তের বেনাপোল-পেট্রাপোল 'নো ম্যান্স ল্যান্ডের' ওপর ২০০৫ সাল থেকে চলে আসা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের যৌথ অনুষ্ঠান বাতিল করে দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ অনুষ্ঠানে দু'দেশের শিল্পী ও মানুষের ব্যাপক অংশগ্রহণে সেখানে মহামিলনমেলার সৃষ্টি হয়। নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হয় ভাষা দিবস। দু'দেশের ঐতিহ্য, পরম্পরা বার্তাও দেওয়া-নেওয়া হয় এ অনুষ্ঠানে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে এ সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের লেখক-বুদ্ধিজীবীরা তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। সূত্র : বাংলানিউজ।

প্রতি বছর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে 'ভারত-বাংলাদেশ গঙ্গা পদ্মা ভাষা ও মৈত্রী সমিতি' এ অনুষ্ঠানের আয়োজক এবং দু'দেশের স্থানীয় প্রশাসন তাতে সহযোগিতা করে থাকে। এ অনুষ্ঠানের যৌথ আয়োজক কমিটির সভাপতি ভারতের সাবেক এমপি অমিতাভ নন্দী এবং সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশের এমপি শেখ আফিল উদ্দিন। আয়োজক কমিটির প্রধান উপদেষ্টা শ্যামল চক্রবর্তী জানান, অনুষ্ঠান বাতিল করার প্রতিবাদ জানাতে ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টা নাগাদ সেখানে যাব। দেখা যাক সরকার কী করে। অবশ্য সেখানে সরকারের বাধা সত্ত্বেও একটি মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে অনুষ্ঠান বাতিলের ঘটনায় সমকালের কাছে তীব্র নিন্দা জানিয়ে অভিমত ব্যক্ত করেছেন বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক, ভাষাসংগ্রামী আহমদ রফিক ও কবি মুহাম্মদ নূরুল হুদা।

শামসুজ্জামান খান : ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানটি বন্ধ করে দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিচু মনের পরিচয় দিয়েছেন। এর তীব্র নিন্দা জানাই। তিনি বলেন, আমরা আশা করেছিলাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলাদেশের প্রতি বন্ধুত্বের নিদর্শন রাখবেন। তিনি তা না করে উল্টো এমন অবস্থা সৃষ্টি করেছেন, যাতে আমাদের দু'দেশের সম্পর্কে একটা বিরূপ প্রভাব ফেলে। ভারতের পক্ষ থেকে আমরা বহু ক্ষেত্রেই পারস্পরিক উন্নতি দেখতে পারছি না। সেখানকার টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাদেশে দেখানো হয়; কিন্তু আমাদের দেশের কোনো চ্যানেলকে ভারতে প্রবেশাধিকার দেওয়া হয়নি। পশ্চিমবঙ্গ এবং ভারতের বুদ্ধিজীবীরাও এ ব্যাপারে তাৎপর্যপূর্ণ কোনো উদ্যোগ নিচ্ছেন না। এটা দুঃখজনক। বাংলাদেশে যদি ভারতের বই-পুস্তক ও টিভি চ্যানেল নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয় তাহলে বোধহয় সেদেশের বুদ্ধিজীবীদের টনক নড়বে।

সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক : দু'বছর আগে গিয়েছিলাম বেনাপোল-পেট্রাপোল ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে। অংশ নিয়ে মনে হয়েছিল, দু'দেশের সম্পর্ক উন্নয়নে এ ধরনের অনুষ্ঠান খুবই বন্ধুত্ব ও সৌহার্দ্যপূর্ণ। এতে দু'দেশের মানুষের হৃদ্যতা বাড়ে, মনে উদারতা বৃদ্ধি পায়। হঠাৎ করে কী কারণে ভাষা দিবসের যৌথ অনুষ্ঠানটি বন্ধ করে দেওয়া হলো এটা আমার কাছে বোধগম্য নয়। আমি তাদের এ আচরণে হতবাক হয়েছি। এর তীব্র নিন্দা জানাই। আমি ভারতের বন্ধুদের কাছে এর ব্যাখ্যা চাইছি। ভারতীয় বন্ধুরা দেখা হলে বা কথা প্রসঙ্গে বলে থাকেন, বাংলাদেশ তাদের বন্ধুপ্রতিম দেশ, আত্মার আত্মীয়; কিন্তু তাদের আচরণে তা কি ফুটে উঠছে, নাকি তামাশা করছেন? কথা নয়, কাজে পরিচয় দিতে হবে বাংলাদেশ তাদের বন্ধুপ্রতিম দেশ। আশা করি, সরকারি ও বুদ্ধিজীবী পর্যায়ে এ সমস্যা নিয়ে আলোচনায় বসে দ্বিধাদ্বন্দ্ব দূর করা হবে।

ভাষাসংগ্রামী আহমদ রফিক : বন্ধুরাষ্ট্র বলে খ্যাত ভারতের বর্তমান আচরণ ইদানীং প্রশ্নবিদ্ধ মনে হচ্ছে। ১৯৭১ সালে তাদের সহযোগিতা না পেলে ৯৩ হাজার পাকিস্তানি সৈন্যকে তাড়ানো সম্ভব হতো না। একাত্তর-বাহাত্তর সালের তাদের আচরণ বর্তমান আচরণের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়। সীমান্ত এলাকায় বাংলাদেশের সঙ্গে সৌভ্রাতৃত্বপূর্ আচরণ করা হচ্ছে না। তাদের মধ্যে প্রতিবেশীসুলভ আচরণ দেখা যাচ্ছে না। ভাষা দিবসের এ অনুষ্ঠানটি বাতিলের আমি তীব্র নিন্দা জানাই। বাংলাদেশ ছোট্ট দেশ হতে পারে, তাই বলে আত্মমর্যাদাবোধের ওপর আঘাতের অধিকার কাউকে দেওয়া হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে এ আচরণ সত্যি ব্যথিত করেছে।

কবি মুহাম্মদ নূরুল হুদা : বেনাপোল-পেট্রাপোল নো ম্যান্স ল্যান্ডের ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানটি একটি ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। সে অনুষ্ঠানটি যদি বন্ধ করে দেওয়া হয় তাহলে ভালো কথা নয়। এটা বন্ধ করে সে দেশ নিচু মনের পরিচয় দিয়েছে। অনুষ্ঠানটি বন্ধ করে দিয়ে দু'দেশের বন্ধুসুলভ সম্পর্কে বেশ আঘাত হেনেছে। এটা একটা অপশক্তির কাজ ছাড়া আর কিছুই নয়। অনুষ্ঠান বন্ধ করে দিয়ে খারাপ নজির স্থাপন করল সে দেশের সরকার।



Daily Shamokal
Reply With Quote
  #25  
Old February 20, 2012, 01:08 AM
FagunerAgun FagunerAgun is offline
Banned
 
Join Date: February 18, 2006
Favorite Player: Rafiq and Tendulkar
Posts: 5,636

She is the grumpiest and unhappiest lady in this sub-continent . Kill Ekushey February, instead. kill more Bangladeshis on the borders. What else this harsh and chronically unhappy lady can do?
Reply With Quote
Reply

Bookmarks


Currently Active Users Viewing This Thread: 1 (0 members and 1 guests)
 
Thread Tools
Display Modes

Posting Rules
You may not post new threads
You may not post replies
You may not post attachments
You may not edit your posts

BB code is On
Smilies are On
[IMG] code is On
HTML code is On



All times are GMT -5. The time now is 04:35 PM.


Powered by vBulletin® Version 3.8.7
Copyright ©2000 - 2014, vBulletin Solutions, Inc.
BanglaCricket.com
 

About Us | Contact Us | Privacy Policy | Partner Sites | Useful Links | Banners |

© BanglaCricket